• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ৩০ জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

কাটিরহাট উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষার্থী পরিষদ'৭৪ এর পূর্নমিলনী


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ২৯ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:২৯ পিএম
আলোচনা করে আমাদের জন্য প্রয়োজনী
কাটিরহাট উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের পূর্নমিলনী

ডেস্ক রিপোর্টার:    কাটিরহাট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন শিক্ষার্থী পরিষদ-১৯৭৪ইং ব্যাচ এর ১ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী সংগঠনের সভাপতি আল্হাজ্ব অ্যাডভোকেট কাজী মহসীন চৌধুরী’র সভাপতিত্বে আগ্রাবাদস্থ হোটেল ল্যান্ডমার্কে অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের যুগ্ন আহ্বায়কদ্বয় প্রফেসর গোলাম কাদের চৌধুরী ও জনাব আলী আকবর চৌধুরী’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব সফিউল আলম চৌধুরী, প্রধান বনসংরক্ষক (অব:), সিনিয়র কনসালটেন্ট, বিশ্ব ব্যাংক প্রকল্প, বন অধিদপ্তর, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মিসেস রোমানা শারমিন, কন্ট্রোলার/প্রোগাম ম্যানেজার, বিটিভি, চট্টগ্রাম, বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও শিক্ষানুরাগী ও ব্যবসায়ী আলহাজ্ব মো: আকতার হোসেন,  বিশিষ্ট সমাজসেবক, ব্যবসায়ী ও শিক্ষানুরাগী জনাব আলহাজ্ব মাহবুব উল আলম চৌধুরী।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন মজিদ থেকে তেলাওয়াত ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভারম্ভ হয়। অতিথিবৃন্দকে পুস্পস্তবক ও উত্তরীয় প্রদানের মাধ্যমে উষ্ণ সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। এতে সূচনা বক্তব্য রাখেন, যুগ্ন আহ্বায়ক জনাব আলী আকবর চৌধুরী, তিনি সংগঠনের শুরু হতে এ পর্যন্ত বিভিন্ কার্যক্রমের বর্ণনা দেন।

বক্তব্য রাখেন- জনাব প্রফেসর গোলাম কাদের চৌধুরী, তিনি সংগঠনের বিভিন্ন বিষয়য়ে নিয়ে আলাপ করে এবং ভবিষ্যতে সকলকে এই সংগঠনের উন্নয়নের জন্য নিজ নিজ পরিধি থেকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। বিশেষ অতিথি জনাব আকতার হোসেন বলেন- এ কমিটি তাদের কর্মদক্ষতার মাধ্যমে আমাদেরকে অনেক দূর এগিয়ে দিয়েছে এবং বিশেষ অতিথি জনাব মাহাবুব উল আলম চৌধুরী বলেন- আমাদের একটি কর্মোদীপ্ত কমিটির মাধ্যমে আমাদের এ সংগঠন পরিচালিত হচ্ছে বলে আজকে আমরা কিছুটা হলেও অনেক সাফল্য অর্জন করতে পেরেছি।

সম্মানিত বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের প্রোগ্রাম ম্যানেজার মিসেস রোমানা শারমিন বলেন, আমি চট্টগ্রামে দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে কাটিরহাট উচ্চ বিদ্যালয় সম্পর্কে জেনে আসছি। চট্টগ্রামের উত্তর জনপদের একটি ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপিঠ। এখানে অনেক শিক্ষার্থী বিদ্যা অর্জন করে কৃতিত্বের সাথে পাস করে বর্তমানে সমাজের বিভিন্ন স্থানে সেবা প্রদান করে আসছে এবং আমি ইতোমধ্যে এ সংগঠনের অনেকের পরিচয় পেয়েছি। যারা বর্তমানে শিক্ষানুরাগী, সমাজসেবী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। আমার প্রচেষ্টার মাধ্যমে এ প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের জন্য কাজ করার আশা ব্যক্ত করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জনাব সফিউল আলম চৌধুরী বলেন, ১৯৭৪ ব্যাচ এর আমরা কয়েকজন বন্ধু মিলে এ সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছি। যার মহৎ উদ্দেশ্য হচ্ছে একে অপরের প্রতি ভালবাসা এবং সমাজের জন্য প্রনিদানযোগ্য কিছু করা। আমি এ কমিটির সাথে আলাপ আলোচনা করে আমাদের জন্য প্রয়োজনীয় একটি সুন্দর প্রস্তাবনা বাস্তবায়নের জন্য চেষ্টা করব।

সভাপতির বক্তব্যে আলহাজ্ব কাজী মহসীন চৌধুরী বলেন, আমাদের এ সংগঠন প্রায় বিশ বছর অধিককাল পূর্বে গঠিত হলেও ২০২০ সালের শুরুতে ইহা আবার নতুনভাবে সূচনা হয়। বর্তমানে ইহার সদস্য সংখ্যা প্রায় ১০০ জন। ইতোমধ্যে আমরা আমাদের অনেক বন্ধুকে হারিয়েছি। আজ তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

এ উপলক্ষে মৃতজনদের জন্য শোকপ্রস্তাব পাঠ করা হয়। আমরা যারা আছি। আমাদের জন্য কিছু করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করছি। দীর্ঘ এক বছরের অধিককাল দায়িত্ব পালনকালে আমাকে আমার যুগ্ন আহ্বায়ক জনাব আলী আকবর চৌধুরী, প্রফেসর গোলাম কাদের চৌধুরী, জনাব সফিউল আলম চৌধুরী, জনাব মাহাবুব উল আলম চৌধুরী, জনাব আকতার হোসেন, জনাব আনোয়ারুল আজিজ শাহীন প্রমুখ বন্ধুগণ বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে আসছেন।

তাদের মাধ্যমে আমাদের এতদূর পথচলা। আগামীতে আমরা আরও অধিকতর সাফল্য কামনা করছি। অনুষ্ঠানে স্মৃতিচারণ করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: দিদারুল আলম দিদার, এসএম নোমান, মো: আলমগীর, কাজী মো: আমান উল্লাহ প্রমুখ।  পরিশেষে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে মধ্যাহ্নভোজের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

উৎসব / দিবস বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image