• ঢাকা
  • শনিবার, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২০ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

প্রথম বিতর্কের পর ট্রাম্পের দিকে ঝুঁকছেন দোদুল্যমান ভোটাররা!


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০২ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:৫৪ পিএম
তার চেয়ে মাত্র তিন বছর কম
ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেন

নিউজ ডেস্ক:  আগামী ৫ নভেম্বর প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। মার্কিন ভোটারদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা নির্বাচনে ট্রাম্প না বাইডেন- কাকে বেছে নেবেন বুঝে উঠতে পারছিলেন না। কিন্তু এই নির্বাচনকে ঘিরে বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) রাতের প্রথম বিতর্কে বাইডেনের পারফরম্যান্স দেখে তারা হতাশ হয়েছেন। জানিয়েছেন ট্রাম্পকেই ভোট দেবেন তারা।

এমন সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগা ১৩ জন ভোটার রয়টার্সের সঙ্গে কথা বলেছেন। তাদের মধ্যে ১০ জনই বলেছেন রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্পের বিপরীতে ৮১ বছর বয়সি বাইডেনের পারফরম্যান্স ছিল দুর্বল, বিভ্রান্তিকর, বিব্রতকর এবং একঘেয়েমি।

তাদের মধ্যে জিনা গ্যানন (৬৫) জর্জিয়া রাজ্যের একজন অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। তিনি ২০২০ সালে বাইডেনকে ভোট দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, ‘জো বাইডেনকে শুরু থেকেই খুব দুর্বল এবং বিভ্রান্ত দেখাচ্ছিল। এটা দেখে আমি উদ্বিগ্ন হয়েছি এই ভেবে, আমাদের বৈশ্বিক শত্রুরা বাইডেনকে এত নাজুক অবস্থায় দেখবে। আমি হতাশ হয়ে পড়েছিলাম। টিভিতে এবং বিশ্বের সামনে আমাদের প্রেসিডেন্টকে এমন ভঙ্গিতে দেখে আমার একটুও ভালো লাগেনি। আমি অবশ্যই ট্রাম্পকে ভোট দেব।
 
যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাচনের আগের বিতর্কগুলো সাধারণত ভোটারদের ওপর খুব একটা প্রভাব ফেলে না। তবে এবারের নির্বাচনে বাইডেন এবং ট্রাম্প হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়াও বেশ কয়েকটি সুইং রাজ্যের ভোটের ওপর নির্ভর করছে প্রেসিডেন্ট হিসেবে কাকে পেতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ। একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক ভোটার যারা এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন না; সেই ভোটারদের মনও তো জয় করতে হবে।
 
বিতর্কে বাইডেনের পারফরম্যান্স ছিল নড়বড়ে। সেখানে ট্রাম্প তাকে বার বার আক্রমণ করে যাচ্ছিলেন। বাইডেনের দুর্বল পারফরম্যান্স দেখে তার সহকর্মী ডেমোক্র্যাটদের মনে এই প্রশ্ন জাগছিল, বাইডেন কি আরও চার বছর মেয়াদের জন্য কাজ করতে সক্ষম? 

বাইডেনের পারফরম্যান্স দেখে হতাশ ৯ জন ভোটারের মধ্যে সাতজন রয়টার্সকে বলেছেন যে, তারা এখন ট্রাম্পের দিকে ঝুঁকছেন। কারণ তারা আর বিশ্বাস করেন না যে বাইডেন প্রেসিডেন্ট হিসাবে তার দায়িত্ব পালন করতে পারবেন।
 
মেরেডিথ মার্শাল (৫১); যিনি লস অ্যাঞ্জেলেস এলাকায় বসবাস করেন এবং স্বনির্ভর একজন মানুষ। তিনি বলেন, বাইডেন-ট্রাম্প বিতর্ক তাকে হতবাক করেছে। তিনি ২০২০ সালে বাইডেনকে ভোট দিয়েছিলেন, কিন্তু এখন তিনি ট্রাম্পের দিকে ঝুঁকছেন। তিনি মনে করেন, বাইডেনের মানসিক তীক্ষ্ণতার অভাব রয়েছে।
 
এদিকে সাম্প্রতিক রয়টার্স ও বহুজাতিক বাজার গবেষণা এবং পরামর্শক সংস্থা ইপসোস-এর এক জরিপ অনুসারে দেখা যায়, প্রায় ২০ শতাংশ ভোটার বলেছেন তারা এই বছরের প্রেসিডেন্ট পদে ট্রাম্প বা বাইডেন কাউকেই বাছাই করেননি। বরং তৃতীয় পক্ষের বিকল্পের দিকে ঝুঁকছেন অথবা একেবারেই ভোট দেবেন না।
  
তবে বাইডেনের জন্যও ভালো খবর আছে। দক্ষিণ ক্যারোলিনার ২৮ বছর বয়সি মানসিক স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপক অ্যাশলে আল্টাম বিতর্কের আগে বাইডেন বা তৃতীয় পক্ষের কোন প্রার্থীকে ভোট দেয়ার কথা ভেবেছেন। বিতর্ক দেখার পর এখন তিনি বাইডেনকে ভোট দেবেন বলে মনস্থির করেছেন।
 
তিনি বলেছিলেন যে, তিনি বাইডেনের প্রতিক্রিয়া নিয়ে সন্তুষ্ট। কারণ বাইডেন প্রশ্নগুলো সমাধান করতে ট্রাম্পের চেয়েও বেশি ইচ্ছুক ছিলেন।বিতর্কের এক পর্যায়ে  বাইডেন উল্লেখ করেছেন ট্রাম্পের বয়স ৭৮ বছর। যা তার চেয়ে মাত্র তিন বছর কম।

তবে বাইডেন প্রথম বিতর্কে খারাপ করেছেন বলে স্বীকার করলেও, নির্বাচনে তিনি ট্রাম্পকে হারানোর প্রত্যয় জানিয়েছেন। 

ঢাকানিউজ২৪.কম / এইচ

আরো পড়ুন

banner image
banner image