• ঢাকা
  • বুধবার, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৪ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৯ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান ভারত


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ৩০ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৬:৫৪ এএম
ক্রিকেট
চ্যাম্পিয়ান ভারতীয় দল

নিউজ ডেস্ক: বারবাডোজে অনুষ্ঠিত আইসিসি টি২০ বিশ্বকাপ ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৯ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান হয়েছে ভারত। খেলায় প্লেয়ার অব দ্যা ম্যাচ হয়েছেন বিরাট কোহলি। 

টি২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১৭৭ রানের লক্ষ্য দিয়েছে ভারত। প্রথমে ব্যাট করতে আসা ভারতীয় দল ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৭৬ রান করে। এভাবে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হতে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রয়োজন ১৭৭ রান।

 ভারতের হয়ে সবচেয়ে বেশি রান করেন বিরাট কোহলি। বিরাট কোহলি ৫৯ বলে ৭৬ রানের ইনিংস খেলেন। ইনিংসে মারেন ৬টি চার ও ২টি ছক্কা। এর আগে দুর্দান্ত ব্যাটিং দেখিয়েছিলেন অক্ষর প্যাটেল। 

রানআউট হওয়ার আগে ৩১ বলে ৪৭ রান করেন এই অলরাউন্ডার। নিজের ইনিংসে মারেন ১টি চার ও চারটি ছক্কা। শেষ ওভারে ১৬ বলে গুরুত্বপূর্ণ ২৭ রান যোগ করেন শিবম দুবে।

আসলে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালোই করেছিল ভারতীয় দল। বিরাট কোহলি ও রোহিত শর্মা প্রথম ওভারে ১৫ রান করলেও এর পর ধারাবাহিকভাবে উইকেট পতন শুরু হয়। রোহিত শর্মা ছাড়াও তাড়াতাড়ি প্যাভিলিয়নে ফেরেন ঋষভ পান্ত ও সূর্যকুমার যাদব। তবে বিরাট কোহলি এবং অক্ষর প্যাটেলের মধ্যে দুর্দান্ত জুটি ছিল।

৯ বলে ৫ রান করে আউট হন রোহিত শর্মা। কোনো রান না করেই চালিয়ে যান ঋষভ পন্ত। এই দুই ব্যাটসম্যানকেই আউট করেন কেশব মহারাজ। সূর্যকুমার যাদবও কাগিসো রাবাদার বোলিংয়ে আউট হন ৪ বলে ৩ রান করে। কিন্তু এর পর বিরাট কোহলি ও অক্ষর প্যাটেলের মধ্যে ৬২ রানের গুরুত্বপূর্ণ জুটি গড়ে ওঠে। 

অক্ষর প্যাটেল রান আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে গেলেও বিরাট কোহলি একটি উইকেট ধরে রাখেন। ইনিংসের ১৯তম ওভারে মার্কো ইয়ানসেনের বলে আউট হন বিরাট কোহলি।

দক্ষিণ আফ্রিকার বোলারদের কথা বলতে গেলে, কেশব মহারাজ এবং এরনিক নরখিয়া ২টি করে উইকেট নেন। এছাড়া ১টি করে সাফল্য পেয়েছেন মার্কো ইয়ানসেন ও কাগিসো রাবাদা।

শেষ ৩০ বলে ৩০ রান করতে হয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকাকে... ভারতীয় ভক্তরা হাল ছেড়ে দিয়েছিলেন। হেনরিক ক্লাসেন যেভাবে ব্যাট করছিলেন তাতে টিম ইন্ডিয়ার পরাজয় প্রায় নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু আসল রোমাঞ্চ বাকি ছিল, জসপ্রিত বুমরাহ ১৬তম ওভারে বল করতে এসেছিলেন, জসপ্রিত বুমরাহ ছিলেন ভক্তদের শেষ ভরসা... এই ওভারে দুর্দান্ত ব্যাটিং করা হেনরিখ ক্লাসেন এবং ডেভিড মিলার ৪ রান করতে পারেন, কিন্তু তা সত্ত্বেও , দক্ষিণ আফ্রিকা দলের জয় নিশ্চিত ছিল, জাসপ্রিত বুমরাহও বল করেছিলেন তার ৩ ওভার।

