• ঢাকা
  • শনিবার, ৯ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ; ২২ জানুয়ারী, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

ঠাকুরগাঁওয়ে কিশোর গ্যাংয়ের সংঘর্ষে নিহত-১


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ০১:৩৩ পিএম
কিশোর গ্যাংয়ের সংঘর্ষ
কিশোর গ্যাংয়ের সংঘর্ষে নিহত মেহেদী

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁও শহরের বিসিক শিল্পনগরী এলাকায় দুই কিশোর গ্যাং সংঘর্ষে মেহেদী (১৬) নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আরমান (১৪) ও গালিফ (১৬) নামে আরও ২ শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন।

বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) রাত ৭টার দিকে শহরের বিসিক শিল্পনগরী এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

নিহত মেহেদী ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার সেনিহারী গ্রামের মো. আব্দুল মালেকের ছেলে। সে ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী।

আহত দুজন হলেন- ঠাকুরগাঁও পৌরসভার পরিষদপাড়ার মো. জুয়েলের ছেলে আরমান। সে ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র এবং গালিফ ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী। তার বাবার নাম মো. মিঠু।

নিহত মেহেদির মামা আমজাদ হোসেন বলেন, ‘স্কুলে যাওয়ার সুবিধার্থে মেহেদি আমাদের বাসায় থেকে পড়াশোনা করতো। সন্ধ্যায় কেউ একজন ডেকে নিয়ে যায় মেহেদিকে। কিছুক্ষণ পরে মোবাইলে একজন হামলার বিষয়টি জানায়।’

আহত আরমানের বাবা মো. জুয়েল বলেন, ‘বুধবার সন্ধ্যার পর আমার ছেলে আরমান, ভাগিনা গালিফ ও প্রতিবেশি মেহেদী বাড়ি থেকে বের হয়ে শহরের বিসিক শিল্পনগরী এলাকার শামীমের হোটেলে চা খাওয়ার জন্য যায়।’

‘চা খাওয়া শেষে বাড়িতে ফেরার পথে মোবাইল ফোনের লাইট জ্বালিয়ে তারা বাড়িতে ফিরছিল। এসময় রাস্তায় মোটরসাইকেল নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা কয়েকজন দুর্বৃত্ত আরমান, মেহেদী ও গালিফকে বেধড়ক পেটায়। এক পর্যায়ে ওই দুর্বৃত্তরা ধারালো ছোরা দিয়ে মেহেদীকে কোপাতে থাকে। তখন মেহেদীকে বাঁচাতে আমার ছেলে আরমান এগিয়ে গেলে তাকেও কুপিয়ে জখম করে। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে গেলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।’

তিনি বলেন, ‘আহত অবস্থায় আমার ছেলে আরমান ফোন করে জানায় তাদেরকে মারপিট ও জখম করা হয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আহত অবস্থায় মেহেদী, আরমান ও গালিফকে উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মেহেদীকে মৃত ঘোষণা করেন।’

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের চিকিৎসক মোছা. সাবরিনা বলেন, ‘নিহত মেহেদীর শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ধারালো কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। ফলে প্রচুর রক্তক্ষরণের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে।’

এ ছাড়া আহত আরমানের বাম পায়ের উপরের অংশে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। এতে গভীর ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে। তাকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। অপরদিকে আহত গালিফকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়িতে পাঠানো হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম বলেন, ‘খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ও হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারের জন্য আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে এবং মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / গৌতম চন্দ্র বর্মন/কেএন

অপরাধ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image