• ঢাকা
  • শনিবার, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ; ০৪ ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

ডিজিটাল শিক্ষার প্রধান চ্যালেঞ্জ তিনটি: টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ২০ নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১২:২৪ এএম
এ বিষয়ে সহায়তা করার আহ্বান জানান
mostofa jobbar

মোঃ নজরুল ইসলাম,  ময়মনসিংহ  ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য সম্পূর্ণ ডিজিটাল শিক্ষা নিশ্চিত করার বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গোটা শিক্ষা ব্যবস্থা ডিজিটাল রূপান্তরের বিকল্প কিছু নেই। এজন্য চ্যালেঞ্জ হচ্ছে ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি, ডিজিটাল সংযুক্তি এবং ডিজিটাল ডিভাইসের সহজলভ্যতা।  আমাদের মতো দেমের জন্য সবগুলো চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে এক ধাপে শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তর করাটা কঠিন বলে আমরা এখন ব্লেন্ডেড শিক্ষার পথ ধরে হাটছি।.

দুর্গম অঞ্চলসহ দেশের প্রতিটি ইউনিয়ন পর্যন্ত উচ্চগতির দ্রুতগতির ব্রডব্র্যান্ড সংযোগ স্থাপন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট এর মাধ্যমে দুর্গম ও প্রত্যন্ত চর-দ্বীপ অঞ্চলে সংযোগ প্রদান, ৫জির উদ্বোধন, দেশে ডিজিটাল যন্ত্র উৎপাদন এবং ডিজিটাল ডিভাইস সহজলভ্য করাসহ প্রাথমিক স্তর পর্যন্ত কনটেন্ট প্রস্তুত করার ফলে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা  কঠিন হবে না বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।.

বৃহ্স্পতিবার রাতে এটুআই এর উদ্যোগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ, আইসিটি বিভাগ, মেটা (ফেসবুক) এবং আইটিইউ আয়োজিত ইনক্লুসিভ একসেস ফর  ব্ল্যান্ডেড এডুকেশন ইন বাংলাদেশ শীর্ষক অনলাইনে প্যানেল ডিসকাশন অনুষ্ঠানে আলোচনাকালে এসব কথা বলেন।.

আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম –এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্যানেলিস্ট হিসেবে শিক্ষা মন্ত্রী ড. দীপু মনি, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, মেটা-এর  গ্লোবাল হেড অব কানেক্টিভিটি এন্ড একসেস পলিসি মনিকা দেশাই, আইটিইউ-এর  স্পেশাল ইনিসিয়েটিভ গিগা চীফ  এলেক্স অং আলোচনায় অংশ নেন। এটুআই প্রোগ্রামের  পলিসি এডভাইসার  অনির চৌধুরী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।.

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী  ডিজিটাল সংযোগকে ডিজিটাল বাংলাদেশের ব্যাকবোন হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, দেশের প্রায় প্রতিটি ইউনিয়ন পর্যন্ত উচ্চগতির ইন্টারনেট নিশ্চিত করতে  অপটিক্যাল ফাইভার সংযোগ পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। যে সব দুর্গম অঞ্চলে বিশেষ করে দ্বীপ, চর, পার্বত্য অঞ্চল এবং হাওর এলাকা যেখানে অপটিক্যাল ফাইভার সংযোগ পৌঁছানে সম্ভব নয় সে সকল অঞ্চলে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর মাধ্যমে সংযোগ প্রদানের কাজ শুরু হয়েছে। জনগণের দোরগোড়ায় ডিজিটাল সেবা নিশ্চিত করতে ডাকঘরসমূহকে ডিজিটাল সেবা কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে ডিজিটাল সংযোগ প্রদান করা হচ্ছে।.

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে ৫৮৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ফ্রি ওয়াইফাই জোন স্থাপন করা হয়েছে। দেশব্যাপি প্রত্যন্ত ও দুর্গম এলাকায় আরও ১২ হাজার ফ্রি ওয়াইফাই জোন স্থাপনের কাজ আমরা শুরু করেছি।.

মন্ত্রী আগামী ডিসেম্বরে বাংলাদেশ ফাইভ-জি প্রযুক্তি যুগে প্রবেশ করছে উল্লেখ করে বলেন, কৃত্রিমবুদ্ধিমত্তা, আইওটি , রোবটিক্স, ব্লকচেইন ইত্যাদি প্রযুক্তির অনুঘটক হিসেবে কাজ করবে ফাইভ-জি। এরই ধারাবাহিকতায় শিক্ষা, চিকিৎসা, শিল্প ও বাণিজ্যে বিস্ময়কর পরিবর্তন সূচিত হবে। এর ফলে ঢাকায় বসে চিকিৎসক ফাইভ- জি প্রযুক্তি ব্যবহার করে দুর্গম অঞ্চলের  রোগীর অপারেশন সম্পন্ন করতে পারবেন বলে মন্ত্রী দৃষ্টান্ত তুলে ধরেন। তিনি মেটাক ও আইটিইউকে দেশের ডিজিটাল অবকাঠামো গড়ে তোরায় সহায়তা করার আহ্বান জানান।.

শিক্ষামন্ত্রী দীপুমনি স্পষ্ট করে জানান যে সরকার ডিজিটাল রূপান্তরের জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। মেটা ও আইটিইউকে এ বিষয়ে সহায়তা করার আহ্বান জানান। তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী দেশের ডিজিটাল সংযুক্তির বিস্তার তুলে ধরে ফেসবুককে কেবল টেক্সট ব্রাউজিং ফ্রি না করে ইন্টারএ্যাকটিভ মাল্টিমিডিয়া কনটেন্টও ফ্রি করার আহ্বান জানান।.

অনুষ্ঠানে প্যানেলিস্টগণ স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠান ও সংস্থার বিষয় ভিত্তিক অগ্রগতি ও নীতিগত বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে আলোকপাত করেন.

.

ঢাকানিউজ২৪.কম /

তথ্যপ্রযুক্তি ও বিজ্ঞান বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image