• ঢাকা
  • শনিবার, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৩ ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

সাংবাদিকতার রিপোর্টের তীব্র সমালোচনা কবি জাফরের


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৩০ এএম
সাংবাদিকতার রিপোর্টের তীব্র সমালোচনা
প্রেস ইন্সটিটিউটের মহাপরিচালক ও কবি জাফর ওয়াজেদ

মো. নজরুল ইসলাম, ময়মসনসিংহ: সাংবাদিকতার নামে উল্টাপাল্টা রিপোর্টের তীব্র সমালোচনা করেছেন প্রেস ইন্সটিটিউটের মহাপরিচালক ও কবি জাফর ওয়াজেদ বলেছেন, সম্প্রতি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় নিয়েও বহু উল্টা পাল্টা রিপোর্ট হচ্ছে; আমি দেখেছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক না বাইরের সাংবাদিকরা করছে। একে কী ইনটেশন সেটা বোঝা যায়। কারণ কোন রিপোর্টের পেছনে খরচাপাতি জড়িত সেটি আমি পড়লেই বুঝি। আমি ঢাকা থেকে মফস্বলে গিয়ে থেকে বহু রিপোর্ট করেছি। তাই নিজের অভিজ্ঞতা থেকে অনেক কিছু বুঝি।

মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) ‘ন্যাশনাল ক্যাম্পাস জার্নালিজম ফেস্ট-২০২২’এর সমাপনী দিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে  তিনি এসব কথা বলেন। ২০ টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে দুইদিন ব্যাপী এই ফেস্ট অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাব ফেস্টের আয়োজন করে।

সাংবাদিক মানেই পূত পবিত্র নয়। সাংবাদিকদদের লেখার মান আরও উন্নত করার তাগিদ দিয়ে বর্ষীয়াণ এই গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব আরও বলেন, একজন সাংবাদিক রিপোর্টের মধ্যে ইনভলব হতে পারেন না। আপনি প্রতক্ষ্যদর্শী হলেও অন্যের বরাত দিয়ে রির্পোট লিখবেন। আপনার ব্যক্তিগত কোন মতামত দিবেন না। রিপোর্টার যদি ইনভলব হয়ে যায় তাহলে রিপোর্টের কাঠামোই ঠিক থাকে না।

অনলাইন গণমাধ্যমগুলোর অসম্পাদিত প্রতিবেদন প্রসঙ্গে বলে গিয়ে জাফর ওয়াজেদ আরও বলেন, মাত্র ৩৩৭টি অনলাইন নিবন্ধিত হয়েছে। এসব অনলাইনে অধিকাংশ নিউজ অসম্পাদিত। ভালো সম্পাদনা হয় না। এ অনলাইন থেকে কপি পেস্ট করে বাকী অনলাইনেও একই নিউজ আসে। যেসব রির্পোটের জন্য মামলা হয় বা পুলিশ জেলে নিয়ে যায় সেগুলো দেখলে বোঝা যায় একপেশে রিপোর্ট। আপনার বিরুদ্ধে রিপোর্ট অথচ আত্মপক্ষ সমর্থনে আপনার বক্তব্যই নেই। নিউজের কাঠামোগত দিকগুলো অনুসরণ করা হয় নি, স্বাভাবিক কারণে মামলা হয়েছে।

সাংবাদিকদের শুধু লিখলেই হবে না। তাদেরকে অতীত ইতিহাস জানতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সম্পর্কে অবহিত হতে হবে। সাংবাদিকরা তার লেখনীর মধ্যদিয়ে সমাজ সংস্কারে ভূমিকা রাখবে, মন্তব্য করেন তিনি। ক্যাম্পাস সাংবাদিকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নে প্রেস ইন্সটিটিউট থেকে ধারাবাহিকভাবে কর্মসূচী আয়োজন করা হচ্ছে বলে জানিয়ে ভবিষ্যতে এটি আরও বৃদ্ধি করা হবে 
বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর বলেন, ক্যাম্পাসের সংবাদগুলো বাইরে থেকে প্রচার-প্রসার করালে খানিকটা সংকটের তৈরি হয় মন্তব্য করে খানিকটা ইন্টার্নশিপের মতো করে হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের সংবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দিয়ে প্রচার প্রসারে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের সাংবাদিক হিসেবে নিযুক্ত করেন। তিনি বলেন, আমাদের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা ভর্তি হয়, যারা এখানে ভর্তি হয় তারা সৎ, শিক্ষিত এবং সাংবাদিকতা বলতে কি বলছে সেটি গ্রহণ করার জন্য তৈরি।

গণমাধ্যম মালিক ও পরিচালনায় যুক্তদের উদ্দেশে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আপনারা কাকে আপনাদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করবেন সে বিষয়ে আমাদের কোন তদবির বা সুপারিশ থাকবে না। তবে আপনারা আমাদের ছেলেমেয়েদেরকে কাজের সুযোগ দিন। আমরা চাই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক হবে, সংবাদদাতা হবে। এখান থেকে তারা টেলিভিশনে যেমন সংবাদ পাঠাবে তেমনি প্রিন্ট মিডিয়াতেও সংবাদ পাঠাবে। এটিই হোক আজকের দিনের প্রত্যয়।

আগত ক্যাম্পাস সাংবাদিকদের উদ্দেশে উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর বলেন, আপনার আমাদের নজরুল তীর্থে এসেছেন সেজন্য আমরা গর্বিত। আপনাদের এই আয়োজনের পরিসর ছোট হতে পারে কিন্তু এর ব্যপ্তি অনেক বিশাল। এখান থেকে যা কিছু আপনারা অর্জন করেছেন তা সমাজের মধ্যে ছড়িয়ে দিবেন সেটিই প্রত্যাশা। প্রেসক্লাবের সভাপতি নিহার সরকার অংকুরের সভাপতিত্বে সমাপনী অধিবেশনে ফেস্টে আগত বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিরাও তাদের সংহতি বক্তব্য দেন।

দুইদিনব্যাপী আয়োজিত এই ফেস্টে ২০ টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ২০০ জন প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন। সমাপনী দিনে তাদেরকে ক্রেস্ট ও সনদপত্র বিতরণ করা হয়।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

সারাদেশ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image