• ঢাকা
  • শনিবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২১ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

এসও ব্যবসায়ীরা ভোজ্যতেলের বাজার কারসাজির বড় হোতা


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ০৪ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০২:৫৫ পিএম
ভোজ্যতেলের বাজার কারসাজি
ভোজ্যতেল

ডেস্ক রিপোর্টার: খুচরা ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, ভোজ্যতেলের বাজার কারসাজির বড় হোতা সাপ্লাই অর্ডার (এসও) ব্যবসায়ীরা। এই ব্যবসায় জড়িত দালালদের কথাতেও মেলে সত্যতা।

মিলরেটের থেকেও বিক্রি করেন বেশি দামে। যার পুরোটাই শেষ পর্যন্ত দিতে হয় ভোক্তাকে। ভোজ্যতেলের বাজার অস্থির করা এ এসও ব্যবসার বিভিন্ন দিক উঠে এসেছে সময় সংবাদের অনুসন্ধানে।

ভোজ্যতেলের সরবরাহ সংকটের কারণ হিসেবে বারবারই সামনে আসছে যে এসও ব্যবসা, সেই ব্যবসা সম্পর্কে জানতে সময় সংবাদ হাজির হয় ঢাকার মৌলভীবাজারের গুলবদনে।

বলা হয়ে থাকে, দেশে ভোজ্যতেলের বাজার যে দুটি স্থান থেকে নিয়ন্ত্রণ হয়ে থাকে; তার একটি চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ আরেকটি এই সুপার মার্কেট।

ব্যবসা বোঝার আগে চলুন বুঝে আসি এসও আসলে কী? সহজ কথায় কারখানা থেকে কোনো পণ্য কিনলে, পরিমাণ ও দাম উল্লেখ করে ক্রেতাকে যে চুক্তিপত্র দেওয়া হয় তাই-ই এসও। এর মেয়াদ থাকে ১৫ দিন। এটি বিক্রি করা আইনত অপরাধ।

সকাল থেকে বেশ ঠান্ডা গুলবদনে দুপুর হতেই বাড়তে থাকে মানুষের আনোগোনা-দালালদের দৌরাত্ম্য। অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে কিছুটা আঁচ পাওয়া গেল কেমন রমরমা এই এসও ব্যবসা।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে একজন বলেন, ‘এই ব্যবসা কইরেন না, সব চলে যাবোগা (যাবে)। দিনে একশ বাড়ে, আবার দুইশ কমে যায়গা (যায়), শেয়ার ব্যবসা আছে না? ঠিক তেমনি।’

কয়েক ঘণ্টার চেষ্টায় নিজেদের ব্যবসায়ী হিসেবে প্রমাণ করতে পারায় অবশেষে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলেন দুজন। জানালেন এই ব্যবসার সাতকাহন।

খুচরা ব্যবসায়ী একজন বলেন, ‘ভোক্তা অধিকার বাইরের লোক নিয়ে এসে সমস্যা করেছে কিছুদিন আগে। এর কারণে আউটলোক বা বাইরের লোকরে কেউ রেটও দেব না মালও দেব না। এক গাড়ি মাল বেচতে ভয় লাগে ভাই; ২০ লাখ টাকার ওপরে। এখানে এই জায়গা হলো বিশ্বাসের জায়গা। কেউ কারও টাকা মাইরা খাইতে পারব না। টাইনে (টেনে) নিয়া আসব বাসা থেকে। এখানে টাকা ঢুকলে আপনি মাল পাবেন প্রথম অবস্থায়। দ্বিতীয় অবস্থায় পরিচিতি হলে আজকে নিছেন কালকে টাকা দেবেন।’

চেনা জায়গায় চেনা মানুষ যেখানে দাপটের সঙ্গে ভোক্তার অধিকারকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আসছে দিনের পর দিন, সেখানে কী করছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর?

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বলেন, খাতুনগঞ্জ চট্টগ্রাম এবং মৌলভীবাজার ঢাকা এরাই আসলে সারা দেশে তেলের ডিলারদের এই যে এসও, এটা নিয়ন্ত্রণ করে। এ এসও জায়গাটাতেই মূল ঘাপলাটা হচ্ছে। আমরা মিল থেকে কিন্তু সব তথ্যটা পাচ্ছি। মৌলভীবাজারে দুই থেকে তিনজন এসও ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।  

প্রতিদিন দুই থেকে তিন ঘণ্টার রমরমা এই ব্যবসায় সামনে আসে না ভোজ্যতেলের চাহিদা-জোগান আর দাম নিয়ন্ত্রণকারী এসও। মুখে মুখে হাত বদলেই বাড়ে মূল্যবান কাগজটির দাম। আর এভাবেই অতি মুনাফার জোগান দিতে গিয়ে মাঝে মাঝেই বাজার থেকে হারিয়ে যায় সয়াবিন ও পামতেল।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

অর্থনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image