• ঢাকা
  • সোমবার, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ১৫ আগষ্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

অর্পিতাকে তেমনভাবে চেনেন-ই না পার্থ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ০৬ আগষ্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১২:০০ পিএম
অর্পিতাকে তেমনভাবে চেনেন-ই না পার্থ
পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও অর্পিতা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্টের (ইডি) কর্মকর্তারা বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) এসএসসি নিয়োগ দুর্নীতি কাণ্ডে অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের মুখোমুখি বসিয়ে পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে জেরা করেন। ইডি-র জেরাতেই অর্পিতাকে তেমনভাবে না চেনার দাবি পার্থ চট্টোপাধ্য়ায়ের।
 
শুধু তাই নয়, ইডি-র প্রশ্নের মুখে পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান, অর্পিতা তার ঘনিষ্ঠ নন। তিনি মাঝে মাঝে দেখেছেন অর্পিতাকে। অনেকেই আসত তার কাছে। নাকতলার পুজোর সময় দেখেছেন অর্পিতাকে।  পাশাপাশি, অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের ডায়মন্ড সিটি সাউথ ও রথতলা ক্লাব টাউনের ফ্ল্যাটে পাওয়া টাকাও কোনওভাবেই তার নয় বলেও ইডির জেরায় দাবি করেছেন তিনি। সেইসঙ্গে তার আরো দাবি, তিনি জানেনও না উদ্ধার হওয়া টাকা কার!

এদিকে অর্পিতা জেরায় বার বার সাবেক এই মন্ত্রীর সঙ্গে তার সর্ম্পকের কথা জানিয়েছেন।

ইডির জেরায় অর্পিতা জানিয়েছেন, পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রীর মৃত্যুর পর তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। তার ভাষায়, ‘বয়সের পার্থক্য থাকলেও পার্থদা আমার ভালো বন্ধু।’

শুক্রবার ব্যাংকশাল আদালতে নিয়ে যাওয়ার আগে অর্পিতাকে নিয়ে আসা হয় জোকার ইএসআই হাসপাতালে। সেখানে স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়ে আসেন তিনি। এরপরই তাকে নিয়ে ইডির কর্মকর্তারা ব্যাংকশাল আদালতের দিকে রওনা দেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘যা বলার ইডিকে বলেছি।

প্রাণ সংশয়ের ভয় থেকে কারাগারে প্রথম শ্রেণীর বন্দি হিসেবে থাকতে চান বলে জানিয়েছেন শিক্ষা দফতরের নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার হওয়া অর্পিতা। শুক্রবার এই মামলায় ইডির বিশেষ আদালতে এমন আর্জি জানিয়েছেন তার আইনজীবীরা। এদিন আদালতের নির্দেশে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে পাঠানো হয়েছে অর্পিতাকে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, এদিন ইডির বিশেষ আদালতে মামলা চলাকালে অর্পিতার আইনজীবী বলেছেন, অর্পিতাকে প্রথম শ্রেণির বন্দির মর্যাদা দেওয়া হোক। একইসঙ্গে তিনি আবেদন করেন, অর্পিতাকে যে খাবার ও পানি দেওয়া হবে, তা যেন পরীক্ষা করে দেওয়া হয়। তার নিরাপত্তা যেন বাড়ানো হয়। এই আবেদনে সম্মতি জানিয়ে ইডির আইনজীবী আদালতে বলেছেন, ‘অর্পিতার জীবন সংশয় রয়েছে। তাই তার নিরাপত্তা বাড়ানোর আবেদন গ্রহণ করা হোক।’

হাসপাতালে যেভাবে জুতো উড়ে এসেছে পার্থর দিকে তার ফলে মনে করা হচ্ছে মানুষের মধ্যে অর্পিতার বিরুদ্ধেও ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটতে পারে। কারণ তার ফ্ল্যাট থেকে ৫০ কোটির মতো নগদ রুপি ও প্রচুর গয়না পাওয়া গেছে। তাই জেলে সাধারণ কয়েদিদের সঙ্গে থাকলে অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। সে কারণে তার নিরাপত্তা বাড়ানোয় ইডির সায় রয়েছে।

অর্পিতা জেল হেফাজতে আগামী ১৪ দিন থাকবেন আলিপুর মহিলা সংশোধনাগারে। কারা দফতর সূত্র জানিয়েছে, বাকি বন্দিদের মতোই সুযোগ সুবিধা পাবেন অর্পিতা। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী সব ব্যবস্থা করা হবে।

জানা গেছে, অর্পিতার আইনজীবী আদালতে আবেদন করলেও বিচারক তার খাবার বা পানি পরীক্ষা করে দেওয়ার কোনও নির্দেশ দেননি। আদালতের তরফে সরাসরি আলিপুর মহিলা সংশোধনাগারের সুপারিনটেনডেন্টকে বলা হয়েছে, অর্পিতার ‘সেফটি সিকিউরিটি’র দিকে আলাদা নজর দিতে হবে। সেই হিসেবে নির্দিষ্ট সময় পর আদালতের কাছে রিপোর্ট যাবে। ইডির কর্মকর্তারাও নির্দিষ্ট সময়ে গিয়ে জেরা করতে পারবেন।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আর্ন্তজাতিক বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image