• ঢাকা
  • শনিবার, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৩ ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

বিউটির পিত্তথলির ভুল অপারেশনে নালী কাটলেন চিকিৎসক


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ০৩ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৫:০২ পিএম
বিউটির
পিত্তথলির ভুল অপারেশন

বিজয়কর রতন, মিঠামইন (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ কিশোরগঞ্জে একটি বেসরকারি হাসপাতালে পিত্তথলির পাথর অপসারণ করতে গিয়ে পিত্তনালি কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। পরে রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে এক বছর ধরে চিকিৎসা করিয়ে রোগীর অবস্থা এখন কিছুটা ভালো। তবে এই চিকিৎসা করাতে গিয়ে পরিবারটি প্রায় নিঃস্ব হয়ে গেছে। শহরের হয়বতনগর এলাকায় ‘দ্য খিদমাহ জনতা হসপিটাল’ এর পরিচালক চিকিৎসক আব্দুল মজিদের বিরুদ্ধে গত ২৫ অক্টোবর জেলার সিভিল সার্জন ও ২৭ অক্টোবর কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী বিউটি আক্তারের স্বামী মুজিবুর রহমান।

আব্দুল মজিদ নিয়মিত অপারেশন করলেও তিনি সার্জারির চিকিৎসক নন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যদিও এই অভিযোগ স্বীকার করতে চান না তিনি।পরিবারটির অভিযোগ পাওয়ার পর সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই কমিটির প্রতিবেদন পেলে ব্যবস্থা নেবেন বলে জানিয়েছেন। পরিবারটিকে এক লাখ টাকা দিয়ে চিকিৎসক মজিদ সমঝোতা করতে চেয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন মুজিবুর।

তবে তিনি সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন। যদিও চিকিৎসক মজিদ এই তথ্য অস্বীকার করেছেন। মজিবুর জানান, ২০২১ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সকালে তার স্ত্রী বিউটি আক্তারের পিত্তথলিতে পাথরের অপারেশন করতে খিদমাহ হসপিটালে নিয়ে যান। সেদিন বেলা ১১টার দিকে হয় অপারেশন। ৬ সেপ্টেম্বর রিলিজ করে বাসায় নিয়ে আসেন। 

কয়েকদিন পরেই রোগীর শারীরিক অবনতি ঘটে। পরে ১৮ সেপ্টেম্বর শহরের মেডিল্যাব হেলথ সেন্টারে চিকিৎসক এস কে এম নাজমুল হাসানকে দেখানোর পর পরীক্ষা-নিরীক্ষায় ধরা পড়ে অপারেশনের সময় পিত্তথলির পাশাপাশি নালিও কেটে ফেলা হয়েছে। পরদিন শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বিউটিকে। 

অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতাল, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে দেখানো হয়। চিকিৎসকের পরামর্শে গত ২৬ সেপ্টেম্বর ল্যাবএইড হাসপাতালে আবার অপারেশন করা হয়। বিউটি আক্তার বলেন, ‘খিদমাহ্ হসপিটালে পরামর্শের জন্য গেলে ডাক্তার আব্দুল মজিদ বলেছিলেন, কোনো কাঁটাছেড়া ছাড়াই ছিদ্র করে অপারেশন হবে। 

পরে জানান, আমার শরীরে চর্বির পরিমাণ বেশি, তাই কেটেই অপারেশন করতে হবে। তনি বলেন, ‘গত একটি বছর ধরে খুব কষ্টে দিন পার করছি। আমার মতো এমন ভুল চিকিৎসার শিকার যেন আর কেউ না হয়।’ কিশোরগঞ্জের সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক মজিবুর রহমান বলেন, ‘পিত্তনালির অনেক অংশ আছে। এগুলোর কোনো একটা অংশ কেটে গেলে একেকজনের একেক ধরনের সমস্যা হতে পারে। 

তিনি বলেন, ‘পিত্তথলির পাথরের অপারেশন করতে গিয়ে বিভিন্ন জটিলতার যেটা কাটা পড়তে পারে বা আপনি যেটা বুঝাতে চেয়েছেন সেটা কাটা পড়লে শরীরের বিভিন্ন অংশে জীবাণু ছড়িয়ে যেতে পারে। তবে এটা যারা জাতীয় পর্যায়ের বা বড় মাপের দক্ষ সার্জন তারা সেটা রিকভার করতে পারেন। রিকভার হয়ে গেলে রোগীর তেমন সমস্যা হয় না।’ পরিবারটি এখন নিঃস্বপ্রায় খিদমায় ভুল অপারেশনের পর স্ত্রীর চিকিৎসায় স্বর্ণালংকার ও পৈতৃক জমিজমা বিক্রি করে প্রায় ১২ লাখ টাকা খরচ করতে হয়েছে বলেও জানান মুজিবুর। 

চিকিৎসা শেষে খিদমাহর পরিচালক আব্দুল মজিদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেছেন, ‘বাড়াবাড়ি করার দরকার নেই। আমি আপনাকে এক লাখ টাকা দিয়ে দেই।’ বিউটির প্রতিবেশী হৃদয় আহমেদ বলেন, ‘ডা. মজিদের কারণে পরিবারটি নিঃস্ব হওয়ার পথে। চিকিৎসা করতে গিয়ে সব কিছু বিক্রি করে পরিবারটি এখন অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছে।’ জানতে চাইলে খিদমাহ হসপিটালের পরিচালক আব্দুল মজিদ বলেন, ‘চিকিৎসা কখনও ভুল হয় না। সব চিকিৎসায় কমপ্লিকেশন আছে, হতে পারে।’ বিউটির স্বামীর সঙ্গে টাকা-পয়সা নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘চিকিৎসার ব্যাপারে স্থানীয় কমিশনার এক দিন কথা বলতে এসেছিলেন।’ আপনি তো সার্জারির চিকিৎসক না, অপারেশন করেন কেন- এমন প্রশ্নে মজিদ বলেন, ‘এই অভিযোগ ভিত্তিহীন। আমি সার্জারির চিকিৎসক।’ কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘ভিকটিমের পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ আব্দুল মজিদ সার্জারির চিকিৎসক কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়টিও তদন্ত কমিটি দেখবে।’ কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ দাউদ বলেন, ‘ভুক্তভোগীর স্বামী থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। এ বিষয়ে ঔষধ প্রশাসন ও সিভিল সার্জনের পক্ষ থেকে নির্দেশ পেলেই আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

সারাদেশ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image