১৬তম ওভার

দক্ষিণ আফ্রিকার জয় প্রায় নিশ্চিত, ভারতীয় ভক্তদের চোখ স্থির ছিল জসপ্রিত বুমরাহর দিকে... তবে, জসপ্রিত বুমরাহ একটি উইকেট নিতে পারেননি, তবে খুব মিতব্যয়ী ওভার বোলিং করেছেন। এই ওভারে মাত্র ৪ রান করা হয়েছিল এবং ভারতীয় খেলোয়াড়দের উত্সাহ বাড়তে শুরু করে, বডি ল্যাঙ্গুয়েজ বদলাতে থাকে।

১৭তম ওভার

ভারতের হয়ে ১৭তম ওভার করতে আসেন হার্দিক পান্ডিয়া। এই ওভারের প্রথম বলেই, হার্দিক পান্ড্য হেনরিখ ক্লাসেনকে আউট করেন, যিনি ঝড়ো ব্যাটিং করছিলেন, কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকা তখনও উপরে ছিল, কারণ দ্বিতীয় বাঁদিকে থাকা বিপজ্জনক ডেভিড মিলার ভারতের জয়ে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল। হার্দিক পান্ডিয়া এই ওভারে মাত্র ৪ রান খরচ করেন, এবার ভারতীয় ভক্তদের আশা একটু বাড়তে শুরু করেছে।

১৮তম ওভার

১৮তম ওভার বল করতে আসেন জাসপ্রিত বুমরাহ। এতক্ষণে ভারতীয় ভক্তরা উৎসাহে ভরে গিয়েছিল, জসপ্রিত বুমরাহও হতাশ হননি। এই ওভারে তিনি মাত্র ২ রান খরচ করেন এবং মার্কো জ্যানসেনের মূল্যবান উইকেটও নেন। এখন ভারত সম্পূর্ণরূপে ম্যাচে ছিল, কিন্তু ডেভিড মিলার দৃঢ়ভাবে দ্বিতীয় বাম দিকে ছিল।

১৯তম ওভার


১৯তম ওভার বল করতে আসেন আরশদীপ সিং। এখন দক্ষিণ আফ্রিকার দরকার ১২ বলে ২০ রান, চোখ ছিল ডেভিড মিলারের দিকে, ডেভিড মিলার দাঁড়িয়ে ছিলেন ভারত এবং জয়ের মাঝে। এই ওভারে ডেভিড মিলার এবং কেশব মহারাজ মাত্র ৪ রান করতে পারেন, এখন পুরো স্টেডিয়াম ভারতীয় সমর্থকদের প্রতিধ্বনিতে মুখরিত, ভারতীয় খেলোয়াড় ছাড়াও ভক্তদের আত্মবিশ্বাস ফিরে এসেছে।

২০তম ওভার

হার্দিক পান্ডিয়ার হাতে বল আর দক্ষিণ আফ্রিকান ভক্তদের আশা ডেভিড মিলার... কিন্তু প্রথম বলেই ডেভিড মিলার প্রায় ছক্কা হাঁকাতেই ভারতীয় ভক্তদের নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে গেল, কিন্তু সূর্যকুমার যাদব কোথায় হার মানবেন...? অবাক করা ক্যাচ নিয়ে সবাইকে চমকে দিলেন এই ভারতীয় খেলোয়াড়। দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানরা শেষ ৫ বলে ৮ রান যোগ করতে পারে, এইভাবে টিম ইন্ডিয়া ৯ রানে জিতেছে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এসডি

আরো পড়ুন

banner image
banner image