• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০১ জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

ভারত হচ্ছে এশিয়ার ইসরায়েল: ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৭ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৪৪ এএম
ভারত এশিয়ার ইসরায়েল
বক্তব্য রাখছেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী

ডেস্ক রিপোর্টার: গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ভারতকে এশিয়ার ইসরাইল হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেন, ইসরায়েলের মত অমানবিক ঘটনা প্রতিদিনই এ অঞ্চলে ঘটিয়ে চলেছে ভারত।  বিকেলে ৪৬ তম ফারাক্কা লংমার্চ দিবস উপলক্ষে রাজশাহীর লালনশাহ মুক্তমঞ্চে আয়োজিত জনসভায় তিনি বক্তব্য রাখার সময় এসব কথা বলেন।

৪৬ তম ফারাক্কা লংমার্চ উদযাপন কমিটির আহবায়ক মাহবুব সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, নাগরিক ঐক্যের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল্লাহ কায়সার, প্রকৌশলী মো ইনামুল হক, রাস্ট্র সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম, গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক সহ অনেকে।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন, একাত্তরে যুদ্ধকালীন সময়ে সেক্টর কমান্ডার খালেদ মোশাররফ গুলি লেগে আহত হয়েছিলেন। তখন তাকে দেখতে ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরী ভারতের লখনোতে গিয়েছিলেন।' তিনি বলেন, সেখানে খালেদ মোশাররফ তাকে বলেন যে, ভারত আমাদেরকে সিকিম বানাতে চাচ্ছে। খালেদ মোশাররফ পরামর্শ দেন আমাদের যুদ্ধ করতে হবে ভারত থেকে নয়, অন্য কোথাও থেকে। ভারতের মতলব ভিন্ন, তারা আমাদেরকে স্বাধীন হতে দেবে না।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, খালেদ মোশারফের কথাই প্রতিধ্বনিত হয়েছে পরবর্তীতে। `ভারত ফারাক্কা ও তিস্তায় পানি প্রত্যাহার করে নিয়েছে, এখন তারা বলছে গম দেবেনা। এশিয়ার ইজরাইল হলো ভারত। ইজরাইল যেভাবে এক সাংবাদিককে গায়ে  প্রেস লেখা থাকা সত্ত্বেও গুলি করে হত্যা করেছে, এরকম ঘটনা তারা প্রতিদিন ঘটাচ্ছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী কে তারা মারে না, তবে অন্তরীণ করে রাখে। তার চারিদিকে ভারতীয় মোসাহেব ঘিরে থাকে, আমাদের আশা আকাঙ্ক্ষার কথা বলতে দেয় না, আমাদের গণতন্ত্রকে তারা হত্যা করেছে।'

তিনি বলেন, স্বাধীন জাতিসত্তা হিসেবে বেঁচে থাকতে হলে বাংলাদেশকে ভারত থেকে ভিন্ন চিন্তা করে এগোতে হবে। জাফরুল্লাহ চৌধুরী ফারাক্কা লংমার্চ এর নেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীকে স্মরণ করে বলেন, `তিনি এখনও বঞ্চিত মানুষের নেতা। তিনি ১৯৫৭ সাল থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার কথা বলে এসেছেন এবং সেজন্য ভারতীয় চর হিসেবে আখ্যা পেয়েছিলেন।'

সমাবেশ শেষে একটি মিছিল শহরের প্রধান কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ করে। মিছিলে নেতৃত্ব দেন জাফরুল্লাহ চৌধুরী। মিছিল শেষে সেই ঐতিহাসিক মাদ্রাসা ময়দান পরিদর্শন করেন যে মাদ্রাসা ময়দানে মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী লংমার্চে অংশ নিয়েছিলেন।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

রাজনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image