• ঢাকা
  • শুক্রবার, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৯ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

'দুর্নীতির কারণে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হচ্ছে'


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শুক্রবার, ২১ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১২:৩৬ এএম
দুর্নীতির কারণে, সরকারের, ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হচ্ছে, মোমেন
সংসদে সংসদ সদস্য ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

নিউজ ডেস্ক : সরকারি দলের সংসদ সদস্য ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন দুর্নীতিকে সরকারের প্রবৃদ্ধির প্রধান প্রতিবন্ধকতা হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। 

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে একথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ১৬ বছর ধরে যে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা করেছেন, তা বিশ্ববাসীর কাছে বিস্ময়কর। তবে দুর্নীতির কারণে এই প্রবৃদ্ধি ধরে রাখা কঠিন হয়ে পড়েছে।

মোমেন উল্লেখ করেন, দুর্নীতির কারণে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হচ্ছে, প্রকল্পগুলো যথাসময়ে শেষ হয় না, খরচ বেড়ে যায়, এবং জনগণের হয়রানি বাড়ে। কিছু আমলা দুর্নীতিপরায়ণ হয়ে উঠেছেন, যা সাধারণ জনগণের হয়রানির কারণ হচ্ছে। তিনি বলেন, অল্প কিছু দুর্নীতিপরায়ণ আমলার জন্য পুরো আমলাতন্ত্র বদনামের শিকার হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছেন, যা এবারের বাজেটে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে দুর্নীতি ও বিদেশে টাকা পাচার বন্ধের জন্য নির্দেশনা ও যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের প্রস্তাব করা হয়েছে, যা জনগণের আস্থা অর্জনে সহায়ক হবে। সরকারি কর্মচারীদের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের বার্ষিক হিসাব বাধ্যতামূলক করার বিষয়টিও এখন সময়ের দাবি।

মোমেন আরও বলেন, স্বচ্ছতা, জবাবদিহি ও কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করলে দুর্নীতি কমবে। জনপ্রতিনিধি হিসেবে সাধারণ নাগরিকদের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক, এবং বর্তমান পরিস্থিতিতে নাগরিকরা প্রধানমন্ত্রীর দিকে তাকিয়ে আছেন।

তিনি আরও উল্লেখ করেন, সাধারণ নাগরিকদের মধ্যে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, অধিকতর কর্মসংস্থান, রাজস্ব বৃদ্ধি এবং প্রশাসনের হয়রানি নিয়ে বড় প্রশ্ন রয়েছে। দেশে যথেষ্ট কর্মসংস্থান না থাকায় প্রতিবছর হাজার হাজার কর্মক্ষম মানুষ বৈধ ও অবৈধ পথে বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছেন।

মোমেন বলেন, কর্মসংস্থান বা উদ্যোক্তা সৃষ্টি সাধারণত প্রাইভেট সেক্টর করে থাকে, এবং তাদের যথেষ্ট ব্যাংক ঋণ নেওয়ার সুযোগ থাকা উচিত। এবারের বাজেটে বাজেট ঘাটতি মেটানোর জন্য ১ লাখ ৩৭ হাজার কোটি টাকা ব্যাংকিং খাত থেকে ঋণ নেওয়া হচ্ছে, যা বেসরকারি বিনিয়োগকারীদের ঋণ থেকে বঞ্চিত করতে পারে।

তিনি উল্লেখ করেন, ব্যাংকের বর্তমান পরিস্থিতি বেহাল, এবং বাজেটে এর প্রতিকারের ব্যবস্থা করলে জনমনে আস্থা ফিরিয়ে আনা সম্ভব হতো। বরং কালো টাকাকে ১৫ শতাংশ কর দিয়ে সাদা করার ঘোষণায় সৎ করদাতারা হতাশ হয়েছেন, এবং কালো টাকা সাদা করার সুযোগের পরিমার্জন প্রয়োজন।

মোমেন বলেন, দেশের স্বার্থে, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন সোনার বাংলা অর্জনে, সাদাকে সাদা, কালকে কালো না বললে শেখ হাসিনা সরকারের প্রতি অবিচার করা হবে। অর্থমন্ত্রী বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়ে জনগণের প্রত্যাশা পূরণে যা যা প্রয়োজন, তা করবেন বলে বিশ্বাস করেন মোমেন।

 

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image