• ঢাকা
  • শনিবার, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০১ অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

বিরামপুরে লিচুর বাগান থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ১৭ আগষ্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১২:৪১ পিএম
যুবকের
লাশ উদ্ধার

বিরামপুর প্রতিনিধি, দিনাজপুর: দিনাজপুর বিরামপুর পৌর শহরের দোশরা পলাশবাড়ী লিচু বাগান থেকে মাহবুব আলম সাকিব (১৮) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে বিরামপুর থানা পুলিশ।  মঙ্গলবার (১৬ আগষ্ট ) বৈকাল ৪ ঘটিকার সময় বিরামপুর পৌর শহরের দোশরা পলাশবাড়ী মৃত্যু খাজের উদ্দিন প্রফেসরের লিচু বাগান থেকে মাহবুব আলম সাকিব (১৮) নামে ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

উক্ত নিহত মাহবুব আলম সাবিক (১৮) দিনাজপুরের পার্বতীপুর থানার সংকরপুর গ্রামের মিন্ঠু প্রামাণিকের ছেলে বলে বিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) নওয়াবুর রহমান নিশ্চিত করেছেন বলে জানা যায়।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (বিরামপুর -নবাবগঞ্জ) সার্কেল এএসপি ওহেদুন্নবী, বিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) নওয়াবুর রহমান ও এসআই এরশাদ মিয়াসহ পুলিশের একটি টিম ও দিনাজপুর পিবিআই এর একটি টিম ঘটনাস্থল সরজমিনে পরির্দশন করেছেন।

এবিষয়ে বিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) নওয়াবুর রহমান জানান,বিকালে পৌর শহরের দোশরা পলাশবাড়ী মৃত খাজের উদ্দিন প্রফেসরের লিচু বাগানে লাশটি পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন মোবাইল ফোনে থানা পুলিশকে খবর দেয়। এমতাবস্থায় বিরামপুর থানা পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থল গিয়ে তার মানিব্যাগে থাকা জন্ম নিবন্ধন ও কাগজে লেখা মোবাইল নম্বরের সুত্রধরে নিহতের নানার মাধ্যমে তার পরিচয় নিশ্চিত হয়।

নিহতের পরনে লুঙ্গি,গায়ে গেঞ্জি,১টি মানিব্যাগ ও ১টি জন্ম নিবন্ধন কার্ড পাওয়া গেছে। তার মাথায় থেতলানো আঘাতের চিহ্ন ও গলায় গামছা পেচানো ছিল। তবে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে এটা একটি পরিকল্পিত হত্যা। কি কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে তা এই মুর্হুতে বলা যাচ্ছে না। তবে লাশটি ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হবে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এবিষয়ে স্হানীয় জনসাধারণের নিকট জানতে চাইলে তারা বলেন,বিরামপুর শহরের মধ্যে বিভিন্ন স্হানের বাগান ও পরিত্যক্ত জায়গায় উড়তি বয়সের মাদকাসক্ত ছেলের দল ও শহরের বাহিরে থেকে বিভিন্ন ধরনের ছেলেরা বিরামপুরে অবস্থান করে থাকে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা যদি জোরালো ভাবে কাজ করত তবে এমন ঘটনা হতে পারতো না বলে মন্তব্য করেন।

তারা আরও বলেন,আইনের কড়া পরিদর্শনের চিত্র নিম্ন পর্যায়ে নেমে এসেছে বলে জানান। উক্ত বিরামপুর শহরকে সূ-শৃংঙ্খলা বজায় রাখতে উর্ধ্বত্বন কৃর্তপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।।

ঢাকানিউজ২৪.কম / মোঃ রেজওয়ান আলী/কেএন

অপরাধ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image