• ঢাকা
  • বুধবার, ১৩ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ; ২৬ জানুয়ারী, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

রাতে হাইকোর্টের দুটি বেঞ্চ পুনর্গঠন করলেন প্রধান বিচারপতি


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১২:৫৯ পিএম
প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন
high court

নিউজ ডেস্ক:   দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একজন কর্মকর্তাকে সার্বক্ষণিক হাইকোর্টে রাখার বিষয়ে দুই বিচারপতির মতপার্থক্যে হঠাৎ বন্ধ হয়ে যায় বিচারকাজ। এরপর সারাদিন ওই বেঞ্চে বিচারকাজ চলেনি। বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ভার্চুয়াল বেঞ্চে গতকাল বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে। এমন পরিস্থিতিতে রাতে নতুন করে হাইকোর্টের দুটি বেঞ্চ পুনর্গঠন করে দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন।

সূত্র জানায়, মতপার্থক্য দেখা দেওয়ায় সকালের ঘটনা বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি প্রধান বিচারপতিকে অবহিত করেন। এরপরই বেঞ্চ পুনর্গঠন করা হয়। সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হক সমন্বয়ে নতুন বেঞ্চ গঠন করা হয়েছে। এই বেঞ্চের কনিষ্ঠ বিচারপতি এম এস মজিবুর রহমানকে নিয়ে পুনর্গঠন করা হয় অপর আরেকটি বেঞ্চ। নবগঠিত অপর বেঞ্চটি বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমান সমন্বয়ে গঠন করা হয়েছে। আগামী রোববার থেকে এই দুটি বেঞ্চে বিচারকাজ পরিচালিত হবে।

শুনানিতে যুক্ত থাকা একাধিক আইনজীবী জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ভার্চুয়াল বেঞ্চে বিচারকাজ শুরু হয়।

তখন দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, বুধবার আদালত মৌখিকভাবে আদেশ দিয়েছিলেন (সার্বক্ষণিক দুদকের একজন কর্মকর্তাকে সংশ্নিষ্ট বেঞ্চে রাখা)। তবে এখন কমিশনে জনবলের সংকট আছে। সার্বক্ষণিক একজন লোক দিতে কিছুটা সময় লাগবে। বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, কখনও কখনও দুদকের আইনজীবী থাকেন না। আদালতের আদেশ যথাযথভাবে দুদকে কমিউনিকেটও হয় না। খুরশীদ আলম খান বলেন, কর্মকর্তা না দেওয়া পর্যন্ত দুদকসংশ্নিষ্ট বিষয়ে তাকে জানানো হলে, তিনি তা দুদককে অবহিত করবেন।

এ সময় বেঞ্চের অপর বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমান বলেন, দুদকের কি আর কাজ নেই। একজন অফিসার এখানে এসে বসে থাকবেন। নেতৃত্বদানকারী বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, সেকেন্ড জজ এত কথা বললে সমস্যা। আদালতের ডেকোরাম আছে। জবাবে অপর বিচারপতি বলেন, তাহলে বেঞ্চে দুই বিচারপতি রাখার দরকার কী? একপর্যায়ে জ্যেষ্ঠ বিচারপতি এজলাস ত্যাগ করেন। এ সময় রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমিন উদ্দিন মানিক উপস্থিত ছিলেন।

সংশ্নিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, 'কানিজ ফাতেমা বনাম রাষ্ট্র এবং অন্য' শিরোনামে ১৭ নভেম্বর ওই বেঞ্চের কার্যতালিকার ৪ নম্বর ক্রমিকে ফৌজদারি বিবিধ মামলা ছিল। ক্রমানুসারে মামলাটি শুনানির জন্য উঠলে দুদকের পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। রাষ্ট্রপক্ষের মাধ্যমে অবহিত হয়ে দুদকের সমন্বয়ক আবদুস সালম ভার্চুয়ালি আদালতে যুক্ত হন।

দুদকের পক্ষে ওই মামলা পরিচালনার জন্য নতুন করে একজন আইনজীবীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে আদালতকে জানান তিনি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে দুদকের পক্ষ থেকে আইনজীবী না থাকা এবং অনেক সময় আদালতের আদেশ দুদকে যথাযথভাবে কমিউনিকেট না হওয়ার বিষয়টি শুনানিতে আসে। পরে সার্বক্ষণিক দুদকের একজন কর্মকর্তাকে সংশ্নিষ্ট বেঞ্চে রাখতে মৌখিকভাবে বলা হয়। ভার্চুয়াল আদালতের কার্যক্রম শুরুর আগে বেঞ্চটিতে দুদকের একজন প্রতিনিধি উপস্থিত থাকতেন।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

আইন ও আদালত বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image