• ঢাকা
  • সোমবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৩ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী তৃতীয়বার মেয়র পদে নির্বাচিত


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৮:৩৩ পিএম
ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী পেয়েছেন ১ লাখ ৬১ হাজার ২৭৩ ভোট।
হ্যাটট্রিক করলেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী

নিউজ ডেস্ক:  হ্যাটট্রিক করলেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আইভী পরপর তৃতীয়বার মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছেন।নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী পেয়েছেন ১ লাখ ৬১ হাজার ২৭৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির থেকে অব্যাহতি পাওয়া স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার পেয়েছেন ৯২ হাজার ১৭১ ভোট। তিনি হাতী প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন। সেলিনা হায়াৎ আইভী ৬৯ হাজার ১০২ ভোটের ব্যবধানে নির্বাচনে জয় পেয়েছেন।

রবিবার সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়ে বিকেল চারটা পর্যন্ত চলে ভোট গ্রহণ। সিটি করপোরেশনের ২৭টি সাধারণ ওয়ার্ডে এবং নয়টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মোট ১৯২টি ভোটকেন্দ্রে এই ভোট শুরু হয়। ইসি সচিবের তথ্যমতে, নির্বাচনে ৫০ শতাংশ ভোট পড়েছে।

এর আগে, ২০০৩ সালে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে রাজনীতিতে সক্রিয় হন তিনি। জয়ীও হন বিপুল ভোটে। টানা আট বছর পৌর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন সেলিনা হায়াৎ আইভি। তারপর ২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন গঠিত হলে মেয়র নির্বাচিত হন তিনি। আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকলেও সেবারের নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন তিনি।

মূল প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। তাকে ১ লাখের বেশি ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে নারায়ণগঞ্জ নগরভবনের দায়িত্ব নেন সেলিনা হায়াৎ আইভি। সে সময়েও নির্বাচনে প্রার্থী ছিলেন বিএনপির মনোনীত প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার। তবে, মাঝরাতে কেন্দ্রের নির্দেশে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান তিনি। এরপর ২০১৬ সালে তার ওপর আবারও আস্থা রাখেন নারায়ণগঞ্জবাসী। প্রায় ৮০ হাজার ভোটের ব্যবধানে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির সাখাওয়াত হোসেন খানকে পরাজিত করেন আইভী।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

রাজনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image