• ঢাকা
  • রবিবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২২ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

বেশি বেশি পাটপণ্যের প্রদর্শণী আয়োজন করুন: বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ০৭ মার্চ, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১২:২৬ পিএম
পাটপণ্যের চাহিদা যেমন বাড়বে তেমনি এখাতের উদ্যোক্
পাটপণ্যের প্রদর্শণী আয়োজন করুন

নিউজ ডেস্ক:  বহুমুখী পাটপণ্যের প্রসার বাড়াতে আরও বেশি হারে দেশে ও বিদেশেপাটপণ্যের প্রদর্শণী আয়োজন করার আহবান জানিয়েছেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী বীরপ্রতীক গোলাম দস্তগীর গাজী। রোববার দুপুরে রাজধানীর ফার্মগেটেজুট ডাইভারসিফিকেশন প্রমোশন সেন্টারে (জেডিপিসি) তিন দিন ব্যাপী বহুমুখী পাটপণ্য মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

জেডিপিসি প্রাঙ্গণে চলমান তিনদিনের এই প্রদর্শণী শেষ হবে আগামী ৮ মার্চ। প্রতিদিন সকাল ১০ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত এই মেলা চলবে। এবার মেলায় ৩৩ টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। তারা বহুমুখী পাটপণ্যের পসরা সাজিয়েছেন। বহুমুখী পাটপণ্যের উদ্যোক্তাগণ ২৮২ প্রকার দৃষ্টিনন্দন পাটপণ্য উৎপাদন করছেন। প্রদর্শণী পাটের প্রায় সব পণ্য রয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী জেডিপিসির কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, যতো পারেন পাটপণ্যের মেলার আয়োজন করতে হবে। এতে দেশে পাটপণ্যের চাহিদা যেমন বাড়বে তেমনি এখাতের উদ্যোক্তাদের বিক্রিও বাড়বে। এতে করে তারা দেশের বাইরেও পাটপণ্য রফতানি করতে উৎসাহী হবে ।

তিনি বলেন, এবছর মেলা কয়টি করবেন আমাদের জানাবেন। মেলা হলে উদ্যোক্তারা লাভবান হবে। অনেক উদ্যোক্তাই দেশের বাইরে যেতে পারেনা। মেলা হলে তারা লাভবান হবে। পাট পণ্য দিন দিন গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছে। এখন আমাদের আরো
উদ্যোক্তা তৈরি করতে হবে। উদ্যোক্তা তৈরির ক্ষেত্রে আমরা ভারতের চেয়ে অনেক পিছিয়ে আছি। সরকার উদ্যোক্তা তৈরি করতে আগ্রহী। কারণ উদ্যোক্তা ছাড়া দেশের কোন ভবিষ্যত নেই।

জেডেপিসি আইন করার দাবির প্রেক্ষিতে মন্ত্রী বলেন, জেডিপিসি আইন করলে উদ্যোক্তারা কী লাভবান হবে সেটা আগে বুঝতে হবে৷ আইন করতে হলে ভালো হবে না খারাপ হবে আগে সেটা যাচাই করতে হবে। দেশের জন্য যেটা মঙ্গলজনক আমরা সেটাই
করবো। উদ্যোক্তা ও সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে আমরা কথা বলবো। উদ্যোক্তা ও সব পক্ষের মতামতের ভিত্তিতে আইন হবে।

জেডেপিসির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ আবুল কালামের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন বস্ত্র ও পাট সচিব মো. আব্দুর রউফ।

বস্ত্র ও পাট সচিব বলেন, বহুমুখী পণ্য উৎপাদনের ক্ষেত্রে খরচ কমাতে হবে। উৎপাদনশীলতা বাড়াতে হবে। কারণ কাঁচা পাটের দাম আর কমবে বলে মনে হয়না। এবার মেলার আয়োজন নিয়ে আমরা দ্বিধায় ছিলাম, করোনার কারণে মেলা হবে কিনা হবেনা। তাই ছোট জায়গায় মেলা হচ্ছে। এখানে সীমিত পরিসরেই মেলা হচ্ছে। তবে ভবিষ্যতে আরও বড় পরিসরে মেলা হবে।

সভাপতির বক্তব্যে জেডেপিসির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ আবুল কালাম বলেন, মূল্য সংযোজিত বহুমুখী পাটপণ্যের চাহিদা বাড়ছে। বহুমুখী পাটপণ্য রফতানি করে ১ বিলিয়ন ডলার আয় করা সম্ভব। সব মিলিয়ে পাট খাতের রফতানি আয় ৫ থেকে ৭
বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করা সম্ভব।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

জাতীয় বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image