• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৮ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

বাইডেনের স্থায়ী যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবকে প্রত্যাখ্যান করল ইসরায়েল


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ০১ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৭:২৫ পিএম
বাইডেন এটিকে ইসরায়েলের প্রস্তাব হিসেবেই
জো বাইডেন ও নেতানিয়াহু

এই প্রস্তাবে বাইডেন বলেছেন— প্রথমে ছয় সপ্তাহের জন্য যুদ্ধবিরতি হবে, এরপর ইসরায়েলি বাহিনী গাজার জনবহুল এলাকা থেকে সরে যাবে, গাজায় বিপুল ত্রাণনিউজ ডেস্ক:  গাজা উপত্যকায় শান্তি স্থাপনের জন্য এই প্রথম সুনির্দিষ্টভাবে একটি পরিকল্পনার প্রস্তাব করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ওয়াশিংটনে দেওয়া এক ভাষণে এই প্রস্তাব পেশ করেছেন । শনিবার (০১ জুন) এ খবর প্রকাশ করেছে বিবিসি, রয়টার্স, আল জাজিরাসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হবে, কয়েকশ ফিলিস্তিনি বন্দিকে মুক্তি দেবে ইসরায়েল, হামাস মুক্তি দেবে ইসরায়েলি জিম্মিদের— যার মধ্যে থাকবে পুরুষ সেনারাও। এরপর গাজার পুনর্গঠনে শুরু হবে। সবশেষে দুই পক্ষের মধ্যে সব ধরনের হামলা বন্ধ অর্থাৎ স্থায়ী যুদ্ধবিরতি হবে। বাইডেন এটিকে ইসরায়েলের প্রস্তাব হিসেবেই র কাজঅভিহিত করেছেন।

তবে মার্কিন প্রেসিডেন্টের এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন দখলদার ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু।

আজ শনিবার নেতানিয়াহু এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, হামাসের সামরিক এবং প্রশাসনিক কাঠামো নিশ্চিহ্ন না করা পর্যন্ত যুদ্ধ অব্যাহত রাখা হবে।

তিনি বলেছেন, “যুদ্ধ বন্ধ করার ক্ষেত্রে ইসরায়েলের যে শর্ত রয়েছে সেটি পরিবর্তিত হয়নি: হামাসের সামরিক ও প্রশাসনিক কাঠামো ধ্বংস করা, সব জিম্মিকে মুক্ত করা এবং নিশ্চিত করা গাজা আবারও ইসরায়েলের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াবে না।”

তিনি আরও বলেছেন, “স্থায়ী যুদ্ধবিরতি হওয়ার আগ পর্যন্ত ইসরায়েল তার শর্তে অটল থাকবে। এসব শর্ত পূরণ হওয়ার আগে ইসরায়েল স্থায়ী যুদ্ধবিরতিতে রাজি হবে এমন ধারণা বাস্তব হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।”

এদিকে বাইডেন যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দেওয়ার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় হামাস বলেছে, তারা এতে ‘ইতিবাচক’।

এছাড়া ইসরায়েলের বিরোধী দলগুলোও এতে সমর্থন জানিয়েছেন। হামাসের হাতে যেসব জিম্মি রয়েছেন তাদের পরিবারের সদস্যরাও এই শর্ত কার্যকর করার জন্য দাবি জানাচ্ছেন।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এইচ

আরো পড়ুন

banner image
banner image