• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৮ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

সেন্টমার্টিন যেতে শতশত মানুষ টেকনাফ সৈকতে অপেক্ষা


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৪ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৭:৪৮ পিএম
সেন্টমার্টিন যেতে
শতশত মানুষ টেকনাফ সৈকতে অপেক্ষা

টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি : মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে অভ্যন্তরে এখনো সংঘাত চলছে। এই সংঘাতে মিয়ানমার সীমান্ত থেকে বাংলাদেশের দিকে ছোড়াছে গুলি বর্ষণ,এর ভয়ে সাত দিন ধরে দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনে নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে দ্বীপের বসবাকারী প্রায় দশ হাজার মানুষের খাদ্যসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সংকটে পড়েছে। এছাড়া চিকিৎসাসহ কোরবানি ঈদে কেনাকাটা করতে এসে টেকনাফে আটকা পরের তিন মানুষ। 

এদিকে টেকনাফে আটকা পরা দুইশ মানুষ তিনটি ট্রলারে করে বিকল্প রুট পশ্চিম সমুদ্র দিয়ে টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সমুদ্র সৈকতে কুলে ফিরতে মাঝ সাগরে অপেক্ষামান রয়েছে। দ্বীপ থেকে আসা ট্রলারে করে ফিরে যেতে টেকনাফ সৈকতে অপেক্ষামান রয়েছে ৩০০ নারী-পুরুষ ও শিশু। যদি সাগর উত্তালের কারনে অনেকে ভয়ে আছেন।

টেকনাফের মেরিন ড্রাইভে মুন্ডার ডেইল সৈতকে অপেক্ষা করছেন সেন্টমার্টিন পূর্ব পাড়ার বাসিন্দা ফেরদৌস। তিনি বলেন, 'গত ১৭ দিন আগে চট্রগ্রামে চিকিৎসা নিতে এসেছিলাম। কিন্তু নাফনদীতে মিয়ানমারের গুলি বর্ষণের কারনে সেন্টমার্টিনে যেতে না পেরে এখানে আটকা আছি। ছেলে-মেয়ে নিয়ে অনেক কষ্টে আছি। তাছাড়া সাগরের ঢেউ দেখে ভয় পাচ্ছি,  কিভাবে যাবো।' 

আফরোজা আক্তার স্বপ্না বলেন, ' সকাল থেকে সেন্টমার্টিন যেতে টেকনাফ সৈকতে অপেক্ষা করছি। কিন্তু সাগরের অবস্থা দেখে এখন ভয় পাচ্ছি। এত গুলো লোলজন এখানে কিভাবে থাকবে। তাছাড়া আমাদের হাতে টাকাও শেষ হয়ে গেছে।

অন্যদিকে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে আরাকান আর্মি ও সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষে এবার মর্টার শেল ও গুলির বিকট শব্দ শোনা যাচ্ছে  টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপে।

বুধবার সন্ধ্যা থেকে শুরু হওয়া বৃহস্পতিবার দুপুর  পর্যন্ত শাহপরীর দ্বীপে সীমান্তে ওপারের থেমে থেমে গোলাগুলির শব্দে আতঙ্কে আছেন স্থানীয়রা।  এছাড়া টেকনাফের সাবারাংয়ের নয়াপাড়া এলাকায় গোলার শব্দ আওয়াজ ভারী শব্দ বলে জানা গেছে। 

শাহপরীর দ্বীপ সীমান্তে গোলার বিকট শব্দের বিষয়টি স্বীকার করে  টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপে ইউপি সদস্য আবদুস বলেন, 'সীমান্তে রাতে  খুব বেশি গুলির শব্দ শুনা গেছে। এখানে নাফনদ থাকায় আমরা গোলার শব্দ শুনলেও ঠিক ওপারে কোন এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে সেটা বলা মুশকিল। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত  ওপারের গোলার শব্দ পাওয়া গেছে। কিন্তু এত বেশি শব্দের বিকট আওয়াজ ছিল রাতে ঘুমাতে পারেনি।'

এ বিষয়ে সেন্টমার্টিন বোট মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুর রশিদ জানান, 'নাফনদেন টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে মিয়ানমার গুলি বর্ষণের কারনে সাত দিন ধরে এ রুট বন্ধ ছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার সকালে তিনটি ট্রলারে করে দ্বীপে আটকা পরা তিনশ মানুষ দ্বীপ থেকে টেকনাফে ফিরেছে। এছাড়া টেকনাফ যেসব মানুষ আটকা আছে তাঁরা এ ট্রলারে করে ফেরার কথা রয়েছে।  যদিও সাগরের উত্তালের কারনে ভাবছি আমরা।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image