• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ১৯ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

শহীদ দিবসে পোষ্যদের রচনা, চিত্রাংকন ও আবৃত্তি প্রতিযোগীতা


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ২১ ফেরুয়ারী, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৫:২৭ পিএম
ছোট্টমনিরা সকলেই যোগ্য
পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ:  ময়মনসিংহে মহান শহীদ দিবস আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২২ পুলিশ পোষ্যদের অনলাইন রচনা, চিত্রাংকন ও কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত। পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক) ময়মনসিংহের আয়োজনে পুলিশ লাইন্সে সোমবার এই পুরস্কার  বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়।

পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক) ময়মনসিংহের সভাপতি মিসেস কানিজ আহমারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামান বলেন বাংলা ভাষার এখনও দুর্দিন চলছে। ২১ ফেব্রুয়ারি আগে কিংবা পরে বাংলা নিয়ে কাউকে কথা বলতে দেখা যায়না। বাংলা ভাষার ব্যবহার সকলক্ষেত্রে এখন উপেক্ষিত হচ্ছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফাল্গনী নন্দীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে এছাড়া বক্তব্য রাখেন, পুনাকের সহ-সভানেত্রী তাহমিনা আফরোজ তানি, রায়হানা তাহসীন, ইসরাত তানজিয়া, ডাঃ শারমীন আক্তার, ফারহানা ইসলাম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে এছাড়া অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার ফজলে রাব্বী, রায়হানুল ইসলাম, মোঃ হাফিজুর রহমান, কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি শাহ কামাল আকন্দ, ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক (প্রশাসন) বেলায়েত হোসেন সহ কোতোয়ালি ও পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তা এবং অভিভাবকগণ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথি পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামান বলেন, মহান শহীদ দিবস দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে পুনাকের উদ্যোগে প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণকারি প্রতিটি শিশু চমৎকারভাবে তাদের মেধা ও যোগ্যতার বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছে। তারা সকলেই এত সুন্দর করেছে যে এদের মধ্যে কে প্রথম কে দ্বিতীয় হয়েছে তা নির্ধারণ করা অনেক কঠিন। আমার মনে হয় তারা সবাই প্রথম হয়েছে। এর পরও যোগ্যদেরকে বিজয়ী করা হয়েছে।

শিশু কিশোরদের উদ্দেশ্য পুলিশ সুপার বলেন, আমরা যে ভাষায় কথা বলছি সেই ভাষার জন্য আমাদের রক্ত দিতে হয়েছে। অন্য কোন ভাষার জন্য কাউকে রক্ত দিতে হয়নি। । যারা দেশের উচ্চ পর্যায়ে কিংবা কুলিন পর্যায়ে তারাই ইংরেজী বেশি ব্যবহার করেন। আবার কেউ কেউ দুএকটি ইংরেজি বলতে পেরে নিজেদেরকে গর্বিত মনে করছে। যা মুটেই কাম্য নয়। প্রাথমিক পর্যায়ে একমুখি শিক্ষা ব্যবস্থা চালু না হলে দিনে দিনে বাংলা ভাষা আরো হারিয়ে যাবে। অবিলম্বে একমুখি শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করা উচিত। যে জাতি মাতৃভাষার প্রতি বেশি মমত্ববোধ দেখিয়েছে সেই জাতি তত উন্নত হয়েছে।

পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতির (পুনাক) সভাপতি কানিজ আহমার বলেন, ছোট্ট সোনামনিদেরকে উৎসাহিত এবং সঠিকভাবে পরিচালিত করতে এই আয়োজন করা হয়েছে। ছোট্টমনিরা সকলেই যোগ্য। প্রত্যেকেই অত্যন্ত চমৎকার, আকর্ষণীয় এবং সুন্দরভাবে তাদের মেধার প্রকাশ ঘটিয়েছে। বাংলা ভাষা একটি বিকৃত পথে চলছে। এ থেকে বের হতেই আজকের এই আয়োজন।  অনুষ্ঠানে বিভিন্ন গ্রপে ৪৩ জন  প্রতিযোগীকে পুরস্কৃত করা হয়।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

উৎসব / দিবস বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image