• ঢাকা
  • রবিবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৯ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

সুপার পামঅয়েলের চড়া দাম


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ০৭ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১০:৪৫ এএম
সুপার পামঅয়েলের চড়া দাম
খুচরা দোকানে সয়াবিন তেল নেই

ডেস্ক রিপোর্টার: সুপার পাম তেল খুচরা বাজারে সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। কারওয়ান বাজারে খুচরা দোকানে সয়াবিন তেল নেই এখনও।

শনিবার সকালে বাজার ঘুরে দেখা যায়, তেলের মান ও কোম্পানি ভেদে সানফ্লাওয়ার তেল ২৮০ থেকে ৩৮৬ টাকা লিটার, সরিষার তেল ২৮০ থেকে ৪০০ টাকা লিটার ও রাইস ব্র্যান তেল ১৯০ টাকা লিটার দরে বিক্রি হচ্ছে। ১৭২ টাকা নুতন দাম নির্ধারণ করা হলেও লিটারে ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে সুপার পাম তেল। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে ভোজ্যতেল পরিশোধনকারী ও উৎপাদনকারীদের সাথে বাণিজ্য মন্ত্রনালয়ের বৈঠকে এই দাম নির্ধারণ করা হয়।

শুক্রবার সকাল ১০টায় রাজধানীর নয়াবাজারে গিয়ে কোনো দোকানে পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেল পাওয়া যায়নি। কয়েকটি দোকানে এক লিটারের বোতল পাওয়া গেলেও দাম ২০০-২১০ টাকা। খোলা সয়াবিন ১৯০-২০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। তবে বৃহস্পতিবার বোতলজাত প্রতিলিটারের দাম ১৯৮ ও খোলা সয়াবিনের দাম ১৮০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা শুক্রবার থেকে কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। এদিকে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাজারে তেল কেনা-বেচা নিয়ে ক্রেতা বিক্রেতাদের মধ্যে হট্টগোল শুরু হয়।

ক্রেতাদের তোপের মুখে পড়ে কোনো কোনো বিক্রেতা অল্প কিছু পাঁচ লিটারের বোতল বের করেন। তবে দাম চাওয়া হয় ১০৫০ টাকা, যা বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী ৯৮৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। একই বাজারে নিত্যপণ্য কিনতে আসা হালিমা বেগম বলেন-বাজারে ভোজ্যতেল নেই, তা বলা যাবে না।

বিক্রেতারা বাড়তি দাম নিতে দোকানের পেছনে মজুত করে কৃত্রিম সংকট তৈরি করেছেন। বাড়তি টাকা গুনলেই এক লিটারের বোতল পাওয়া যাচ্ছে। এমনিতেই পণ্যটির দাম হু-হু করে বেড়ে আকাশচুম্বী হয়েছে। তার মধ্যে বিক্রেতারা সংকট তৈরি করে রাখায় আমাদের মতো সাধারণ ভোক্তারা হিমশিম খাচ্ছে। তাই সরকারের পক্ষ থেকে এই বিষয়ে তদারকি জোরদার করতে হবে।

নয়াবাজারের মুদি বিক্রেতা মো. তুহিন বলেন, দাম বাড়ানোর পরও মিল থেকে তেল সরবরাহ করা হচ্ছে না। কোম্পানির গাড়ি আজও (শুক্রবার) আসেনি। যে কারণে বাজারে তেলের সংকট রয়েছে। তবে কিছু বিক্রেতা আগের তেল বিক্রি করছে। সরবরাহ স্বাভাবিক হলে সব ঠিক হয়ে যাবে।

জানতে চাইলে কনজুমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, বাজারে তেল কিনতে এসে যাতে ক্রেতার ভোগান্তি না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। নির্ধারিত দামে যাতে তেল কিনতে পারে সেজন্য তদারকি জোরদার করতে হবে। পাশাপাশি যারা তেল নিয়ে কারসাজি করছে তাদের চিহ্নিত হরে আইনের আওতায় আনতে হবে।

