• ঢাকা
  • সোমবার, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ১৫ আগষ্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

বাংলাদেশ হতে পারে টাইগার ইকোনোমি: ভারতীয় সাবেক কূটনীতিক


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ০৯ জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:১৮ পিএম
বাংলাদেশ হতে পারে টাইগার ইকোনোমি
ভারতের সাবেক রাষ্ট্রদূত সর্বজিৎ চক্রবর্তী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ হতে পারে টাইগার ইকোনোমি বলেছেন, ভারতের সাবেক রাষ্ট্রদূত সর্বজিৎ চক্রবর্তী । নিজস্ব অর্থায়নে বাংলাদেশ পদ্মা নদীর উপর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ দৈর্ঘ্যের সেতু তৈরি করেছে।

শনিবার (৯ জুলাই) ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

পিটিআই সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার বাংলাদেশকে ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ হিসেবে অভিহিত করেছেন, গত বছর যা মাথাপিছু আয়ে ভারতকে ছাড়িয়ে গেছে।

বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়েছে বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতু গৌরবের জায়গায় যুক্তিযুক্ত। যেসব আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলি পদ্মা সেতু তৈরিতে অর্থায়ন করতে অস্বীকার জানিয়েছিল তারা এখন এটি সম্পূর্ণ হওয়ায় বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানাচ্ছে'।

গত ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করেন। ৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয়ে নির্মিত এই সড়ক-রেল সেতু দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলকে উত্তর ও পূর্বাঞ্চলের সঙ্গে যুক্ত করেছে।

চক্রবর্তী বলেন, 'সেতুটি ঢাকায় আমাদের যাতায়াতের সময়কে অনেক কমিয়ে দেবে, পর্যটনখাতের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলবে এবং উভয় দিক থেকে ডেলিভারি পরিষেবা উন্নত করবে। এটি একটি দেশের অর্থনীতিতে রপ্তানি বাড়ানোর ইতিবাচক প্রভাব।

সরকারের রূপকল্প অনুযায়ী আগামী ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উচ্চ আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার একটি রোডম্যাপ ঘোষণা করে। যার লক্ষ্য নানামুখী উদ্যোগ বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে ২০৩১ সালে উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালে উচ্চ আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার। দেশটি বিভিন্ন সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অগ্রগতি করছে, বলেন চক্রবর্তী।

তিনি আরও বলেন, কৃষি থেকে ফার্মাসিউটিক্যালস এবং জাহাজ নির্মাণ থেকে গার্মেন্টস পর্যন্ত দেশের শিল্প ভিত্তি বৈচিত্র্যময় হচ্ছে এবং এর রপ্তানি বাড়ছে। এছাড়া তারা শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা এবং মৌলিক সামাজিক পরিষেবাগুলিতেও দুর্দান্ত অগ্রগতি করছে।

আমি বাংলাদেশকে ভবিষ্যত টাইগার অর্থনীতি হিসাবে দেখছি, বলেন চক্রবর্তী।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু দুই প্রতিবেশীর মধ্যে রেল, সড়ক ও নদীপথের মাধ্যমে সংযোগ বাড়ছে সেহেতু বাংলাদেশ থেকে কন্টেইনার ট্রাকগুলিকে ইউরোপে চালান সহজ করতে মুম্বাই, আহমেদাবাদ এবং পশ্চিম ভারতের অন্যান্য বন্দরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া যেতে পারে।

তিনি বলেন, এখন বাংলাদেশের জাহাজ কলম্বো হয়ে ইউরোপে যায়। পশ্চিম ভারতীয় বন্দর ব্যবহার সেই দূরত্বকে অনেকটাই কমিয়ে দেবে।

তিস্তার পানি বণ্টন ইস্যুতে চক্রবর্তী বলেন, বাংলাদেশ ভারতের সাথে তার সম্পর্কের সংলাপের কেন্দ্রীয় অংশে পরিণত না করার ক্ষেত্রে 'খুবই সদয়' হয়েছে।

তিনি বলেন, তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি নিয়ে বিরোধটি সম্ভবত একটি খালের মাধ্যমে যমুনার (ব্রহ্মপুত্রের নিম্ন স্রোত) সাথে বাংলাদেশের নদীকে সংযুক্ত করে বাইপাস করা যেতে পারে যাতে তিস্তা আরও বেশি পানি পায়।

রাষ্ট্রদূত বলেন, সিকিম, উত্তর পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত তিস্তা নদীর পানি বণ্টন দুই দেশের সম্পর্কের একটি মূল বিষয়। এই বিষয়ে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এতে আপত্তি জানিয়ে বলেছিলেন যে এটি রাজ্যের স্বার্থকে প্রভাবিত করবে কারণ নিশ্চিত ভিত্তিতে ভাগ করার মতো পর্যাপ্ত জল নেই।

রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, একটি খালের মাধ্যমে তিস্তা ও যমুনাকে যুক্ত করে সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে।

তিনি আরও বলেন, এটি বহু-জাতিগত সমাজ হিসাবেও একভাষী। ভারতের তুলনায় বাংলাদেশে সামাজিক সংঘাত কম। দেশটিতে ঐতিহ্যগতভাবে পারস্পরিক সমর্থন এবং সহনশীলতার সংস্কৃতি রয়েছে।  

তিনি বলেন, 'যতবারই আমরা সংখ্যালঘুদের উপর যে কোন নৃশংসতার কথা শুনি, তার বিস্তার রোধ করার জন্য এবং সুশীল সমাজের প্রতিবাদের মাধ্যমে দ্রুত সরকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়'।

ভারতের এই সাবেক রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশে দু'বার দায়িত্ব পালন করেছেন এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসাবে অবসর নিয়েছেন। তিনি পরামর্শ দিয়ে বলেছেন যে, ভারতের রুপিকে দেশে একটি আইনি টেন্ডার করার চেষ্টা করা উচিত যেমন এটি অন্যান্য প্রতিবেশী দেশ- নেপাল এবং ভুটানে রয়েছে যাতে সমগ্র অঞ্চলটিকে একটি সমন্বিত অর্থনৈতিক সত্তা হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আর্ন্তজাতিক বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image