• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১২ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

মেঘনার তীরে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ১৯ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৫৮ এএম
মেঘনার তীরে
দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়

নাজমুল হোসেন, নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুরে তেমন কোনও বিনোদন কেন্দ্র নেই। দূরে কোথাও বেড়াতে গেলে প্রচুর ব্যয়বহুল। তাই পরিবার নিয়ে মেঘনা নদীর পাড়ে ঘুরতে আসে অনেকেই।

গত ৫ বছর আগেও মানুষ এখানে আসতো না। মাছ কিনতে আসতেন কিছু মানুষ। এখন মানুষকে জায়গা দেওয়া যায় না।

এসব কথা বলেন মেঘনা নদীর তীরে আলতাফ মাস্টার ঘাটে বেড়াতে আসা লোক জনেরা।

আজ মঙ্গলবার (১৮ জুন) আলতাফ মাস্টার ঘাটে গিয়ে দেখা মিলে, অসংখ্য মানুষ আনন্দে ঘুরছেন। চতুর্দিকে দর্শনার্থীদের উপচে পড়ার মতো ভিড়।

ঘাট এলাকা যেন মিনি কক্সবাজারের মতো। লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুরের জিনের মসজিদ ও দালালবাজার খোয়াসাগর দিঘিরপাড় ও জমিদার বাড়িতে মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা বলেন, মাছ ঘাটে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় থাকে। তবে প্রচণ্ড গরমের মধ্যে এবারও মানুষ বেশি। মেঘনার পাড়ে ১০টি চাইনিজ রেস্টুরেন্ট আছে। মালিকরা অতিরিক্ত দাম নিচ্ছে মানুষের কাছ থেকে।

মাস্টার ঘাটের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন হাওলাদার বলেন, এই মেঘনার পাড় এক সময় অবহেলিত ছিল। জেলেরা ছাড়া অন্য মানুষ তেমন আসতো না। এখন এঘাটকে কেন্দ্র করে পরিবেশ সুন্দর হয়ে উঠেছে। মানুষও আসতে শুরু করেছে। রায়পুর একটি প্রথম শ্রেণির পৌরসভা হলেও শহরে বিনোদনকেন্দ্র না থাকায় স্থানীয় ব্যবসায়ীরা কয়েকটি চাইনিজ রেস্টুরেন্ট দিয়েছেন। বলা যায়, ঈদ সহ বিশেষ দিনকে কেন্দ্র করে পর্যটন স্পট সাজানো হয়েছে। মেঘনার পাড়ে বিনোদনপ্রেমী মানুষগুলো ঘুরতে এসে খুব আনন্দ উপভোগ করে থাকেন।

রায়পুর থানার ওসি ইয়াছিন ফারুক মজুমদার বলেন, রায়পুরে কোন বিনোদনকেন্দ্র না থাকায় মানুষ মেঘনার তীরে আনন্দ উপভোগ করছে। শোনা যায় যে, উচ্ছৃঙ্খল যু্বকরা পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করে। যাতে করে কোনও ঝামেলা যেন না হয় দুটি স্পটে ফাঁড়ি পুলিশ দেওয়া হয়েছে।

রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইমরান খান বলেন, রায়পুরে পাঁচ লাখ জনসংখ্যার মধ্যে প্রায় মানুষ খুবই বিনোদনপ্রেমী।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image