জানতে চাইলে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, মিল পর্যায় থেকে সরবরাহ স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। তবে কয়েকদিনের বাজার তদারকি করতে গিয়ে দেখেছি-খুচরা বিক্রেতারা তেল অবৈধভাবে মজুত করেছেন। তারা দোকানে দৃশ্যমান জায়গায় তেল রাখছেন না। এতদিন বেশি দামে বিক্রির আশায় দোকানের পেছনে বা বস্তায় ভরে তেল মজুত করেছেন। অভিযানকালে আমরা তা হাতেনাতে ধরে শাস্তির আওতায় এনেছি। তবে এবার যেহেতু নতুনভাবে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে, সেক্ষেত্রে এই দরে তেল বিক্রি হচ্ছে কিনা তা আমরা তদারকি করছি। অনিয়ম পেলেই সর্বোচ্চ শাস্তির আওতায় আনা হবে।

দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর কাওরান বাজার ঘুরে ভোজ্যতেলের সরবরাহ কম দেখা গেছে। বিক্রেতাদের কাছে পাঁচ লিটারের বোতল নেই। যে দু-একটি দোকানে ছিল সেখানে এক ও দুই লিটারের বোতল দেখা গেছে। পাশাপাশি খোলা সয়াবিনের সরবরাহও কম লক্ষ করা গেছে। তবে খোলা ও বোতলজাত তেল বেঁধে দেওয়া দরে বিক্রি হয়নি। কাওরান বাজারে প্রতিলিটার বোতলজাত সয়াবিন বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকা। আর খোলা সয়াবিন প্রতিলিটার বিক্রি হয়েছে ১৯০ টাকা।

রাজধানীর মৌলভীবাজারের পাইকারি তেল বিক্রেতা মো. হাকিম বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারের জন্য কয়েক মাস ধরে দেশে তেলের বাজারে এক ধরনের অস্থিরতা চলছে। তবে এই দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য সরকার সয়াবিন ও পাম অয়েল আমদানির ওপর ১০ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করেছে। পাশাপাশি উৎপাদন পর্যায়েও ১৫ শতাংশ ভ্যাট মওকুফ করেছে। সঙ্গে বিপণন পর্যায়ে ৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করা হয়েছে। এতে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বাড়তি থাকলেও এই সুযোগ পাওয়ার পরও দেশে তেলের দাম বাড়ার কথা নয়।

সরকারের এতসব সুযোগের পর তেল কিনতে ক্রেতার স্বস্তিতে থাকার কথা। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে ক্রেতাই সবচেয়ে বেশি অস্বস্তিতে আছেন। আর সুবিধা যা নেওয়ার আমদানিকারক ও উৎপাদকরা পেয়েছেন। তারা এই তিন পর্যায়ে ৩০ শতাংশ ভ্যাট না দেওয়ায় অল্প দামে তেল আমদানি ও বাজারজাত করতে পারছেন। অথচ আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বৃদ্ধির অজুহাতে দেশের বাজারে দাম বাড়িয়েই চলেছেন।

তিনি বলেন, দাম যদি বাড়ে তবে সেটা হবে বাড়তি দামে কেনা তেল দেশে আসার পর। কিন্তু এখনই বাড়ছে কেন। তিনি বলেন, বাড়তি দামে কেনা তেল দেশে আসতে আরও তিন-চার মাস লাগবে। আর দাম বাড়ানোর পরও মিল থেকে তেল সরবরাহ বাড়ানো হলো না কেন। তাছাড়া সরকারের পক্ষ থেকে এলসি কমিশন ও মার্জিন প্রত্যাহার করা হয়। এরপরও বাজারে তেলের দাম কমেনি বরং বেড়েই চলছে।

তবে মিল মালিক ও আমদানিকারকরা জানান, বিশ্ববাজারে প্রতিটন সয়াবিন তেলের দাম ১২০০ থেকে বেড়ে ১৮০০ ডলারে উঠেছে। এখন কিছুটা কমলেও ১৬০০ ডলারে বিক্রি হচ্ছে। এই প্রেক্ষাপটের সঙ্গে জাহাজ ভাড়া ও অন্যান্য খরচ বেড়েছে। ফলে সবকিছু বিবেচনা করে দেশের বাজারে তেলের দাম বাড়াতে হচ্ছে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

অর্থনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image