• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ৭ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ; ২০ জানুয়ারী, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

আখাউড়া ও বিজয়নগরের দুই পোলিং এজেন্টকে কারাদণ্ড


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ০৫:১৩ পিএম
আখাউড়া ও বিজয়নগরের দুই পোলিং এজেন্টকে কারাদণ্ড
দুই পোলিং এজেন্টকে কারাদণ্ড

ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া ও বিজয়নগরে দুই পোলিং এজেন্টকে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। জানা গেছে, আখাউড়ায় হাবিবুল বাশার (৩৮) নামে স্বতন্ত্র প্রার্থীর এক পোলিং এজেন্টকে ৬ মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

রোববার (২৬ ডিসেম্বর) সকালে উপজেলার মনিয়ন্দ ইউনিয়নের উত্তর প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে তাকে ১৭ হাজার টাকা সহ আটক করা হয়। সাজাপ্রাপ্ত হাবিবুল বাশার ওই এলাকার মানিক মিয়ার ছেলে ও ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী লুৎফুর রহমান ভূইয়ার এজেন্ট ছিলেন।

এ ঘটনায় ওই কেন্দ্রের সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার অলোক কুমার চক্রবর্তীকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। আখাউড়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

মনিয়ন্দ উত্তর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মো. ইফতেখার রসুল সিদ্দিক জানান, ওই এজেন্ট কেন্দ্রে বসে মোবাইলে কথা বলছিলেন। তার কাছ থেকে মোবাইল নিতে চাইলে তিনি উত্তেজিত হয়ে কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করেন।

পরে তার কাছ থেকে আরও একটি মোবাইল ফোন এবং সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার অলোক কুমার চক্রবর্তীর নাম লেখা একটি খাম উদ্ধার করা হয়। খামে ১৭ হাজার টাকা ছিল। এরপর বাশারকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তোলা হলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন।

এই ঘটনায় কেন্দ্রের সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারকে কেন্দ্র থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমানা ইসলাম। বিজয়নগরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে একটি ভোটকেন্দ্র থেকে মহসিন মিয়া (৩০) নামের এক প্রার্থীর পোলিং এজেন্টকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৩ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

রোববার ২৬ ডিসেম্বর দুপুর পৌনে ১২টার দিকে উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের আদমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র থেকে তাকে নগদ ৩৪ হাজার টাকাসহ আটক করা হয়। সাজাপ্রাপ্ত মহসিন মিয়া ওই এলাকার রাসু মিয়ার ছেলে।

এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নবীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একরামুল হক এই সাজা প্রদান করেন।

তিনি জানান, ভোটকেন্দ্রে পোলিং এজেন্টদের তল্লাশি চালানো হয়। এসময় পোলিং এজেন্ট মহসিন মিয়ার পকেটে নগদ ৩৪ হাজার টাকা পাওয়া যায়। এই ঘটনায় মহসিনকে ৩ মাসের সাজা প্রদান করা হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) জানান, সাজাপ্রাপ্ত মহসিন মিয়া আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী কামরুজ্জামান রতনের নৌকা প্রতীকের পোলিং এজেন্ট ছিলেন। সাজা প্রদানের পর তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

 

ঢাকানিউজ২৪.কম / মনিরুজ্জামান মনির/কেএন

অপরাধ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image