• ঢাকা
  • রবিবার, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৭ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

জঙ্গি ছিনতাইয়ের পরিকল্পনায় মেজর জিয়া


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ২১ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১২:৩০ পিএম
জঙ্গি ছিনতাইয়ের পরিকল্পনায়
মেজর সৈয়দ জিয়াউল হক

নিউজ ডেস্ক : আদালত প্রাঙ্গণ থেকে রোববার বেলা ১২ টার দিকে দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের চোখে পিপার স্প্রে দিয়ে দুই জঙ্গি পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। তারা হলেন দীপন হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামি মইনুল হাসান শামীম ওরফে সামির ওরফে ইমরান এবং আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব ওরফে সাজিদ ওরফে শাহাব।

পালিয়ে যাওয়া জঙ্গিদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু হয়েছে। সীমান্তে রেড এলার্ট জারি করা হয়েছে।

জঙ্গিরা পালিয়ে যাওয়ার পর ঘটনাস্থল ও আশপাশ থেকে একটি মোটরসাইকেল, একটি লোহার কাটার, ৬৯ টি বিভিন্ন সাইজের নাটবল্টু, নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প, হোন্ডার সার্ভিস ও ওয়ারেন্টি বুকলেট উদ্ধার হয়েছে।

সিটিটিসির কর্মকর্তারা বলছেন, গ্রেপ্তার জঙ্গিরা কারাগারে ছিল। তাদের কাছে পলাতক জিয়ার পরিকল্পনা ও নির্দেশনা কিভাবে পৌঁছেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আদালতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, মোহাম্মদপুর থানায় করা সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলাটিতে রোববার অভিযোগ গঠন হয়। এ জন্য জামিনে থাকা দুই আসামি হাজিরা দেন আদালতে। আর কাশিমপুর কারাগার থেকে প্রিজন ভ্যানে ১২ আসামিকে আনা হয়।

ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান শুনানি শেষে ২০ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন। এরপর আসামিদের আদালতের হাজতখানায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।

ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত প্রাঙ্গণ থেকে পুলিশের উপর আক্রমণ করে দুই আসামিকে ছিনিয়ে নেয় জঙ্গিরা।

সিটিটিসির এক কর্মকর্তা বলেন, কোর্টের শুনানি শেষে প্রথমে চারজনকে নিচে নামিয়ে আনা হয়। দুটি হাতকড়া দিয়ে দুই-দুইজনকে আটকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। বাকি আসামিরা তখন ওপরে ছিলেন।

তিনি বলেন, চারজনের মধ্যে মইনুল হাসান ও আবু সিদ্দিককে জঙ্গিরা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। তবে মো. আরাফাত ও মো. সবুরকে নিতে পারেনি। জঙ্গিরা পিপার স্প্রে ব্যবহার করে। এতে একজন সিকিউরিটি গার্ড, একজন পুলিশ সদস্যসহ কয়েকজন সাধারণ মানুষ আক্রন্ত হন।

জঙ্গি পালানোর এ ঘটনায় আলোচনায় আসা মেজর সৈয়দ জিয়াউল হক একটি ব্যর্থ অভ্যুত্থানের চেষ্টায় ২০১২ সালে সেনাবাহিনী থেকে চাকরিচ্যুত হন। এই অভ্যুত্থান চেষ্টায় জড়িত থাকায় দুই সেনা কর্মকর্তা গ্রেপ্তার হলেও পালিয়ে যান জিয়া। এরপর তিনি যুক্ত হন জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সঙ্গে, পরে যেটির নামকরণ করা হয় আনসার আল ইসলাম।

এরপর মেজর (বহিষ্কৃত) জিয়ার পরিকল্পনা ও প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় ঘটে একের পর এক হত্যাকাণ্ড। আনসার আল ইসলামের বেশিরভাগ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হলেও এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে তিনি। এরইমধ্যে কয়েকটি মামলায় তার ফাঁসির আদেশ হয়েছে। সর্বশেষ জঙ্গি ছিনিয়ে নেয়ার এ ঘটনাতেও তার নাম উঠে এসেছে আলোচনায়।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

অপরাধ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image