• ঢাকা
  • সোমবার, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৭ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

সিলেটে ঐতিহ্যবাহী ‘পলো বাওয়া’ উৎসব


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ২২ জানুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১০:২৫ এএম
পানি ও কচুরিপানা বেশি না থাকায় মাছ নিয়ে
ঐতিহ্যবাহী পলো বাওয়া উৎসব

নিউজ ডেস্ক:  সিলেটের বিশ্বনাথে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে উদযাপন করা হলো ‘পলো বাওয়া’  উৎসবের। শনিবার (২১ জানুয়ারি) উপজেলার গোয়াহরি গ্রামের দক্ষিণের (বড়) বিলে এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশগ্রহণ করেন গ্রামের শতাধিক মানুষ।

প্রতিবছর শীতকালে এ উৎসব পালিত হয়। পানি ও কচুরিপানা বেশি না থাকায় মাছ নিয়ে ফিরেছেন অনেকেই। মাছের মধ্যে ছিলো বোয়াল, শউল, মিরকা, কারপু, বাউশ, ঘনিয়া, রওউসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ।

গোয়াহরি গ্রামের ঐহিত্য অনুযায়ী মাঘ মাসের প্রথম দিন ‘পলো বাওয়া’ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু এবার বিলে মাছ বেশি থাকায় এলাকাবাসী পলো বাওয়ার উৎসবের তারিখ পরিবর্তন করেন। এ উৎসবকে কেন্দ্র করে গোয়াহরি গ্রামে কয়েকদিন ধরে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছিলো। ১৫ দিন পর্যন্ত চলবে এ উৎসব। ঐতিহ্য অনুযায়ী ১৫ দিন পর ২য় ধাপে শুরু হবে পলো বাওয়া। এই পনেরো দিনের ভিতরে বিলে হাত দিয়ে মাছ ধরা হবে এবং কেউ চাইলে হাতা জাল দিয়ে মাছ ধরতে পারবেন।

sylhet

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাছ শিকার করতে নিজ নিজ পলো নিয়ে বিলের উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন লোকজন। যাদের পলো নেই তারা মাছ ধরার ছোট ছোট বিভিন্ন জাল নিয়ে মাছ শিকারে ব্যস্ত সময় কাটান। এসময় মাছ ধরার এ দৃশ্য উপভোগ করতে শিশু থেকে বৃদ্ধ অনেককেই দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

গোয়াহরি গ্রামের ইকবাল হোসেন বলেন, পলো বাওয়া উৎসব আমাদের গ্রামের একটি ঐতিহ্য। শত ব্যস্ততার মধ্যেও এ উৎসবে অংশগ্রহণ করি। গ্রামবাসী যুগ যুগ ধরে এই উৎসব পালন করে আসছেন।
মাদরাসা শিক্ষক মাওলানা লুৎফুর রহমান বলেন, উৎসবে অংশ নিতে পেরে খুব আনন্দ লাগছে।

প্রবাসী আশরাফুজামান বলেন, আমি পলো বাওয়া অনেক বছর দেখি না। এবার এ উৎসব দেখতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। পলো দিয়ে মাছ শিকার করা অনেক আনন্দের।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

আরো পড়ুন

banner image
banner image