• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৮ ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

ডাঃ মাশা’র লেজার দিয়ে ৩৩% দৃষ্টিশক্তি স্থায়ীভাবে বিনষ্ট


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:৫৬ পিএম
ডাঃ মাশা’র লেজার ৩৩% দৃষ্টিশক্তি বিনষ্ট
দীর্ঘ  তিন কিলোমিটার ব্যাপী বিশাল মানববন্ধন সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল

মো. নজরুল ইসলাম, ময়মনসিংহ: ভূক্তভোগী তরুণ নারী চিকিৎসক ডাঃ মাহজাবিন হক মাশা চোখের দৃষ্টি নষ্ট করে দেয়া অর্থলিপসু লেজার বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডাঃ দীপক কুমার নাগ এর বিচার দাবীতে বুধবার দুপুরে ময়মনসিংহ নগরীতে সবচেয়ে দীর্ঘ  তিন কিলোমিটার ব্যাপী বিশাল মানববন্ধন সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে সচেতন ময়মনসিংহবাসী।

বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিবাদ বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে অংশ নেন নগরীর টাউন হলের মোড় থেকে কাচারির মোড় কালিবাড়ি হয়ে পাটগ্রদাম ব্রীজ মোড় পর্যন্ত বিশাল মানববন্ধনে। এতে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সাংস্কৃতিক পেশাজীবী, ব্যবসায়ী, শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা নারী-পুরুষ ।

বুধবার দুপুর ১২টা থেকে ০১টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী মানবন্ধন চলাকালে বক্তারা বলেন, একজন উদীয়মান ও সম্ভাবনাময় তরুণ নারী চিকিৎসক রোগীকে মনগড়া অপচিকিৎসা দিয়ে চোখের ৩৩ শতাংশ দৃষ্টিহীন ও চোখের মারাত্মক ক্ষতির ন্যায়বিচার না হলে দেশের আরো বহু লোক  তার ধারা  আরো ক্ষতির সন্মুখীন হতে
পারেন। অপচিকিৎক ডা. দীপক কুমার নাগ দেশের ভালো চিকিৎসকগণের মান-মর্যাদাকে বিনষ্ট করেছেন। চিকিৎসক সমাজের কলঙ্ক ডাঃ দীপক নাগের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে দৃষ্টান্তমূলক শান্তি নিশ্চিত করার মাধ্যমে চিকিৎসক সমাজের সুনাম অক্ষুণœ রাখার পথ প্রশস্ত করার জন্য আইন ও বিচার সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর দাবী জানান।

এফবিসিসিআই সহ-সভাপতি, ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও ময়মনসিংহ চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মোঃ আমিনুল হক শামীম
(সিআইপি) এর একমাত্র কন্যা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি) পরিচালনা পর্ষদের পরিচালক ডাঃ মাহজাবিন হক মাশা। তিনি ঢাকাস্থ দীন মোহাম্মদ চক্ষু হাসপাতালের অর্থলিপসু রেটিনা বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. দীপক কুমার নাগ শতভাগ গ্যারান্টি ও ঝুঁকিমুক্ত চিকিৎসার প্রতিশ্রæতি দেয়ার পর নিয়মবহির্ভূত ও তার মনগড়া পদ্ধতিতে দু'চোখে একসাথে লেজার অপারেশনের দিয়ে নারী চিকিৎসক রোগী ডাঃ মাশা’র ৩৩% দৃষ্টি শক্তি স্থায়ীভাবে নষ্ট করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন স্বজনরা।

ময়মনসিংহ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সিনিয়র সহ-সভাপতি শংকর সাহার পরিচালনায় মানবন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বশিপ) জেলা শাখার সভাপতি ও  নাসিরাবাদ কলেজের অধ্যক্ষ আহমদ শফিক, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ারুল হক রিপন, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আবু সাঈদ দীন ইসলাম ফখরুল, স্বাশিপ নাসিরাবাদ কলেজ শাখার সভাপতি অধ্যাপক মোঃ জালাল উদ্দিন, স্বাশিপ বিভাগীয় শাখার মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নাসিরাবাদ কলেজের অধ্যাপক তাছলিমা বেগম, হুমায়ুন কবির হিমেল, উইমেন চেম্বার নেত্রী সৈয়দা সেলিমা আজাদ ও আইনুন নাহার, জেলা মোটর মালিক সমিতির মহাসচিব মাহবুবুর রহমান ও সম্পাদক সোমনাথ সাহাসহ প্রমূখ।

চিকিৎসা প্রসঙ্গে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু’র ভাতিজী ডাঃ মাহজাবিন হক মাশা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘চোখের সমস্যা অনুভব করায়
গত ১ জুন তিনি রাজধানীর দীন মোহাম্মদ চক্ষু হাসপাতালে দেশের রেটিনা বিশেষজ্ঞ দীপক কুমার নাগের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। দীপক কুমার নাগ তার চোখ পরীক্ষা করে দুই চোখেই দ্রæত লেজার অপারেশন করতে বলেন। দীপক কুমার নাগের কথায় অনেকটা ভয় পেয়েই ডা. মাশা লেজারে রাজি হন।

ভূক্তভোগী ডাঃ আরো বলেন, চিকিৎসার শুরুতে দীপক কুমার নাগ প্রথমে তার ডান চোখে ৪৫ মিনিট সময় ধরে লেজার প্রয়োগ করেন। লেজার প্রয়োগের প্রথম ২০
মিনিটেই মেহজাবিন প্রচন্ড যন্ত্রণা অনুভব করলে তিনি তা বন্ধ করতে বলেন।

পরে আনুমানিক ১৫ সেকেন্ড বিরতি দিয়ে আবারও লেজার প্রয়োগ করেন। শেষ ২৫ মিনিট অবর্ণনীয় যন্ত্রণা হলে তিনি বাম চোখে লেজার প্রয়োগ করতে অস্বীকৃতি
জানান। তবে ডা.দীপক কুমার নাগ জোর করে বাম চোখেও লেজার প্রয়োগ করেন।

লেজার প্রয়োগের পর থেকেই চোখের সমস্যা বাড়তে থাকলে পরবর্তীতে তিনি থাইল্যান্ডের একটি হাসপাতালে চোখের উন্নত চিকিৎসা করান। সেখানকার
চিকিৎসকেরা জানান, দীপক কুমার নাগের চিকিৎসাটি ভুল ছিল। এ ভুলের কারণে ৩৩ শতাংশ দৃষ্টি শক্তি হারিয়েছেন তিনি।

এ ঘটনায় গত আগস্ট মাসে ময়মনসিংহ আদালতে দীপক কুমার নাগের বিরুদ্ধে মামলা করেন মাহজাবিন হক। ওই মামলা চলমান রয়েছে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

স্বাস্থ্য বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image