• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৮ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

তাপমাত্রা বাড়ার নতুন রেকর্ড হতে পারে


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শুক্রবার, ২১ এপ্রিল, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১২:২২ পিএম
প্রশান্ত মহাসাগরে লা নিনা আবহাওয়া ধরন টানা তিন বছর থাকার পর
তাপমাত্রা বাড়ার নতুন রেকর্ড

নিউজ ডেস্ক:  জলবায়ু পরিবর্তন ও প্রত্যাশিতভাবে এল নিনো ফিরে আসায় ২০২৩ বা ২০২৪ সালে বিশ্বে গড় তাপমাত্রার নতুন রেকর্ড হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া বিজ্ঞানীরা। খবর সিএনএনের।

জলবায়ু মডেলগুলো ধারণা দিচ্ছে, প্রশান্ত মহাসাগরে লা নিনা আবহাওয়া ধরন টানা তিন বছর থাকার পর চলতি বছরের শেষের দিকে বা আগামী বছর বিশ্ব এল নিনোতে ফিরে আসবে। লা নিনা চলার সময় সাধারণত বৈশ্বিক তাপমাত্রা কিছুটা কমে আর এল নিনোর সময় তাপমাত্রা বাড়ে।

এল নিনো চলার সময় নিরক্ষরেখা বা বিষুবরেখা বরাবর পশ্চিমে বায়ুপ্রবাহ ধীর হয়ে যায় ও পানির উষ্ণ স্রোতগুলোর পূর্বদিকে যাওয়ার প্রবণতা দেখা দেয়, ফলে সমুদ্রপৃষ্ঠের তাপমাত্রা বেড়ে যায়।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) কোপার্নিকাস ক্লাইমেট চেঞ্জ সার্ভিসের পরিচালক কার্লো বুওনটেম্পো বলেন, এল নিনো সাধারণত বৈশ্বিক পর্যায়ে রেকর্ড ভাঙা তাপমাত্রার সঙ্গে যুক্ত, এটি ২০২৩ বা ২০২৪ সালে ঘটবে কি না তা এখনও জানা যায়নি, তবে আমি মনে করি, এটি ঘটার সম্ভাবনা বেশি।

তিনি বলেন, জলবায়ু মডেলগুলো থেকে ধারণা পাওয়া যায়, বোরিয়াল (উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে সম্পর্কিত বা অবস্থিত) গ্রীষ্মের শেষের দিকে এল নিনোর অবস্থার দিকে ফিরে আসার ও বছরের শেষের দিকে একটি শক্তিশালী এল নিনো বিকাশের সম্ভাবনা রয়েছে।

এখন পর্যন্ত বিশ্বের সবচেয়ে উষ্ণতম বছর ছিল ২০১৬, ওই সময়ও একটি শক্তিশালী এল নিনোর সঙ্গে সক্রিয় হয়েছিল। যদিও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এ ঘটনা ছাড়াই কয়েক বছর ধরে চরম তাপমাত্রা বেড়েছে।

গত আট বছর ছিল বিশ্বের সবচেয়ে আটটি উষ্ণতম বছর। এটি গ্রিন হাউজ গ্যাস নির্গমনের ফলে সৃষ্ট দীর্ঘমেয়াদি উষ্ণায়ণ প্রবণতার প্রতিফলন।

ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের গ্রানথাম ইনস্টিটিউটের জ্যেষ্ঠ প্রভাষক ফ্রিডেরিক অটো বলেন, এল নিনোর জ্বালানিযুক্ত তাপমাত্রা জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবকে আরও খারাপ করতে পারে।

তিনি বলেন, এল নিনো শুরু হলে ২০২৩ এর ২০১৬ থেকেও বেশি উষ্ণ হয়ে উঠতে পারার  সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ মানুষ জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানো অব্যাহত রাখায় বিশ্ব আরও উষ্ণ হয়ে উঠছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) কোপার্নিকাস বিজ্ঞানীরা গত বছর বিশ্বের জলবায়ু পরিবর্তনের মূল্যায়ন করে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছেন, যা রেকর্ডের পঞ্চম উষ্ণতম বছর।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

আরো পড়ুন

banner image
banner image