• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২১ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৩ ফেরুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

শেরপুরে যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে আধুনিক পদ্ধতিতে ধান চাষ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ০৯ জানুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০১:১১ পিএম
শেরপুরে যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে
আধুনিক পদ্ধতিতে ধান চাষ

জাহিদুল হক মনির, শেরপুর প্রতিনিধি : শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে প্রথমবারের মতো কৃষি যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে আধুনিক পদ্ধতিতে ধান চাষ করার জন্য ধানশাইল গ্রামের মাঠে ট্রে পদ্ধতিতে (প্ল্যাস্টিকের ফ্রেম) হাইব্রিড ধানের চারা তৈরির কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এ পদ্ধতি অবলম্বনে চাষিরা লাভবান হবেন বলে জানিয়েছেন কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা।

জানা গেছে, আধুনিক কৃষি যন্ত্রগুলো অল্প সময়ে অনেক বেশি কাজ করে। আর এগুলো চালনার জন্য লোকও লাগে অতি অল্প। কিন্তু যান্ত্রিকীকরণের জন্য দরকার যৌথ খামার বা সমবায়ী কৃষিব্যবস্থা। যান্ত্রিকীকরণের আরেকটি অন্তরায় সব কৃষক একই সময়ে চাষাবাদ করেন না। সবার বীজতলা একসময় গজায় না, স্বভাবতই তাই চারা রোপণের সময়ও হয় ভিন্ন, ধানও তাই একসময়ে পাকে না। একই কাজের জন্য বিভিন্ন জমিতে আলাদা সময়ে কৃষি যন্ত্রগুলোর ব্যবহারে অর্থনৈতিকভাবে সাশ্রয়ী হয় না।

তাই কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণের সিকি ভাগও হয়নি। একটি এলাকার কোনো একটি কৃষিপণ্য চাষের পুরো প্রক্রিয়াকে যদি একই সিস্টেমের আওতায় নিয়ে আসা যেত, তাহলে কিন্তু জমির আল বজায় রেখেও লাভজনকভাবে যন্ত্র ব্যবহার করা যেত। বোরো চাষে এ রকমেরই একটা কার্যকরী উপায় বের করেছেন কৃষিবিজ্ঞানীরা। পদ্ধতিটির নাম দিয়েছেন তারা সমলয়। 

নতুন এ পদ্ধতিতে বীজতলা থেকে ফসল কাটা, সবই এক সময়ে একযোগে করা হবে। স্বল্প মানুষের সাহায্যে কাজটা করবে যন্ত্র। জমির অপচয় রোধে এ পদ্ধতিতে প্রচলিত রীতিতে বীজতলা তৈরি না করে প্ল্যাস্টিকের ফ্রেম বা ট্রেতে লাগানো হয় ধানের বীজ। ২০ থেকে ২৫ দিনের মধ্যে চারা হবে। তারপর রাইস ট্রান্সপ্ল্যান্টারের মাধ্যমে ধানের চারা রোপণ করা হবে। একটা ট্রান্সপ্ল্যান্টার এক ঘণ্টায় এক একর জমিতে চারা লাগাতে পারে, বেঁচে যায় সাড়ে চার হাজার টাকা।

চারা একই গভীরতায় সমানভাবে লাগানো যায়। একই সময় রোপণ করায় নির্দিষ্ট এলাকায় সব ধান পাকেও একই সময়। মেশিন দিয়ে একই সঙ্গে সব ধান কাটা ও মাড়াই করা যাবে। আর বড়সড় পরিসরে হবে বলে সব প্রক্রিয়াতেই যন্ত্রের ব্যবহার হবে সাশ্রয়ী। এবছর চলতি মৌসুমে ৬১টি জেলার ১১০টি উপজেলার নির্দিষ্ট কিছু জায়গায় প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় একযোগে সমলয় চাষ চলছে। এ পদ্ধতি সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়া গেলে উৎপাদন বাড়বে। তার চেয়ে বড় কথা, শ্রমিক কম লাগবে বলে প্রতিবছরই কৃষি খাতে যে শ্রমিক সংকট হয়, তাও কাটবে।

উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ধানশাইল গ্রামের মাঠে সমলয় পদ্ধতিতে ৫০ একর জমিতে হাইব্রিড জাতের ধান চাষ করা হবে। এ কারণে ওই এলাকার মাঠে ৪ হাজার ৫০০টি ট্রেতে ৩০০ কেজি বীজ বপণ করে চারা তৈরি করা হয়েছে। আধুনিক পদ্ধতিতে এই প্রথমবার বীজতলা ও চারা তৈরির কাজে সার্বিক তত্ত¡াবধানে রয়েছেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন দিলদার এবং ধানশাইল বøকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা শামীম হোসেন।

শুধু তাই নয়, এবার ট্রেতে বীজতলা, যন্ত্রের মাধ্যমে চারা রোপণ ও কম্বাইন্ড হারভেস্টারের মাধ্যমে ধান কাটাও হবে। অর্থাৎ এবার এ ৫০ একর জমিতে আধুনিক পদ্ধতিতেই কৃষি কাজ সম্পন্ন হবে। এ পদ্ধতিতে চাষিরা কম খরচে তাদের ধান ঘরে তুলতে পারবেন।

কৃষক আবুল ও জাকিনুর জানান, কৃষি কর্মকর্তাদের ভাষ্যমতে এ পদ্ধতি ব্যবহার করলে শ্রমিকের মজুরি কম লাগবে। এতে ধানের উৎপাদন খরচ কমে যাবে। এ ছাড়া হাইব্রিড জাতের এ ধান চাষে ফলন বৃদ্ধি পাবে। ফলে আধুনিকতার ছোঁয়ায় তারা লাভবান হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. হুমায়ুন দিলদার বলেন, দিন দিন আবাদি জমির পরিমাণ কমে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে কৃষি শ্রমিকের সংখ্যা হ্র্রাস পাচ্ছে। ফলে কৃষিতে শ্রমিকের মজুরি বেড়ে যাচ্ছে, ফলে ধানের উৎপাদন খরচও বেড়ে যাচ্ছে। ধানের উৎপাদন খরচ কমাতে এবং সমালয় পদ্ধতিতে ধানের চাষ বিস্তার করার জন্য প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় এ উপজেলায় প্রথমবারের মত ধান চাষ করা হবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

কৃষি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image