• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১২ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

রেড মিট খাওয়ার আগে কিছু পরামর্শ জেনে নিন


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৫:০৭ পিএম
মাংস রান্নায় দৃশ্যমান জমানো চর্বি বাদ
গরু বা খাসির মাংস রান্না

নিউজ ডেস্ক:  কোরবানি ঈদে বেশ কয়েকদিন টানা খাওয়া হয় গরু বা খাসির মাংস। ঈদের সময় মাংস খাওয়া এড়ানোর উপায় নেই, সেটার খুব একটা প্রয়োজনও নেই। তবে পরিমিত খাওয়ার পাশাপাশি নিয়ম মেনে রান্না করার উপরেও দিতে হবে জোর। রেড মিট পাতে রাখলেও সবজি ও অন্যান্য খাবার এড়িয়ে যাওয়া যাবে না। মাংস খেয়েও সুস্থ থাকতে চাইলে কিছু তথ্য জেনে রাখা জরুরি। পরামর্শ দিয়েছেন ফরাজি হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক লিমিটেডের পুষ্টিবিদরা । 

মাংস রান্নায় দৃশ্যমান জমানো চর্বি বাদ দিয়ে রান্না করতে হবে এবং কম তেলে রান্না করতে হবে।

আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েসন বলছে, মাংস কাটার সময় ছোট ও পাতলা করে কাটা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। এতে যেমন কম পরিমাণে খাওয়া হয়, তেমনি ভেতরে চর্বি রয়ে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে না।

মাংস রান্নার আগে সম্ভব হলে মাংস ৫-১০ মিনিট মাংস সেদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে নিলে চর্বির অংশ অনেকটা কমে যায়।উচ্চতাপে রান্না করতে হবে মাংস।

গরুর মাংস বেশি খাওয়া হলে অন্যান্য প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার এড়িয়ে চলুন। 

মাংস রান্নার সময় ভিনেগার, টক দই,পেঁপে বাটা  ও লেবুর রস ইত্যাদি ব্যবহার করতে পারেন এতে চর্বির ক্ষতিকর প্রভাব কিছুটা হলেও কমানো সম্ভব।

যাদের উচ্চরক্তচাপজনিত সমস্যা আছে বা কো-মরবিডিটি আছে তারা একেবারেই না এড়াতে পারলে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে ১-২ টুকরো খেতে পারেন। সেক্ষেত্রে মাংস রান্নায় সবজি যেমন কাঁচা পেঁপে, লাউ, চালকুমড়া, টমেটো কিংবা মাশরুম ব্যবহার করতে হবে। তারা মাংসের সাথে সবজি মিশিয়ে কাটলেট বা চপ করেও খেতে পারেন। 

প্রতিবেলায় খাবারের সাথে ১ কাপ পরিমাণ শসা, লেবু, টমেটো ইত্যাদির সালাদ রাখতে হবে।

খাবার কিছু সময় পর তালিকায় লেবু পানি বা টক দই রাখলেও তা হজম প্রক্রিয়া বৃদ্ধিতে  সাহায্য করে। 

মাংস খাওয়ার সময় ঝোল বাদে খাওয়া ভালো। আবার ভুনা মাংসের পরিবর্তে কম তেলে গ্রিল, বারবিকিউ করে বা কাবাব করেও মাংস  খাওয়া যায়।

তিন বেলা মাংসের তৈরি ভারি খাবার না খেয়ে যে কোনও একবেলা একেবারেই  হালকা খাবার যেমন সবজির স্যুপ, সবজি ও ফলের নানা আইটেম রাখতে পারেন।

গরুর মাংস খাওয়ার পরপরই দুধ বা দুধের তৈরি খাবার খাবেন না। এতে হজমের গণ্ডগোল অথবা গ্যাস্ট্রিকের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে।

অতিরিক্ত গরুর মাংস খেলে ডায়রিয়া কিংবা অ্যালার্জিজনিত জটিলতা দেখা দিতে পারে। আবার কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যাও দেখা যায় অধিক পরিমাণে লাল মাংস খেলে। কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে দূরে থাকতে চাইলে প্রচুর পরিমাণে পানি ও পানিজাতীয় খাবার খাবেন। ডায়রিয়া হলে স্যালাইন খান। 

ঢাকানিউজ২৪.কম / এইচ

আরো পড়ুন

banner image
banner image