• ঢাকা
  • বুধবার, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২১ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

শার্শা টু ব্যাংদাহ সড়কের উন্নয়ন কাজ শুরু, খুশিতে ২ উপজেলাবাসী


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১২:০৭ পিএম
শার্শা টু ব্যাংদাহ খুশিতে ২ উপজেলাবাসী
সড়কের উন্নয়ন কাজ শুরু

শার্শা (যশোর) প্রতিনিধি : অবশেষে দীর্ঘদিন পর শার্শা টু ব্যাংদাহের ১৮কিলোমিটার‌‌ সড়কটির উন্নয়ন কাজ শুরু হয়েছে। কাজ শেষ হলেই শার্শা ও চৌগাছার দুই উপজেলার মানুষের চলাচল এবং ব্যবসা বাণিজ্যের পথ সুগম হবে। 

অন্যদিকে দীর্ঘদিনের কষ্ট থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার কথা ভেবেই খুশি দুই উপজেলা কয়েক লক্ষ মানুষ সহ এই সড়ক ব্যবহারকারীরা। 

সরেজমিনে তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, যশোরের শার্শা উপজেলার শার্শা কামারবাড়ী মোড় হতে ব্যাংদাহ পর্যন্ত ১৮কিলোমিটার‌‌  ভাঙাচোরা সড়কটিতে দীর্ঘদিন ধরে মানুষ ও যানবাহন চলাচল করে হাঁপিয়ে উঠেছিলো।

অবশেষে সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে উন্নয়নের কাজ শুরু হয়েছে অতি গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটিতে। এই সড়ক বেয়ে শার্শা থেকে গোড়পাড়া, সাড়াতলা, পাকশিয়া, কাশিপুর ও ব্যাংদাহ হয়ে চৌগাছা উপজেলায় উঠেছে।

সড়কটিতে দীর্ঘদিন উন্নয়ন না হওয়ায় পিচ খেয়া উঠে গিয়ে খানা-খন্দে ভরে যাওয়ায় যানবাহন ও সাধারণ মানুষের চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছিলো। 

যে কারণে শার্শা ও চৌগাছা উপজেলার সাথে ব্যবসা বাণিজ্য ও পরিবহন ব্যবস্থা থমকে যায়। এবার সব সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার লক্ষণ দেখেই বেজায় খুশি দুই উপজেলা কয়েক লাখ মানুষ।

শার্শা স্বরুপদাহ গ্রামের আক্কাজ আলী বলেন, ভাঙ্গাচোরা রাস্তার জন্য দীর্ঘদিন আমরা ভোগান্তিতে ছিলাম। এখন রাস্তার উন্নয়নের কাজ দেখে অনেক ভাল লাগছে। সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। 

ব্যাংদাহ গ্রামের আব্দুল কাদের বলেন, শার্শা থেকে ব্যাংদাহ সড়কটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যস্ততম সড়ক। শার্শা থেকে ব্যাংদাহ হয়ে চৌগাছা উপজেলায় উঠেছে। যাতায়াত ব্যবস্থা সহজতর হলে দুই উপজেলায় ব্যবসা বাণিজ্যে অনেক সুবিধা হবে। 

শার্শা উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী (এলজিইডি) এম এম মামুন হাসান বলেন,স্থানীয় সরকার প্রকৌশল এলজিইডি কতৃক বাস্তবায়নাধীন সড়ক উন্নয়নের প্রকল্পটি উপজেলা প্রশাসন মনিটরিং করছে। এই সড়কটির উন্নয়ন কাজের মধ্যে ৫টি ব্রীজ, ১৬ টি কালভার্ট, ৪টি বাজার সেড সহ ড্রেনেজ ব্যবস্থা রয়েছে। এ কাজে ব্যায় হবে ৮০কোটি ২৯‌ লক্ষ্য ৬২ হাজার ২৮০ টাকা।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নারায়ণ চন্দ্র পাল বলেন, এই সড়কের উন্নয়ন কাজ শেষ হলে শার্শা ও বেনাপোল থেকে আশেপাশের কয়েকটি উপজেলার সাথে দূরত্ব কমে আসবে। 

যাতায়াত ব্যবস্থা সহজতর হওয়ার পাশাপাশি ব্যবসা বাণিজ্যে ব্যাপক উন্নয়ন ঘটবে। প্রকল্পটি উপজেলা প্রশাসন৷ সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছে। আশা করছি দ্রুত নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ হবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image