• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২১ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৩ ফেরুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

নবীনগরে মাজারের দানবাক্স ভেঙ্গে লুটপাটের অভিযোগ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:০৩ পিএম
মাজারের দানবাক্স ভেঙ্গে লুটপাটের অভিযোগ
নবীনগর

মনিরুজ্জামান মনির, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার কাইতলা গ্রামে আধ্যাত্মিক পীর ইম্ফু শাহ’র মাজারে একটি প্রভাবশালী মহল দানবাক্স ভেঙ্গে লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় পীর ইম্ফু শাহা’র নাতী আমান উদ্দিন বাদী হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া দ্রুত  বিচার আদালতে ১৭ জনকে আসামী করে দ্রুত  বিচার আইনের ৪/৫ ধারায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

আদালত বিষয়টি তদন্তের জন্য নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে দায়িত্ব প্রদান করেছেন। অভিযুক্তরা হলেন, উপজেলার কাইতলা গ্রামের কাজী ফেরদৌস, ছৈয়দ গোলাম কিবরিয়া, মোঃ ফরিদ মিয়া , রাসেল, হৃদয়, আলী আজগর মাষ্টার, বাবু, সাহাব উদ্দিন, রবিউল, আজাদ সরকার, ফারুক মিয়া, মোস্তাক মিয়া , জীবন মিয়া, রুহুল আমীন, বাচ্চু মিয়া ও জাহাঙ্গীর।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, ইম্ফু শাহা একজন আধ্যাত্মিক পীর।  দীর্ঘ ২৮ বছর যাবৎ তার বংশধরেরা গ্রামবাসীসহ সকলকে সাথে নিয়ে বাৎসরিক ওরশ মাহফিল করে থাকে। 

মাহফিলকে ঘিরে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে তার ভক্তবৃন্দরা অর্থ, স্বর্ণ ও গরু ছাগল দান করে থাকে। অর্জিত দানগুলো সংগ্রহ করে একটি লোহার সিন্দুক ও দুটি পাক্কা দানবাক্সে তালাবদ্ধ করে রাখা ছিল। তবে মাজারের সংগৃহিত অর্থের উপর লুলুপ দৃষ্টি পড়ে ওই প্রভাবশালী মহলটির। তারা এলাকার রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করে রাখে। 

এরই ধারাবাহিকতায় গত ৯ ডিসেম্বর শুক্রবার অভিযুক্তরা বিপুল সংখ্যক লোকজন নিয়ে অস্ত্র সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মাজারের আশপাশে থাকা বাড়ীর লোকজনদের ভয়ভীতি দেখিয়ে ও প্রানে মেরে ফেলার হুমকী দিয়ে ফেরদৌস ও গোলাম কিবরিয়ার নির্দেশে রাসেল, হৃদয়, বাবু, শাহাবুদ্দিন তালা কাটার মেশিন দিয়ে সিন্দুকের তালা কেটে প্রায় দশ লক্ষ টাকা ও বিশ ভরি ওজনের স্বর্নালংকার লুট করে নিয়ে যায়। যার মূল্য প্রায় ১৫ লাখ টাকা। পরে ইম্ফু শাহার নাতী আমান উদ্দিন ও বাড়ির লোকজনদের শোর চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে আসে।

বিষয়টি জানতে পেরে কাইতলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী স্থানীয় মেম্বারসহ শিবপুর পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে বিষয়টি সম্পর্কে অবগত হয়।  

ইম্ফু শাহার বংশধর ও ভক্তবৃন্দরা জানান, আধ্যাত্মিক একজন পীরের মাজারে এ ধরণের হামলার ঘটনা দুঃখজনক। তারা দ্রুত লুট হওয়া অর্থ ও স্বর্ণালংকার উদ্ধারের পাশাপাশি দায়ীদের বিচারের আওতায় আনতে জোড়ালো দাবী জানান।

২০ নং কাইতলা দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শওকত আলী জানান, আল্লাহর অলীর একজন মাজারের মধ্যে এ ধরনের ডাকাতির ঘটনা ঘটিয়েছে তা ন্যাকারজনক। আমরা এই ঘটনার বিচার দাবী করছি।

এ বিষয়ে নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইফু উদ্দিন আনোয়ার জানান, আদালতের নির্দেশনা এখনো পাইনি। নির্দেশনা পাওয়া মাত্র দ্রুত  ঘটনাটির তদন্ত করা হবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

অপরাধ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image