• ঢাকা
  • শনিবার, ৮ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ; ২২ জানুয়ারী, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

ঝিনাইগাতীতে গৃহবধূর হাত কেটে নেওয়ায় ৪জনের কারাদন্ড


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:০৮ পিএম
৪জনের কারাদন্ড
প্রতীকী ছবি

শেরপুর প্রতিনিধি: শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে যৌতুক না পেয়ে নববধূর হাত কেটে নেওয়ার অভিযোগে চারজনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। রবিবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুরে শেরপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ) মো. আখতারুজ্জামান আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। পরে আদালতের নির্দেশে তাদের জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন ঝিনাইগাতী বাজারের কসাইপাড়া এলাকার কুদরত আলীর ছেলে লিটন মিয়া (২৮), রিপন মিয়া (৩৮), উজ্জ্বল মিয়া (৪৫) ও নূর ইসলাম (৫০)।

আদালত স্ত্রীকে গুরুতর জখম করার অভিযোগে স্বামী লিটন মিয়াকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ১২ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ভুক্তভোগীকে ১ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ এবং লিটনের ভাই রিপন, উজ্জ্বল ও নূর ইসলামকে ৩ বছর করে সশ্রম কারাদন্ড ও ভুক্তভোগীকে ২৫ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ প্রদানের আদেশ দেন।

আদালত সূত্রে মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, ২০১৭ সালে শেরপুর সদর উপজেলার বাদাতেঘরিয়া গ্রামের মৃত চান মিয়ার মেয়ে কুলসুম বেগমের সঙ্গে ঝিনাইগাতী উপজেলার কুদরত আলীর ছেলে কসাই লিটন মিয়ার বিয়ে হয়। কিন্তু বিয়ের ৯ মাস যেতে না যেতেই লিটন নববধূ কুলসুম বেগমকে বাবার বাড়ি থেকে এক লাখ টাকা যৌতুক এনে দিতে বলেন।

পিতৃহীনা কুলসুম যৌতুকের টাকা এনে দিতে না পারায় পাষন্ড স্বামী লিটন টাকার জন্য কুলসুমকে প্রতিনিয়ত নির্যাতন করতেন। ২০১৮ সালের ১৩ জুন বিকেলে ঝিনাইগাতী বাজারের কসাইপাড়া এলাকার বাড়িতে স্বামী লিটন ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুলসুমকে কুপিয়ে তার ডান হাত বিচ্ছিন্ন করেন।

এ সময় লিটনের অন্য তিন ভাই দন্ডপ্রাপ্ত রিপন, উজ্জ্বল ও নূর ইসলাম গৃহবধূ কুলসুমের শরীরের বিভিন্নস্থানে কুপিয়ে জখম করেন। কুলসুম ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে দীর্ঘদিন চিকিৎসা করিয়ে সুস্থ হন।

এ ঘটনায় কুলসুম বাদী হয়ে ২০১৮ সালের ৩ জুলাই স্বামী লিটনসহ চারজনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন।

মামলার তদন্তশেষে ২০১৮ সালের ৩১ আগস্ট ঝিনাইগাতী থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার বিশ্বাস আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। সাক্ষ্যপ্রমাণ বিশ্লেষণশেষে আদালত এ দন্ডাদেশ প্রদান করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলি মো. গোলাম কিবরিয়া রায় প্রদানের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ঢাকানিউজ২৪.কম / জাহিদুল হক মনির/কেএন

অপরাধ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image