• ঢাকা
  • শনিবার, ২২ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৪ ফেরুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

মহান বীজয় দিবস আগামীকাল শুক্রবার,পালিত হবে জাঁকজমকপূর্ণভাবে


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৭:১৪ পিএম
রঙিন,সাজে,রজধানী
বীজয় দিবস উপলক্ষ্যে রঙিন সাজে রজধানী

মোহাম্মদ রুবেল

আগামীকাল শুক্রবার ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস্। এই দিন দীর্ঘ ২৪ বছরের নাগপাশ ছিন্ন করে জাতির ভাগ্যাকাশে দেখা দেয় এক নতুন সূর্যোদয়।সেই হিসাবে বিজয়ের ৫১ বছর পূর্তির দিন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৭১ এর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের পরই ২৫ মার্চে গণহত্যা শুরু করে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী।এরপরপরই ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা হলে গ্রেফতার করা হয় তাকে। এরই মধ্যদিয়ে ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠিত হয়।অবশেষে চলতে থাকা রক্তক্ষয়ী ৯ মাস মুক্তিযুদ্ধের মধ্যদিয়ে ৩০ লাখ শহীদ ও দুই লাখ মা-বোনের আত্মত্যাগের বিনিময়ে ১৬ ডিসেম্বর বাঙালি জাতি পরাধীনতার শেকল ভেঙে চূড়ান্ত সভাবে প্রথম স্বাধীনতার স্বাদ গ্রহণ করে।পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামে একটি স্বাধীন ভূখণ্ডের জন্মনেয়। বীরের জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ পায় বাঙালী।

মহান বীজয় দিবসের প্রেক্ষিতে প্রতিবারের ন্যায় এবারও আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের সব দেশপ্রেমিক মানুষের সঙ্গে একাত্ম ভাবগাম্ভীর ও জাঁকজমকপূর্ণভাবে উৎসবমুখর পরিবেশে মহান বিজয় দিবস উদযাপন করবে। দলটির দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। 

স্বাধীনতার চূড়ান্ত বীজয়ে সেইদন রক্তেরাঙা প্রভাত সূর্যের ছড়িয়ে পড়ে বাংলাদেশের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে সমস্বরে একটি ধ্বনি ‘জয়বাংলা’ বাংলার জয়, পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে, রক্ত লাল, রক্ত লাল, রক্ত লাল। যুগ যুগ ধরে শোষিত বঞ্চিত বাঙালি চোখে আনন্দ অশ্রু আর  কঠিন ইস্পাতের দৃঢ়তায় এগিয়ে যায় বাঙালী জাতি। বিন্দু বিন্দু স্বপ্নের অবশেষে মিলিত হয় জীবনের মোহনায়। বিশ্ব কবির সোনার বাংলা, নজরুলের বাংলাদেশ, জীবনানন্দের রূপসী বাংলা, রূপের তাহার নেইকো শেষ, বাংলাদেশ আমার বাংলাদেশ। বাঙালি যেন খুঁজে পায় তার আপন সত্তাকে।

কর্মসূচির মধ্য রয়েছে-

সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বঙ্গবন্ধু ভবন ও দেশব্যাপী সংগঠনের কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। সকাল সাড়ে ৬টায় সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ। সকাল সাড়ে ৭টায় ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে রক্ষিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন।

বেলা ১১টায় টুঙ্গিপাড়ায় চিরনিদ্রায় শায়িত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, জিয়ারত, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল। সাড়ে ১১টায় গোপালগঞ্জের ঐতিহাসিক টুঙ্গিপাড়ায় কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ, শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য অ্যাডভোকেট এবিএম রিয়াজুল কবীর কাওছার, অধ্যাপক মেরিনা জাহান, পারভীন জামান কল্পনা, আনোয়ার হোসেন, আনিসুর রহমান, সাহাবুদ্দিন ফরাজী, ইকবাল হোসেন অপু এমপি, গোলাম কবীর রাব্বানী চিনু, মারুফা আক্তার পপি, আজিজুস সামাদ আজাদ ডন এবং সৈয়দ আবদুল আউয়াল শামীম অংশগ্রহণ করবেন।

১৭ ডিসেম্বর (শনিবার) দুপুর আড়াইটা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান থেকে ধানমন্ডি ৩২ ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু ভবন পর্যন্ত বিজয় শোভাযাত্রা করবে। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সারাদেশে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর উদ্যোগে বিজয় শোভাযাত্রা আয়োজনের নিদের্শনা দেওয়া হয়েছে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এমআর

জাতীয় বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image