• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২১ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৩ ফেরুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ রাজপথে থাকবে : ওবায়দুল কাদের


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০১:৪৬ পিএম
বিএনপি, এখন, দিশেহারা
গণঅভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষে এক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন আওয়ামীর লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদে

মোহাম্মাদ রুবেল

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি এখন দিশেহারা পথ হারা পথিকের মতো। খেলা এখনও শুরু হয়নি, সবেমাত্র সূচনা। যখন শুরু হবে কোথায় যাবে গণজোয়ার। 

বলেছেন, আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজপথে সন্ত্রাস আর নৈরাজ্য করলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশে থেকে কঠোর জবাব দিতে প্রস্তুত দল।

বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দলের মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ২৪ জানুয়ারি গণঅভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষে এক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময়  সেতুমন্ত্রী বলেন, কোনো ব্যক্তি বাঁশিতে ফুঁ দিলেন আর স্বাধীনতা এসেছে, তা কিন্তু নয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে লাখো মানুষের রক্তের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জন করতে হয়েছে। স্বাধীনতা একদিনে আসেনি। হাজার বছরের লড়াই সংগ্রামের মধ্য দিয়ে এসেছে স্বাধীনতা। ১৭ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু ৬ দফার মধ্যে দিয়ে আন্দোলন শুরু হয়। ২৪ জানুয়ারি গণঅভ্যুত্থান হয়েছিল। সত্যিকার অর্থে ৬৯ সালে ২৪ জানুয়ারি। বাংলাদেশের কোনো কোনো রাজনৈতিক দল গণঅভ্যুত্থানের কথা বলে। ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন করেন না। বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে না আসলে স্বাধীনতা পূর্ণতা লাভ করতো না। মিডিয়া পাল্টাপাল্টি সমাবেশ বলেছে। আজকে গণ অভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষে দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সমাবেশ। উত্তর আওয়ামী লীগ করছে শীতবস্ত্র বিতরন। এখানে পাল্টাপাল্টি সমাবেশ হবে কেন।তিনি বলেন, বিএনপির লাল কার্ড ও দশ দফা দাবি ও ৫৪ দল সবকিছুই ভুয়া। দলটি ভুয়া কর্মসূচি নিয়ে মাঠে আছে। বিএনপি গণঅভ্যুত্থানের কথা বলছে কিন্তু  তা ঘটাতে হলে মানুষ লাগে অথচ  বিএনপির সাথে কোনো জনসম্পৃক্ততা নেই।

তিনি বলেন, বিএনপির সব কিছু ভুয়া। ওরা ভুয়া  নিয়ে আছে। লালকার্ড ভুয়া। ৫৪ দল  নেতাদের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি সমাবেশ করলো না, করলো গরুর হাটে। আন্দোলন, গণ অভ্যুত্থান, জোট, সরকারের পতন সব ভুয়া। বাকশাল একদল নয়। বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ। বাকশালের সদস্য হয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। দলের প্রতিষ্ঠাতা বাকশালে যোগ দিয়েছিলো দরখাস্ত করে প্রমাণ আছে। কত যে জ্বালা, পদ্মাসেতু, কর্নফুলী টানেল, এক্সপ্রেসওয়ের জ্বালা। 

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিটের কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এক সঙ্গে বসেন। থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিটের কমিটিগুলো করেন। কমিটি না করলে হবে না। গণসংযোগ করতে হবে। সামনে কঠিন সময় অতিক্রম করতে হবে। 

তিনি আরও বলেন, ২০০৮ সালের বিএনপির যেমন লজ্জাজনকভাবে পরাজিত হয়েছিল আগামী নির্বাচনেও বিএনপির লজ্জাজনক পরাজয় হবে। যারা এখনও বলে মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ মারা গেছে কিনা সন্দেহ আছে, যারা এখনও বলে আমাদের স্বাধীনতা নাকি বাইচান্সে হয়েছে, এরা বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিশ্বাস করে না। এরা পাকিস্তানে বিশ্বাসী, আমি তাদেরকে বলব, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস আগে জানুন। মুক্তিযুদ্ধ বাইচান্সে হয়নি, স্বাধীনতা বাইচান্সে আসেনি।

নির্বাচনে ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসতে পারবে না বলেই বিএনপি ষড়যন্ত্রের পথে হাটছে বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম। সকাল থেকেই ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে সমাবেশে যোগ দেন হাজারও নেতাকর্মী। যোগ দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ দলের কেন্দ্রীয় ও নীতিনির্ধারকরা। সমাবেশে যোগ দিতে মহানগরের বিভিন্ন থানা ওয়ার্ড ইউনিট থেকে মিছিল নিয়ে জড়ো হন নেতাকর্মীরা।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমদ মন্নাফীর সভাপতিত্বে এতে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম, এ্যডভোকেট কামরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেন, কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক উম্মে কুলসুম, দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, সহ-সভাপতি দীলিপ রায় প্রমুখ। 

আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, বিএনপি বাইচান্সে রাজনীতি করে। বিএনপি বলে গণ অভ্যুত্থান করবে, গণ অভ্যুত্থান করলে জনগণ লাগে। তারা চুপসে গেছে। আমরা তো মাঠে নামিনি। এখন তো মহড়া দিচ্ছি। মাঠে নামলে খুঁজে পাওয়া যাবে না। আপনারা নির্বাচনে আসবেন, তবে নাকে খত দিয়ে আসবেন। বাড়াবাড়ি করবেন না পরিণতি ভালো হবে না।   

সমাবেশে নেতারা  আরও বলেন, বিএনপি যুগপৎ আন্দোলনের নামে সহিংসতা রুখতে মাঠে থাকবে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এম আর

রাজনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image