• ঢাকা
  • রবিবার, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৩ জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

কিশোরগঞ্জে বন্যায় ভাসছে গ্রাম, অর্ধশতাধিক পুকুর তলিয়ে গেছে


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ১৮ জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৩:০৪ পিএম
কিশোরগঞ্জে বন্যায় অর্ধশতাধিক পুকুর তলিয়ে গেছে
কিশোরগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি

মিঠামইন প্রতিনিধি, কিশোরগঞ্জ: কিশোরগঞ্জের হাওর উপজেলা ইটনা ও মিঠামইনে সিলেটের বন্যার পানি ও প্রবল বর্ষণের কারণে গত ১৭ই জুন শুক্রবার রাত থেকে ১৮ জুন সকাল পর্যন্ত হাওরের বিভিন্ন জায়গায় অন্ততঃ অর্ধশতাধিক মাছের পুকুর তলিয়ে গেছে।

এসকল পুকুর তলিয়ে প্রায় কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে পুকুর মালিকরা জানান।অন্য দিকে ইটনা উপজেলার লাইমপাশা,মৃগা,আমিরগঞ্জ, নুরপুর,বানিহাটী,পুরাণ হাটীতে পানি ডুকে রাস্তা ঘাট ও বাজার তলিয়ে গেছে। এসকল গ্রামের অন্তত ১০টি পুকুর পানিতে নিমজ্জিত।

মিঠামইনের হাওরে চার পাশে নির্মাণাধীন অনন্ত ৩০ টি গ্রাম পানিতে ভাসছে। এসকল গ্রামের লোকজন কেহ কেহ মালামাল অন্যএ সরিয়ে নিচ্ছে। এসকল গ্রামের বাড়ী ঘর এখন পর্যন্ত ১ফ্টু পানির উপরে ভাসছে। যেকোনো সময় প্রবল বাতাস ও বৃষ্টির কারণে তলিয়ে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। এসকল গ্রামের পরিবারের লোকজন উঁচু জায়গায় আশ্রয়ের খুঁজে ছোটাছুটি করছে। মিঠামইন কাটখাল সড়কের ঘাগড়া বাজার অংশের দুটি ব্রিজ হুমকির মুখে রয়েছে।

১ফুট পানি হলে রাস্তা ও ব্রিজ তলিয়ে যাবে অন্য দিকে ঘাগড়া বাজারের পশ্চিম পাশে প্রস্তাবিত বাজার সেডের জায়গার বালি গত শুক্রবার রাতে পানির তুড়ে সরে গিয়ে অন্ততঃ ১০ লক্ষ টাকার বালির ক্ষতি হয়েছে। স্থানীয়রা বাড়ী ঘর রক্ষার জন্য বালি ভর্তি বস্তা নিয়ে ফেলে রক্ষার চেষ্টা করছে।হাওরের একামাএ প্রসিডেন্ট রিসোর্ট  হুমকির মুখে রয়েছে। পশ্চিম পাশের দেয়াল তলিয়ে পানি উপরে চলে আসছে।বর্তমানে ২ ফুট পানি হলে রিসোর্টের ভিতর পানি প্রবেশ করবে বলে রিসোর্ট কতৃপক্ষ জানান।

গত ৩ দিন যাবৎ পর্যটকের ভীড় নেই বললেই চলে পানির ভয়ে অনেকই চলে গেছেন।অন্য দিকে ঘাগড়া ইউনিয়নের ধোবাজোড়া বেড়িবাধঁ ও চমকপুর বেড়িবাঁধ পানিতে তলিয়ে গেছে। মিঠামইনের ঘাগড়া বাজার, চারিগ্রাম বাজার, মাহমুদ পুর বাজার, শ্যামপুর বাজার, খাটখাল বাজার ও হেমন্তগঞ্জ বাজার হুমকির মুখে রয়েছে। অষ্ট্রগ্রামের কাস্তল ইউনিয়নের ভাতশালা গ্রাম পানির উপর ভাসছে।

হাওরের বিভিন্ন জায়গায় নির্মাণাধীন অলওয়েদার সড়কের পাশের ব্লক পানির তুড়ে ভেঙে যাওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় গ্রামের কাঁচা রাস্তা তলিয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা অচল হয়ে পড়েছে। মিঠামইনের ঘাগড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান ভুইঁয়া জানান, গত ১৭ই জুন শুক্রবার রাতে পানির প্রবল চাপে ঘাগড়া বাজারের প্রস্তাবিত বাজার সেডের জায়গার বালি সব পানিতে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে।

এতে প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকা ক্ষতি হয়েছে। এছাড়াও ঘাগড়া বাজারের পাশে দুটি সেতু, ঘাগড়া আঃগণি উচ্চ বিদ্যালয়,নতুন বাজার, চমকপুর বেড়িবাঁধ ও ধোবাজোড়া বেড়িবাঁধ হুমকির মুখে রয়েছে। ১ ফুট পানি হলেই এসকল বাঁধ তলিয়ে যাবে।নতুন বাজার থেকে হাই স্কুল পর্যন্ত ১ কিলোমিটার অলওয়েদার সড়ক ১ ফুট পানির উপর ভাসছে। এটি তলিয়ে গেলে আশেপাশের বাড়ী ঘর,হাট বাজার পানিতে তলিয়ে যাবে।

এ ইউনিয়নে অন্ততঃ ৫টি মাছের পুকুর তলিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকার মাছের ক্ষতি হয়েছে। গ্রামের ভিতরে সকল কাঁচা রাস্তা পানিতে তলিয়ে গেছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যাবে না,বলে তিনি জানান। মিঠামইন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে, অফিস থেকে জানা যায়, তিনি ২ দিনের ছুটিতে গ্রামের বাড়িতে রয়েছেন।রবিবার মিঠামইনে আসবেন।

ঢাকানিউজ২৪.কম / বিজয়কর রতন/কেএন

সারাদেশ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image