• ঢাকা
  • শনিবার, ৮ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ; ২২ জানুয়ারী, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

দ্রুতই বাণিজ্যিক উৎপাদনে যাচ্ছে সোনালি ঐতিহ্য মসলিন: বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১২:৫৮ পিএম
সোনালি ঐতিহ্য মসলিন
রূপগঞ্জে মসলিন হাউস পরিদর্শনে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, বীরপ্রতীক

নিউজ ডেস্ক: সোনালি ঐতিহ্যে ফিরেছে বাংলার মসলিন আর এর ফলে দ্রুতই বাণিজ্যিক উৎপাদনে যাচ্ছে বাংলার সোনালি মসলিন বলে জানিয়েছেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, বীরপ্রতীক।

শনিবার ( ১৩ নভেম্বর) সন্ধ্যায় রূপগঞ্জের তারাব এলাকার ঢাকাই মসলিন হাউস পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিক একথা জানান তিনি।
 
বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী বলেন,  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী'র নির্দেশে বাংলাদেশ তাঁত বোর্ডকে মসলিনের ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করে। মসলিন উৎপাদনের প্রযুক্তি পুনরুদ্ধার করে বর্তমানে মসলিন তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রীকে মসলিন শাড়ী দেখানো হয়েছে। ব্রিটিশ জাদুঘরে যে শাড়ীটি পাওয়া গিয়েছিলো সেটা ছিলো ৫০০ কাউন্ট । এখন ৭০০ কাউন্টের সুতো দিয়ে মসলিন শাড়ি তৈরি করা হচ্ছে।  এই ঐতিহ্য আরও কিভাবে উন্নত করা যায় সরকার সে প্রচেষ্টা করছে।

তিনি আরও বলেন,  দ্রুত সময়ে আমরা বাণিজ্যিক উৎপাদনে যেতে পারবো। বিশ্ববাজারে যেতে আমাদের আর বেশি সময় লাগবে না। সরকার উদ্যোগ নিয়েছে এই ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে। আমরা ইতোমধ্যে এই টেকনোলজি রপ্ত করতে পেরেছি। আমরা ইতোমধ্যে শাড়ী তৈরি করে সফলতা পেয়েছি।

মন্ত্রী আরও বলেন, বাণিজ্যিকভাবে যেতে গেলে একটু সময় লাগবে তবে সেটা কঠিন নয়। আমাদের কোয়ালিটি ধরে রাখতে হবে। এছাড়া মসলিন জনগণের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকতে হবে। বাংলাদেশে একটি শাড়ী ৫-১০ লাখ টাকা হলে সেটার বিক্রয় কম হবে। আমাদের মূল হচ্ছে জনগণ। জনগণের কাছে যদি আমরা পৌঁছে দিতে পারি সেটাই হবে আমাদের বড় সফলতা। তাই আমরা প্রথমে শাড়ীটাকে নিয়ে কাজ করব এবং রফতানিসহ সব হবে।  বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড কর্তৃক বাস্তবায়িত এ প্রকল্পের মাধ্যমে ১৭০ বছর পূর্বে হারিয়ে যাওয়া বাংলাদেশের সোনালী ঐতিহ্য ও বিশ্ববিখ্যাত ব্রান্ড ঢাকাই মসলিন পনরুদ্ধার করে হৃত গৌরব ফিরিয়ে আনা হয়েছে।

গোলাম দস্তগীর গাজী আরও বলেন, ব্যাপক অনুসন্ধান ও গবেষণার মাধ্যমে মসলিনের কাঁচামাল ফুটি কার্পাস খুঁজে বের করা, ফুটি কার্পাসের চাষাবাদ, সুতা উৎপাদন, কারিগরদের দক্ষতা উন্নয়ন করে উন্নতমানের মসলিন উৎপাদন করা সম্ভব হয়েছে। মসলিনের ভৌগলিক নির্দেশক (জিআই) সনদ ও পেটেন্ট অর্জিত হওয়ায় দেশের ঐতিহ্যবাহী তাঁতশিল্পের টেকসই উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। ঐতিহ্যবাহী ঢাকাই মসলিন রপ্তানি করে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হবে এবং আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, রূপগঞ্জের তারাব পৌরসভার মেয়র হাছিনা গাজী, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবদুল মান্নানসহ প্রমুখ।

 

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

অর্থনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image