• ঢাকা
  • বুধবার, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৯ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

ভরদুপুরে রোদের মধ্যে দীর্ঘ সারিতে অপেক্ষা করেন ভোটাররা


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৫ মে, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৩:৫৫ পিএম
ভোট দিতে ১০ সেকেন্ডের বেশি লাগেনি।
 গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটারের উপস্থিতি

নিউজ ডেস্ক:  গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটারের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো।  বৃহস্পতিবার বেলা ২টা পর্যন্ত বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে দেখেছেন। বেশির ভাগ কেন্দ্রেই ভোটারদের লম্বা লাইন দেখা গেছে।

গাজীপুরে ৪৮০টি কেন্দ্রের সব কটিতেই ইভিএমে ভোট হচ্ছে। তবে কোথাও কোথাও ইভিএম মেশিনে ত্রুটি হয়েছে। অনেক ভোটারের আঙুলের ছাপ মিলছে না। বয়স্ক ও নারী ভোটাররা ভোট দিতে কিছুটা সময় বেশি নিচ্ছেন। এ জন্য ভোট গ্রহণে ধীরগতি লক্ষ করা গেছে।

প্রতিবেদক চান্দনা চৌরাস্তা, জয়দেবপুর, মূল শহর ও ছোট দেওড়া, লক্ষ্মীপুরাসহ বিভিন্ন স্থানে ১৪টি কেন্দ্র ঘুরে দেখেছেন। প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রে সকাল থেকে ভোটারের উল্লেখযোগ্য উপস্থিতি দেখা গেছে। কোথাও কোথাও ভরদুপুরে রোদের মধ্যে দীর্ঘ সারিতে অপেক্ষা করেন ভোটাররা। এর মধ্যে নারী, পুরুষ, বয়স্ক, তরুণ সব শ্রেণির ভোটার আছেন।

চান্দনায় ৯০ বছর বয়সী আতরজান বিবি দুই ছেলের বউয়ের হাতে ভর দিয়ে ভোট দিতে আসেন। শহরের মদিনাতুল উলুম আলিম মাদ্রাসা কেন্দ্রে ১৯ বছর বয়সী রেবেকা সুলতানা প্রথমবার ভোট দিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। ছোট দেওড়া কেন্দ্রে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ৪০ শতাংশের মতো ভোট পড়েছে।

অবশ্য ইভিএমে অনেকে দ্রুত ভোট দিয়ে  স্বস্তি প্রকাশ করেছেন। ছোট দেওড়া কেন্দ্রে ভোটার শেখ কামাল বলেন, তাঁর ভোট দিতে ১০ সেকেন্ডের বেশি লাগেনি। হোসনে আরা নামের আরেক ভোটার বলেন, তিনি যে প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন, সেখানে আঙুলের ছাপের মাধ্যমে হাজিরা দেন। ফলে ইভিএমে তাঁর কোনো সমস্যাই হয়নি।

গিরিজা কিশোর (জি. কে) আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটারদের অপেক্ষা। তবে চান্দনা উচ্চবিদ্যালয় ও কলেজের এক কেন্দ্রে বাতাসি নামের এক নারী ভোটার আধা ঘণ্টা চেষ্টা করেও আঙুলের ছাপ মেলাতে পারেননি।

বেলা দুইটা পর্যন্ত কোনো মেয়র প্রার্থী অনিয়মের বড় কোনো অভিযোগ করেননি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে  কারও প্রতি চড়াও কিংবা কাউকে সুবিধা দেওয়ার মতো অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

প্রায় সব বুথে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আজমত উল্লা খানের এজেন্ট দেখা গেছে। ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থীর এজেন্ট ছিল অনেক কেন্দ্রে। তবে জাহাঙ্গীর আলমের মা জায়েদা খাতুনের এজেন্ট বেশির ভাগ কেন্দ্রে ছিল না।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

আরো পড়ুন

banner image
banner image