• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ৪ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ; ১৮ জানুয়ারী, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

পবা ডিজিটাল ভূমি সেবার প্রথম সফল কেন্দ্র


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ০১:৫৮ পিএম
পবা ডিজিটাল ভূমি সেবার সফল কেন্দ্র
ভূমি সেবার সফল কেন্দ্র পবা

ডেস্ক রিপোর্টার: রাজশাহী জেলার পবা উপজেলার ভূমি অফিসের বাইরে এক যুবক হাসি মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আর একরাশ বিষ্ময় নিয়ে সে বার বার তার হাতে থাকা কাগজগুলোর দিকে তাকাচ্ছে। সত্যিই যুবকটি খুব অবাক এত দ্রুত ভূমি অফিস থেকে সেবা পেয়ে।

স্থানীয় ভ্যান চালক মাহফুজ আহমেদ বলেন, আমি কিছুক্ষণ আগে ভূমি অফিসে এসেছি আমার জমির বাৎসরিক খাজনা (কর) দিতে। কিন্তু মাত্র দশ থেকে পনের মিনিটের মধ্যে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমি সেবা পেয়েছি। হাতে থাকা এক হাজার টাকার ছাপানো রশীদ দেখিয়ে তিনি বলেন, জমির খাজনা দেয়ার জন্য এই ডিজিটাল পদ্ধতি কার্যকর করার ফলে সাধারণ মানুষ খুব দ্রুত সেবা পাচ্ছেন। এর ফলে স্বচ্ছতাও নিশ্চিত করা সম্ভব হয়েছে।

মাহফুজ বলেন, একসময় ভূমি অফিসে যাওয়া মানেই ছিল আতংকের বিষয়। এখানে সেবা পেতে প্রতিনিয়ত ভুগতে হত। এছাড়া দূর্নীতি তো ছিলই। একদিনে সব কাজ শেষ করা ছিল একপ্রকার অসম্ভব একটি বিষয়। কিন্তু এখন এখানে বাড়তি কোন টাকা খরচ করতে হচ্ছে না। আর খুব কম সময়ে সব হয়ে যাচ্ছে। বর্তমান সরকারের ডিজিটাল ভূমিসেবা কার্যক্রমের কারণেই এটা সম্ভব হয়েছে ।

পঞ্চাশ বছর বয়সী কৃষক রানু মন্ডল পবা উপজেলা ভূমি অফিসে এসেছিলেন ই-মিউটেশন (নামজারী) এর জন্য। তিনি তার ভাইয়ের কাছ থেকে সমান্য জমি কিনেছেন। মূলত ই-মিউটেশন হল মালিকানা পরিবর্তন। যদি কোন জমি বিক্রী অথবা হস্তান্তর করা হয় তখন তা সরকারের ‘রেকর্ডে’ ডিজিটালি নথিভূক্ত করা আবশ্যক।

তিনি বলেন, ভূমির নামজারীর জন্য এখানে এসেছিলাম। কারণ আমি আগেই অনলাইনে এই সেবার জন্য আবেদন করেছিলাম। নামজারীর জন্য অনলাইন পদ্ধতি এই সেবাকে সহজ করেছে। একারণে সময় এবং টাকা দুই-ই বাঁচে।

রানু বলেন, এই পদ্ধতির ফলে সেবাটি আগের চেয়ে অনেক বেশি সহজ এবং স্বচ্ছ হয়েছে। এখন আমাদের অতিরিক্ত কোন টাকা খরচ করতে হয় না। এছাড়া সময়ও কম লাগে। এখন আমরা সরকার নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এই সেবা পাচ্ছি। এজন্য বর্তমান সরকারের প্রতি আমি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞ।

