• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৭ অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

হাতীবান্ধায় মাদক ধরিয়ে দেয়া সন্দেহে যুবককে মারধর ও ছিনতাই


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ১৪ আগষ্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৩:০৫ পিএম
মাদক ধরিয়ে দেয়া সন্দেহে
যুবককে মারধর

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় মাদকদ্রব্য ধরিয়ে দেয়া সন্দেহে তপন কুমার নামে এক যুকবকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে নজরুল ইসলাম ও তার পাঁচ ছেলের বিরুদ্ধে। গত ১১ আগষ্ট ওই উপজেলার সিঙ্গিমারী ইউনিয়নের বিজিবি ক্যাম্পের পাশে পথরোধ করে তপন কুমারকে মারধর করা হয়।

এ ঘটনায় মারধরের শিকার তপন কুমার গত শনিবার (১৩ আগষ্ট) সন্ধ্যায় হাতীবান্ধা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযুক্ত নজরুল ইসলাম ওই এলাকার মৃত এছাহাক আলীর পূত্র ও নির্যাতনের শিকার তপন কুমার একই এলাকার সুভাষ চন্দ্রের পূত্র বলে জানা গেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ৭ আগষ্ট রাতে ইজিবাইকসহ একটি মাদকের চালান আটক করে হাতীবান্ধা থানা পুলিশ। ওই মাদকের চালান ধরতে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করেছে তপন কুমার এমন সন্দেহে নজরুল ইসলাম ও তার ছেলেরা তপন কুমারের সাথে তর্কে জড়ায়। 

এ ঘটনার জের ধরে গত ১১ আগষ্ট রাতে নজরুল ইসলাম ও তার পাঁচ ছেলে সাবু মিয়া, শাহিন আলম, ওমর ফারুক, মির্জার ও মুরাদ বাড়ির পার্শ্বের রাস্তায় তপন কুমারকে পথরোধ করে মারধর করে। এ সময় মাদকের চালান ধরিয়ে দেয়ায় ক্ষতিপুরন হিসেবে তপন কুমারের কাছে থাকা জমি বন্দকের দেড় লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নেয় দাবি তপন কুমারের।

তপন কুমার জানান, নজরুল ইসলাম ও তার ছেলেরা চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মাদক মামলা রয়েছে। গত ৭ আগষ্ট রাতে তাদের একটি মাদকের চালান আটক করে পুলিশ। সেই চালান আমি ধরিয়ে দিয়েছি সন্দেহে তারা আমাকে মারধর করেছে। এবং সেই মাদকের ক্ষতিপুরন হিসেবে আমার কাছে জমি বন্দকের থাকা দেড় লক্ষ টাকাও ছিনিয়ে নিয়েছে।

এ ঘটনায় নজরুল ইসলাম বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পুর্ন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। আমি কাউকে মারধর করিনি।

হাতীবান্ধা থানার অফিসার ইনচার্জ শাহা আলম জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / নুরনবী সরকার/কেএন

অপরাধ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image