• ঢাকা
  • সোমবার, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৮ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

ইসলামপুরে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে ভূয়া এনজিও উধাও


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২২ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৫৭ এএম
কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে
ভূয়া এনজিও উধাও

লিয়াকত হোসাইন লায়ন, ইসলামপুর (জামালপুর) প্রতিনিধি: জামালপুরের ইসলামপুরে পল্লী জনকল্যাণ সংস্থা নামে একটি ভূয়া এনজিও প্রতারক চক্র ঋণ দেওয়ার কথা বলে গ্রাহকদের কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে উধাও হয়েছে। এ ঘটনায় ইসলামপুরে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলার মালামারা গ্রামের ফকির আলী, হাছেনা, ফুলু, শাহজল ও হামিদুরসহ ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, পল্লী জনকল্যাণ সংস্থা নামে একটি এনজিও সম্প্রতি পৌর শহরে পাটনিপাড়া মোড়ে ব্যবসায়ী লিটন মিয়ার বাসা ভাড়া নিয়ে তাদের অফিস কার্যক্রম করে জেলার দেওয়ানগঞ্জ , ইসলামপুর,মেলান্দহসহ বিভিন্ন উপজেলায় কাপড়ের ব্যবসা, মনোহারী দোকান, গরু খামার, মুরগী খামার, প্রবাসী  ঋণ দেওয়ার কথা বলে জামানত স্বরুপ জনপ্রতি ৫হাজার থেকে ১০হাজার টাকা অগ্রীম সঞ্চয় নেয়। এক পর্যায়ে ঋন বিতরণের তারিখ ঘনিয়ে আসলে অফিস ফেলে গত ১৭নভেম্বর বুধবার রাতে উধাও হয়ে যায় সংস্থার কর্মকর্তারা।

এদিকে ১৮নভেম্বর সকাল থেকে ঋণ নিতে এসে ভুক্তভোগীরা কর্মকর্তাদের না পেয়ে ভবনটির সামনে ভীর জমায়। অফিসটি তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখতে পেয়ে ভোক্তভোগীরা থানায় গিয়ে অভিযোগ দিতে যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভূয়া এনজিওটি তাদের সঞ্চয় ও ঋনদান পাশ বইতে নিউ গুলশান, পূর্বাচল মডেল টাউন,ঢাকা-১২০০, প্রধান কার্যালয়ের ঠিকানা উল্লেখ করলেও ওই ঠিকানা সম্পুর্ণ  ভূয়া ও মিথ্যা। অনুসন্ধানে জানা গেছে, ওই ভুয়া এনজিও কর্মকর্তা প্রতারক চক্রের আসল ঠিকানা হচ্ছে ঢাকার নারায়নগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানার ব্রামন্দী ইউনিয়নের লস্করদী এলাকার বাসীন্দা রহমত উল্লাহর ছেলে প্রতারক মোবারক হোসেন এবং একই এলাকার বাসিন্দা শহিদুল্লাহর ছেলে মামুন। এছাড়াও শফিক নামে এই চক্রের আরও এক সদস্য রয়েছে।  যারা দীর্ঘ দিন ধরে ভূয়া নাম ঠিকানা ব্যবহার করে বিভিন্ন এলাকায় মানুষের সাথে প্রতারণা করে আসছে।

এ ব্যাপারে বাসা মালিক লিটন মিয়া জানান, ঘটনার চার/পাঁচ দিন আগে তারা আমার বাসা ভাড়া নেওয়ার কথা বলে সাইন বোর্ড টানিয়ে রুমে চেয়ার টেবিল আসবাবপত্র উঠিয়ে বাসাভাড়া চুক্তি করার নামে তালবাহানা করছিল। বিষয়টি টের তাদের ছাইন বোর্ড নামিয়ে ফেলি। এরপর থেকে তাদের আর খোঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা। এ ঘটনায়  বাসার মালিক লিটন মিয়া ইসলামপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

এব্যাপারে ইসলামপুর থানা  অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ মাজেদুর রহমান মাজেদ বলেন, খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছেন। ভোক্তাভোগীদের অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

সংগঠন সংবাদ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image