পবা ভূমি অফিস সুত্র জানায়, ২০১৭ সালে সর্বপ্রথম পবা উপজেলা ভূমি অফিসে ই-নামজারি সেবা চালু করা হয়। মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের এটুআই এবং আইসিটি ডিভিশন ইউএনডিপি’র সহায়তায় এ কার্যক্রম চালু করে। প্রায় ৬০ জন সেবাগ্রহীতা প্রতিদিন এই ভূমি অফিস থেকে বিভিন্ন ধরনের সেবা গ্রহণ করে থাকে।

পবা ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার (ভূমি) এসকে আহসান উদ্দিন বলেন, ২০১৭ সালের নভেম্বরে আমরা ই-নামজারি সেবা চালু করেছি এবং ২০১৮ সালের মধ্যে আমরা সেবাটি পুরোপুরি ডিজিটাল প্রযুক্তির অধীনে নিয়ে আসি। ই-নামজারি ছাড়াও এই অফিসে জমির কর অনলাইন পেমেন্টের মাধ্যমে নেয়া হয়।

তিনি বলেন, অনলাইন পেমেন্ট পদ্ধতি চালু হয়েছে ২০২১ সালে। এর ফলে সাধারণ মানুষ এখন অনলাইনের মাধ্যমে জমির কর প্রদান করতে পারেন। তাদের আর তহসিল অফিসে আসতে হয় না। এই জমাদানের রশীদ তারা ই-মেইলের মাধ্যমে গ্রহণ করতে পারেন।

আহসান বলেন, পবা উপজেলা ভূমি অফিস জমি সংক্রান্ত কাজগুলো ডিজিটালাইজড করার মাধ্যমে অনেক সহজ করে তুলেছে। বাংলাদেশে সর্বপ্রথম ‘ই-ল্যান্ড অফিস’ অ্যাপটি এই অফিসে উদ্বোধন করা হয় যেটি জমির মালিকদের করের পরিমাণ দেখায়। এছাড়াও সেবাগ্রহীতারা মোবাইল ব্যাংকিং সেবা, ‘বিকাশ’ এর মাধ্যমে তাদের কর বা খাজনা প্রদান করতে পারেন।

তিনি বলেন, এই উদ্যোগের জন্য পবা ভূমি অফিস রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে জনপ্রশাসন পুরস্কার পেয়েছে। পরবর্তীতে সরকার দেশের জমির খাজনা প্রদানসহ জমি সংক্রান্ত সেবাসমূহ ডিজিটালাইজড করার জন্য একটি প্রকল্প হাতে নেয়।  

ভূমি মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়,২০২১ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সারাদেশে ই-নামজারির জন্য প্রায় ৫৫.৬৫ লাখ অনলাইন আবেদন গ্রহণ করা হয়েছে যার মধ্যে এ পর্যন্ত প্রায় ৪৪.১৫ লাখ আবেদন নিষ্পত্তি করা হয়েছে। প্রতিবছর গড়পড়তা প্রায় ২২ লাখ আবেদন ই-নামজারির জন্য জমা পড়ে।

সবক’টি আবেদনের মধ্যে ২০২০-২১ অর্থবছরে ই-নামজারির জন্য প্রায় ২২ লাখ আবেদন জমা পড়েছে। যার মধ্যে প্রায় ১৯ লাখ আবেদন একই অর্থবছরে নিষ্পত্তি করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উদ্যোগ ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ এর অধীনে সাতটি উপজেলায় দেশের সকল জমি সংক্রান্ত সেবা সমূহকে ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনার লক্ষ্যে ২০১৭ সালের ১ ফেব্রুয়ারি প্রথম ‘ই-নামজারি’ পাইলট প্রকল্পটি চালু হয়। ২০১৯ সালের ১ জুলাই দেশব্যাপী শতভাগ ই-নামজারি সেবা চালু হয় ।

বর্তমানে পার্বত্য অঞ্চল ছাড়া দেশের সবকটি উপজেলার ভূমি অফিস, সার্কেল অফিস এবং ইউনিয়ন ভূমি অফিসে ই-নামজারি সেবা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

জাতীয় বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image