• ঢাকা
  • শুক্রবার, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৯ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

রাসেল'স ভাইপার নিয়ে যা বললেন ‘অল্প সময়ে বেশি বিষ ঢেলে’


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০২ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০:২৪ এএম
‘অল্প সময়ে বেশি বিষ ঢেলে’
রাসেল'স ভাইপার নিয়ে যা বললেন

নাজমুল হোসেন, নিজস্ব প্রতিবেদক : সাপ বিষয়ক গবেষকরা বলছেন, বিশ্বে এখন পর্যন্ত সাড়ে ৩ হাজারের কিছু বেশি প্রজাতির সাপের সন্ধান পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ৭'শ প্রজাতির সাপের বিষ থাকলেও সবগুলোর কামড়ে মানুষ মারা যায় না। ১ ছোবলে মানুষের মৃত্যু হতে পারে, এমন বিষধর সাপের সংখ্যা ২'শ ৫০।

অল্প সময়ে বেশি বিষ দেয় রাসেলস ভাইপার। এই সাপ ডিম দেয় না, তবে বাচ্চা দেয়। বাচ্চা বড় হতে ৬ থেকে ৭ মাস সময় লাগে। প্রতি বছর জুন থেকে জুলাই মাসে বাচ্চা দেয় রাসেল'স ভাইপার। রাসেল'স ভাইপার ৪০ মিলি গ্রাম বিষ দিলে সেই মানুষ মারা যাবে। তবে তাদের শরীরে সর্বোচ্চ ২'শ থেকে ২'শ ৫০ মিলি পর্যন্ত বিষ থাকে।

লক্ষ্মীপুর জেলায় রাসেল'স ভাইপার নিয়ে জনসচেতনতামূলক আলোচনা সভায় তথ্য উঠে আসে।

দেশব্যাপী বহুল আলোচিত রাসেলস ভাইপার (চন্দ্রঘোড়া) সাপের প্রাদুর্ভাব সম্পর্কে জনসচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আজ সোমবার (১ জুলাই) দুপুরের দিকে লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে উপকূলীয় বন বিভাগ, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুরের যৌথ আয়োজনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক (ডিসি) সুরাইয়া জাহানের সভাপতিত্বে আয়োজিত সভায় বক্তব্য দেন, বন অধিদপ্তরের বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের পরিচালক মো. ছানা উল্যা পাটওয়ারী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবি সিদ্দিক, লক্ষ্মীপুর সিভিল সার্জন ডা. আহাম্মেদ কবির, বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবু ইউসুফ, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আরিফুর রহমান, লক্ষ্মীপুর ফায়ার সার্ভিসে স্টেশন অফিসার রনজিত কুমার প্রমুখ।

সভায় বন অধিদপ্তরের বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের পরিচালক মো. ছানা উল্যা পাটওয়ারী জানান, পৃথিবীতে ৪  হাজার ৭৩ প্রজাতির সাপ আছে। এর মধ্যে ২০ শতাংশ সাপ বিষধর। বাকী ৮০ শতাংশ সাপ বিষধর নয়। বিশ্বে বছরে ৬-৭ হাজার মানুষ সাপের কামড়ে মারা যায়। আক্রান্ত হয় ৪-৬ লাখ মানুষ। তবে অনেকে না জেনে বিভিন্ন প্রজাতির সাপ মেরে ফেলছে। তাই কোন সাপ বিষধর তা জানা এবং কেউ আক্রান্ত হলে দ্রুত রোগীকে উপজেলা স্বাস্থ্য হাসপাতাল অথবা জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দিলে রোগী দ্রুত সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। দেরি হলে অনেক সাপে আক্রান্ত রোগীর মারা যেতে পারে।

বাংলাদেশে ১'শ ১৯ প্রজাতির সাপ রয়েছে। এর মধ্যে সামুদ্রিক ১৬ প্রজাতির সাপ বিষধর। মূলত যেসব সাপ কামড় দিয়ে ছেড়ে দেয় সেইগুলো বিষধর। আর যারা খাবার খাওয়ার সময় প্যাচ দিয়ে থাকে তারা বিষধর না। দেশে গোখরা, কেউটে, রাসেল'স ভাইপার, সবুজ ঘোড়া, সামুদ্রিক সাপ বিষধর।

দেশের রাজশাহীসহ অনেক জেলায় রাসেল'স ভাইপার সাপ আছে। ২০১৫ সালের গবেষণা অনুযায়ী লাল তালিকার রাসেল'স ভাইপার সংকটাপন্ন।

রাসেল'স ভাইপার রয়েছে ৬ষ্ঠ স্থানে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে মানুষ সবচেয়ে বেশি যে ৪টি সাপের কামড়ের শিকার হয়, রাসেল'স ভাইপার সেগুলোরই মধ্যে একটি। ইন্ডিয়ান কোবরা, ক্রেইট বা কেউটে, স-স্কেলড ভাইপার এবং রাসেল'স ভাইপারকে গবেষকরা একত্রে ‘দ্য বিগ ফোর’ নামে ডেকে থাকেন।

এ সময় লক্ষ্মীপুর জেলার বিভিন্ন উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা, বন বিভাগের কর্মকর্তা, কর্মচারী, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image