• ঢাকা
  • বুধবার, ২৬ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৮ ফেরুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

খাগড়াছড়ি আদালতে দায়েরকৃত মামলা মিথ্যা প্রমানিত হওয়ায় বাদীর কারাদন্ড


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০১ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৪৭ এএম
দায়েরকৃত মামলা মিথ্যা প্রমানিত হওয়ায়
বাদীর কারাদন্ড

রিপন সরকার, খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়াছড়ি  সিনিয়র চীফ জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট ২য় আদালতের বিচারাধীন সি.আর মামলা নম্বর-১২১/২০২০ আদালতে মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় মামলার আসামীদের বিরুদ্ধে আনীত পেনাল কোড, ১৮৬০ এর ১৪৩/৪২৭/৩২৩/৫০৬ ধারার অভিযোগের দায় থেকে সকল আসামিকে বেকসুর খালাস ও মামলার বাদী  কহিনুর বেগম(৫০) কে,  তিন দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। 

সোমবার (৩১ অক্টোবর ২০২২ইং) বিকালের দিকে খাগড়াছড়ির চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট  নাজমুল হোসেন চৌধুরীর আদালত এ সাজা প্রদান করেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের দিকে দীঘিনালা উপজেলার মেরুং ইউনিয়নের  বেতছড়ি এলাকার বাসিন্দা কহিনুর বেগম মো. রেজাউল মাষ্টারসহ ৭ জনকে আসামি করে খাগড়াছড়ির বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

একাধিক তদন্ত ও দীর্ঘ শুনানী শেষে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হোসেন চৌধুরী তাঁর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট ২য় আদালতে বিচারাধীন মামলাটির প্রকাশ্য আদালতে রায় প্রদান করেন।

মামলার বাদি কহিনুর বেগম(৫০), বেতছড়ি,  মেরুং ইউপির   দীঘিনালা উপজেলার   সামছুল হক,এর স্ত্রী।   মামলার আসামিরা হলেন- ১. মোঃ রেজাউল মাষ্টার(৪৫), আনারুল ইসলাম(৩০) নুর মোহাম্মদ(৪০), মোঃ হরমুজ আলী(৪৫)  মোঃ আলম(৩৫),  আমিন আলী(২২),   ইব্রাহীম,  সর্ব সাং- বেতছড়ি,  মেরুং ইউপি দীঘিনালা  উপজেলা- বাসিন্দা। 
দায়েরকৃত মামলাটি মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় মামলার আসামীদের বিরুদ্ধে আনীত পেনাল কোড, ১৮৬০ এর ১৪৩/৪২৭/৩২৩/৫০৬ ধারার অভিযোগের দায় থেকে সকল আসামিকে বেকসুর খালাস প্রদান করেন। একই সাথে মামলার বাদী কহিনুর বেগমকে প্রত্যেক আসামীকে এক হাজার টাকা করে সাত হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ এবং ফৌজদারি কার্যবিধি ২৫০(৫) ধারার বিধান মতে তিন দিনের বিনাশ্রম কারান্ড প্রদান করেন।

ক্ষতিপূরণের অর্থ অনাদায়ে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে মামলার বাদি কহিনুর বেগমের প্রতি সাজা পরোয়ানা ইস্যুর আদেশ দেন।

রায় ঘোষণাকালে বাদি কহিনুর বেগম এবং সাত জন আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া বাদীপক্ষের আইনজীবি এডভোকেট কামাল উদ্দিন মজুমদার এবং আসামিপক্ষের আইনজীবি এডভোকেট শেখ মো. জামাল হোসেন সিদ্দিকী আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

এমন রায় খাগড়াছড়িতে  প্রথম উল্লেখ করে আসামিপক্ষের আইনজীবি এডভোকেট শেখ মো. জামাল হোসেন সিদ্দিকী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ রায় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। ভবিষ্যতে কেউ কারো বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করার সাহস করবেনা বলে জানান তিনি।
রিপন সরকার স্টাফ  খাগড়াছড়ি।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

সারাদেশ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image