• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১২ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ; ২৫ জানুয়ারী, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

বিচারক কামরুন্নাহারকে শোকজ করা হবে


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ০৮:১৩ পিএম
আইনমন্ত্রী
সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক

সুমন দত্ত: বহুল আলোচিত চাঞ্চল্যসৃষ্টিকারী রেইনট্রি ধর্ষণ মামলার রায় দেওয়া বিচারক মোছাম্মত কামরুন্নাহারকে শোকজ করবেন প্রধান বিচারপতি। ইতিমধ্যে তাকে বিচারকাজ থেকে সাময়িক সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। রায়ে যে বক্তব্য তিনি দিয়েছেন তা বিচার বিভাগের জন্য বিব্রতকর। 

রোববার সচিবালয়ে আইনমন্ত্রী তার নিজ কক্ষে সংবাদিকদের সঙ্গে প্রশ্নোত্তর কালে এসব কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘এখানে যেটা হয়েছে, একজন বিজ্ঞ বিচারক তিনি ওপেন কোর্টে রায় দেয়ার সময় তার পর্যবেক্ষণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বলেছেন যে ৭২ ঘণ্টা পরে কোনো ধর্ষণ মামলা না নিতে। এটাই আপত্তির জায়গা। কোনো ফৌজদারি অপরাধ মামলা করার ব্যাপারে তামাদি হয় না। মানে ইট ইজ নট পার্ট বাই লিমিটেশন।’

তিনি বলেন, ‘বিচারকের (কামরুন্নাহার) পর্যবেক্ষন সংবিধানের ৩১ অনুচ্ছেদ অনুসারে মৌলিক অধিকার, সেটার পরিপন্থি। তিনি যেটা বলেছেন, তার একটি ইমপ্লিকেশন আছে। এ কারণেই বিচার বিভাগের গার্ডিয়ান প্রধান বিচারপতিকে ব্যবস্থা নিতে হচ্ছে। এই বক্তব্য আমার মনে হয় বিজ্ঞ বিচারকদের জন্য বিব্রতকর। এটা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি ভুল নির্দেশনা।

‘এ জন্যই ব্যবস্থা নেয়াটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। তার বিরুদ্ধে যে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, সেটিও আইনানুগভাবে এগিয়ে যাবে। তাকে শোকজ করা হবে। তিনি কেন এটা বলেছেন, ব্যাখ্যা চাওয়া হবে। সেটা আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করে হবে।’

 রাজধানীর বনানীর রেইনট্রি হোটেলে দুই নারীকে ধর্ষণের আলোচিত মামলায় গত বৃহস্পতিবার পাঁচ আসামির সবাইকে খালাস দেন ঢাকার ৭ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক কামরুন্নাহার।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ২৮ মার্চ জন্মদিনের অনুষ্ঠানে এক হোটেলে আমন্ত্রণ জানিয়ে নিয়ে অস্ত্রের মুখে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়। এই অভিযোগে ওই বছর ৬ মে বনানী থানায় পাঁচজনের নামে মামলা হয়।

রায়ের পর্যবেক্ষণে ঘটনার ৩৮ দিন পর ধর্ষণের মামলা করার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন বিচারক কামরুন্নাহার।

তিনি বলেন, ৭২ ঘণ্টা পর মেডিক্যাল পরীক্ষা করা হলে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায় না। ওই সময়ের পর পুলিশকে কোনো ধর্ষণ মামলা না নিতেও পরামর্শ দেন তিনি।

বিচারকের এসব মন্তব্যর বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেকে প্রতিক্রিয়া জানান। 

ঢাকানিউজ২৪.কম / এসডি

আইন ও আদালত বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image