• ঢাকা
  • শনিবার, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ০২ মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

দূতাবাসে আশ্রিত নারীদের ধর্ষণে চাকরি গেল উপসচিবের


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ০৬ জুলাই, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৯:১৮ পিএম
দূতাবাসে আশ্রিত নারীদের ধর্ষণে
চাকরি গেল উপসচিবের

নিউজ ডেস্ক:  সৌদি আরবে গৃহকর্মী হিসেবে গিয়ে নির্যাতনের শিকার নারীদের রাখা হতো দূতাবাসের সেফহোমে। দূতাবাসের কাউন্সেলর হিসেবে সেই নারীদের অপ্রয়োজনে ডেকে পাঠাতেন। একান্ত সাক্ষাৎকারের নামে তাঁদের অশ্লীল প্রশ্ন করতেন। বিভিন্নভাবে হেনস্তা এবং ধর্ষণও করেছেন।

এসব গুরুতর অভিযোগ সৌদি আরবের রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাসের সাবেক কাউন্সেলর মেহেদী হাসানের বিরুদ্ধে। তিনি সরকারের একজন উপসচিব। বিসিএস ২১তম ব্যাচের এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাঁকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করেছে সরকার। বৃহস্পতিবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ–সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, উপসচিব মেহেদী হাসানের বিরুদ্ধে গৃহকর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে ২০২০ সালে। তিনি তখন রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সেলর ছিলেন। একই বছর সংশ্লিষ্ট দূতাবাস একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। 

তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাঁকে ২০২১ সালের ২৪ জানুয়ারি রিয়াদ থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়। পরে তাঁর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। 
২০২১ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি তাঁকে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এত দিন তিনি বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) হয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত ছিলেন। আজ তাঁকে চূড়ান্তভাবে চাকরিচ্যুত করা হয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মেহেদী হাসানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে একজন তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়া হয়। অভিযোগের বিষয়ে মেহেদী হাসানকে লিখিতভাবে প্রথমে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেওয়া হয়। এই কর্মকর্তা লিখিত ও ব্যক্তিগত শুনানিতে যে জবাব দিয়েছেন, তা সন্তোষজনক হয়নি। এ বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি তাঁকে দ্বিতীয়বারের মতো কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছিল। এবারও তিনি সন্তোষজনক বক্তব্য দিতে পারেননি।

অবশেষে মেহেদী হাসানের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা-আপিল) বিধিমালা ২০১৮–এর বিধি ৩ (খ)  অনুযায়ী গুরুদণ্ড দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) পরামর্শও চাওয়া হয়। তাকে গুরুদণ্ড দেওয়ার বিষয়ে রাষ্ট্রপতি ও পিএসসি অনুমোদন দিয়েছে। মেহেদী হাসানের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিধি অনুযায়ী গুরুদণ্ড হিসেবে তাঁকে চাকরিচ্যুত করা হয়।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

আরো পড়ুন

banner image
banner image