• ঢাকা
  • শুক্রবার, ৬ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ; ২২ অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

সিলেট ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণার পরেই শুরু হয়েছে বিদ্রোহ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ০৬:৫৯ পিএম
সিলেট ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণার পরেই  শুরু হয়েছে  বিদ্রোহ

জামান চৌধুরী: সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণার পরপরই শুরু হয়েছে নানা বিদ্রোহ  আলোচনা-সমালোচনা। মাত্র দুই সদস্যর কমিটি আর ৪ জনকে কেন্দ্রীয় সদস্য করে দেয়া কমিটির পরপরই পদত্যাগ করেছেন দুইজন।.

এরমধ্যে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মুহিবুর রহমান মুহিব ও সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খান। এদুজনকেই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য করা হয়েছিল।.

এর আগে মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) দুপুরে দীর্ঘ অপেক্ষার পর সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।.

সিলেট জেলা কমিটির নতুন সভাপতি হিসেবে নাজমুল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে রাহেল সিরাজের নাম প্রকাশ করা হয়েছে।.

জয় ও লেখক স্বাক্ষরিত ছাত্রলীগের প্যাডে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খান, বিপ্লব কান্তি দাস, মুহিবুর রহমান মুহিব, কনক পাল অরুপের নাম ঘোষণা করা হয়।.

অপরদিকে, সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটির সভাপতি হিসেব কিশওয়ার জাহান সৌরভ ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নাইম আহমদের নাম ঘোষণা করা হয়। মহানগর কমিটিতে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে হোসাইন মোহাম্মদ সাগর ও সঞ্জয় পাশী জয়ের নাম উল্লেখ করা হয়।.

মঙ্গলবার দুপুরে লেখক ভট্টাচার্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নতুন কমিটির ঘোষিত প্যাডটি আপলোড দেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, আগামী সাত দিনের মধ্যে আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।
 
কমিটি ঘোষণার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কমিটি প্রত্যাখান করে মিছিল করেছে দলের একাংশের নেতাকর্মীরা। মিছিল থেকে তারা কেন্দ্রের বিরুদ্ধে টাকার বিনিময়ে কমিটির শীর্ষ পদ বিক্রির অভিযোগ করেন। মিছিল থেকে তারা জেলা ছাত্রলীগের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজের নাম ধরে কটুক্তিমূলক নানা স্লোগান দেন।.

মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) দুপুর ১২টার দিকে কেন্দ্র থেকে সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়। জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে টিলাগড় গ্রুপের নাজমুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তেলিহাওর গ্রুপের রাহেল সিরাজের নাম ঘোষনা করা হয়।.

এছাড়া মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে দর্শনদেউড়ি গ্রুপের কিশওয়ার জাহান সৌরভ ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কাশ্মির গ্রুপের নাঈম আহমদের নাম ঘোষণা হয়।.

এই কমিটি ঘোষণার পর ছাত্রলীগের একাংশের মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দেয়। তেলিহাওর গ্রুপের রাহেল সিরাজ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ পেলেও গ্রুপের অভ্যন্তরে অসন্তোষ চরমে পৌঁছায়। তেলিহাওর গ্রুপের বড় অংশের নেতাকর্মীরা রাহেল সিরাজের পরিবর্তে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে চেয়েছিলেন জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খানকে। কিন্তু জাওয়াদকে সাধারণ সম্পাদক না করে কেন্দ্রীয় সদস্য করায় গ্রুপটির নেতাকর্মীরা বিকেল ৪টায় তেলিহাওর থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন।.

 .

এদিকে, সিলেট জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটির কেন্দ্রীয় সদস্য মুহিবুর রহমান মুহিব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্টেটাস দিয়ে এই পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। তিনি তার স্টেটাসে লিখেছেন, আমাকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সদস্য করায় আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সম্মানিত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কাছে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমি ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বাস করি, আমি এই বিশাল পদের যোগ্য নই। তাই, আমি স্বেচ্ছায় এই পদ থেকে অব্যাহতি নিলাম।.

এরপরই পদ পত্যাখান করেন জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খান। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি লেখেন, ‘প্রিয় সতীর্থ, সহযোদ্ধা শুভাকাঙ্খী সদ্য ঘোষিত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানতে পারলাম আমাকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য মনোনীত করা হয়েছে। আমি উক্ত সদস্য পদ প্রত্যাখ্যান করলাম। রাজনীতি থেকে যখন অপ রাজনীতি শক্তিশালী হয়ে যায় তখন আমার মতো কর্মীর কাছে প্রত্যাখ্যান করার ছাড়া বিকল্প কোন উপায় থাকে না।’.

টাকার বিনিময়ে এই কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সর্বশেষ কমিটির সভাপতি শাহারিয়ার আলম সামাদ।তিনি তার ফেইসবুক  স্ট্যাটাসে এমন অভিযোগ  তোলেন।.


প্রসঙ্গত, অভ্যন্তরীন কোন্দলে ছাত্রলীগ কর্মী ওমর মিয়াদ হত্যাকান্ডে ২০১৭ সালের ১৮ অক্টোবর বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয় সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কমিটি। আর ২০১৮ সালে সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পর ২১ অক্টোবর বিলুপ্ত করা হয় মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি। এরপর একাধিকবার সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়।.

চারবছর পর কমিটি ঘোষণার পর সিলেট জুড়ে সমালোচনার ঝড় বইছে । স্বাভাবিক পথে এই কমিটি আসেনি বলে মন্তব্য করেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক  সাবেক বেশ ক'জন ছাত্রলীগ নেতা।. .

ঢাকানিউজ২৪.কম /

রাজনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image