• ঢাকা
  • বুধবার, ২৬ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৮ ফেরুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

কূটনৈতিকদের কাঁধে ভর করে ষড়যন্ত্রের মধ্যদিয়ে ক্ষমতা চায় বিএনপি: হানিফ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:১৬ পিএম
হানিফ,  বিএনপি, ষড়যন্ত্র
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ

মোহাম্মদ রুবেল

ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশ থেকে বিএনপি ঘোষিত ১০ দফায় দেশ ও জনগণের জন্য কিছু নেই বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, বিএনপির মাথায় এখন কূটনৈতিকদের কাঁধে ভর করে ষড়যন্ত্রের মধ্যদিয়ে ক্ষমতায় যেতে চাইছে।কারণ তারা জানে দেশের জনগণ তাদের সঙ্গে থাকবে না।এখনও নেই, ভবিষ্যতেও জনগণ তাদের পক্ষে আর দাঁড়াবে না। তাই দলটির নেতারাষড়যন্ত্রের পথ খোঁজে বেড়াচ্ছে।

আওয়ামী লীগের এই সিনিয়র নেতা বলেন, তারা ভেবেছে বিদেশিদের কাঁধে ভর করেই দেশে নাশকতা কর্মকাণ্ড করেই সরকার পতন ঘটানো সম্ভব হবে।এই ভাবনাটাই বলে বিএনপি রাজনৈতিকভাবে অপরিপক্ক বা অদূরদর্শীপূর্ণ।

রোববার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে গণমাধ্যমের সাথে এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, তারা কর্মসূচি দিয়েছে সেখানে দেশের কথা নেই, জনগণের জন্য কিছু নেই। আছে শুধু একজন ব্যক্তির মুক্তির কথা। অথচ  তিনি আদালতে রায়ে প্রমাণিত দ্বন্ধ প্রাপ্ত আসামী।মামলাও চলেছে ৮ বছরের ওপরে। খালেদার বাঘা বাঘা আইনজীবীরা নির্দোষ প্রমাণ করতে পারেনি। দফায় দফায় সময় নিয়েছে। তবুও নির্দোষ প্রমাণ করতে পারেনি।তারেক রহমান টাকা আত্মসাত করেছে।এটি প্রমানিত।এখন তাকে মুক্তি দিতে হবে,সাজাপ্রাপ্ত আসামি ছেড়ে দিতে হবে? কিন্তু কেন? দেশের সকল আসামিই তাহলে দাবি করতে পারে সকল আসামির মুক্তি।তাহলে দেশের আইন আদালত, কারাগার কিছুই দরকার নেই।

১০ ডিসেম্বর নিয়ে জানতে চাইলে হানিফ বলেন,১০ ডিসেম্বর আলাদা কোনো দিবস নয়।বিশ্ব মানবাধিকার দিবস হিসেবে আমরা জানি।কিন্তু বিএনপি এই তারিখে তাদের কর্মসূচি নিয়ে যেভাবে প্রচার প্রপাগান্ডা করে জনগণকে বিভ্রান্ত করেছে।ভাবখানা এমন ছিল এরপর সরকারই থাকবে না। এই গতকালকের কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে গত দু’তিন মাস বিএনপি যে সকল কথাবার্তা বলেছে তাতে প্রমাণ হয় এরা ভাওতাবাজির দল, মিথ্যাবাদির দল।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, রাজনৈতিক খেলা বলে কিছু নেই। একটা বিষয় পরিষ্কার যে তারা দেশে মানুষকেই নয়, দলের নেতা-কর্মীদেরও ধোঁকা দিয়েছে। তাদের নেতা-কর্মীদের মিথ্যা প্রলোভন দিয়ে, আশ্বাস দিয়ে যে ১০ তারিখের পর সরকার থাকবে না, খালেদা জিয়া সমাবেশে যোগদান করবে, এসব কাল্পনিক প্রলোভন দেখিয়ে একটা বিপদের মুখে ঠেলার চেষ্টা করেছিল। গতকাল ১০ তারিখ চলে গেছে দেশবাসী দেখলো কিছুই হলো না। বিএনপির নেতা-কর্মীরা যে আশা নিয়ে এসেছিল সেখানে ছাই পড়েছে। বিএনপির নেতা-কর্মীরা বুঝতে পেরেছে যে তাদের শীর্ষ নেতারা তাদের সাথে ধোঁকাবাজি করেছে। আমি মনে করি রাজনৈতিকভাবে জনগণ থেকে, তাদের নেতা-কর্মীরা বিতর্কিত হলো।

বিএনপির সংসদ সদস্যদের পদত্যাগপত্র জমার প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, বিএনপির সংসদে অবস্থান তৃতীয়।সাড়ে তিনশ সংসদ সদস্য মধ্যে সাতজন না থাকলে সংসদের কার্যক্রমে কোনো সমস্যা নেই। প্রত্যেক মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার আছে পদত্যাগ করার। তবে তারা পদত্যাগ করে তাদের এলাকার জনগণের সঙ্গে অন্যায় করলো।

আগামী ২৪ ডিসেম্বর বিএনপির কর্মসূচি নিয়ে বলেন, সাধারণত দেখা যায়, কোনো দলের পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি থাকলে অন্যরা বিরত থাকে।আমাদের গতকাল ঢাকায় কর্মসূচি ছিল তা প্রত্যাহার করা হয়েছিল। ভালোভাবে যেন সোহরাওয়ার্দীতে করতে পারে সে জন্য ছাত্রলীগের সম্মেলন আগানোও হয়েছিল।আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অক্টোবর মাসে ঘোষণা হয়েছে, এরপর ওয়ার্কিং কমিটির মিটিংয়ে ঘোষণা হয়েছে। সবাই জানে আমাদের কাউন্সিল এরপরও ওইদিন কর্মসূচি দিয়ে প্রমাণ করলো তাদের রাজনৈতিক শিষ্টাচার নেই। তবে তাদের এই কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগের কোনো সমস্যা হবে না। বিএনপির কর্মসূচি নিয়ে আওয়ামী লীগের কোনো ভাবনা নেই, আওয়ামী লীগ এটিকে গুরুত্ব দিতে চায় না। নির্ধারিত তারিখে সুন্দর পরিবেশেই আমাদের কাউন্সিল হবে।

ঢাকানিউজ২৪/আর

 

ঢাকানিউজ২৪.কম /

রাজনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image