• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১২ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

সাবেক কমিশনার ওয়াহিদা রহমানের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৩৯ পিএম
ঢাকা মহানগর জজ আদালত, দেশত্যাগ, নিষেধাজ্ঞা, কমিশনার ওয়াহিদা রহমান

নিউজ ডেস্ক:   দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আস সামছ জগলুল হোসেন বৃহস্পতিবার ওয়াহিদা রহমানের বিদেশ ভ্রমণে ৬০ দিনের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন। সাবেক কমিশনার ওয়াহিদা রহমান কাস্টমস কমিশনারের বিরুদ্ধে চারটি মোবাইল অপারেটরকে ১৫২ কোটি টাকা সুদ ছাড়ের অভিযোগ রয়েছে।

মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট)-এর বৃহৎ করদাতা ইউনিটের সাবেক কমিশনার ওয়াহিদা রহমানের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আদালত। তার বিরুদ্ধে চারটি মোবাইল অপারেটরকে ১৫২ কোটি টাকা সুদ ছাড়ের অভিযোগ রয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আস সামছ জগলুল হোসেন এই আদেশ দেন। সাবেক কমিশনার ওয়াহিদা রহমানের বিদেশ ভ্রমণ প্রসঙ্গে ৬০ দিনের নিষেধাজ্ঞা।

আদালতে শুনানিতে অংশ নেন দুদকের পাবলিক প্রসিকিউটর মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর।

দুদকের সহকারী পরিচালক মো.শাহ আলম শেখের সই করা আদালতের নিষেধাজ্ঞার এই চিঠি, পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের বিশেষ পুলিশ সুপারের (ইমিগ্রেশন) কাছে পাঠানো হয়েছে।

দুদকের পাঠানো নোটিশে বলা হয়, ওয়াহিদা রহমান রাষ্ট্রের ১৫২ কোটি টাকা সুদ মওকুফ করে ক্ষমতার অপব্যবহার ও অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গের মাধ্যমে সরকারের আর্থিক ক্ষতিসাধন করে। আত্মসাৎপূর্বক দণ্ডবিধির ২১৮/৪০৯ ধারা ও ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারার শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেন।

এই অভিযোগে তার বিরুদ্ধে দুদকের সহকারী পরিচালক মো.শাহ আলম শেখ বাদী হয়ে মামলা করেন।

দুদকের নোটিশে বলা হয়, "বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায় যে, ওয়াহিদা রহমান দেশত্যাগের চেষ্টা করছেন। সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তার বিদেশ গমন রহিত করা আবশ্যক।"

দুদক সূত্রে জানা যায়, চারটি মোবাইল অপারেটর কোম্পানির মধ্যে গ্রামীণফোন লিমিটেডের ৬টি নথিতে ৫৮ কোটি ৬৪ লাখ ৮৮ হাজার ৬৯৭ টাকা, বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশন লিমিটেডের ৭টি নথিতে ৫৭ কোটি ৮৮ লাখ ৫৩ হাজার ৫১ টাকা, রবি আজিয়াটার ১৪ কোটি ৯৪ লাখ ১৬ হাজার ৬৮৮ টাকা এবং এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেডের ২০ কোটি ৫৩ লাখ ৩০ হাজার ৯৫২ টাকাসহ মোট ১৫২ কোটি ৮৯ হাজার ৩৯০ টাকা অপরিশোধিত সুদ মওকুফ করেন সাবেক কমিশনার ওয়াহিদা রহমান।

প্রসঙ্গত, কাস্টমস কমিশনার ওয়াহিদা রহমান চৌধুরী এনবিআরের বৃহৎ করদাতা ইউনিটের কমিশনার হিসেবে অবসরে যান। বর্তমানে তিনি পিআরএলে আছেন।

ঢাকানিউজ২৪.কম / 11

আরো পড়ুন

banner image
banner image