• ঢাকা
  • শনিবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২১ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

খাগড়াছড়ির রামগড়ে ৪৩ বছরের পুরনো মৎস্য হ্যাচারিটি বিলুপ্তির পথে


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ০৬ মার্চ, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৯:৫৩ পিএম
সম্প্রসারণ প্রকল্পের আওতায় তিন পার্বত্য জেলায় তিনটি
মৎস্য হ্যাচারিটি বিলুপ্তির পথে

রিপন সরকার, খাগড়াছড়ি:  খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার  রামগড়ে মৎস্য পোনা ও রেনু উৎপাদন কারী ৪৩ বছরের পুরনো একটি হ্যাচারী যথাযথ নজরদারি ও পর্যাপ্ত বরাদ্দের অভাবে প্রায় বিলুপ্তির পথে এটি রামগড় মিনি মৎস্য হ্যাচারী নামে  পরিচিত।

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে মৎস্য চাষ উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ প্রকল্পের আওতায় তিন পার্বত্য জেলায় তিনটি হ্যাচারীতে মৎস্য রেনু, পোনা উৎপাদিত হয় এই রেনু/পোনা তিন পার্বত্য জেলার বিশাল জন গোষ্টির জন্য মৎস্য চাহিদা পুরনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে । রামগড়ে মৎস হ্যাচারী স্থাপিত হয় ১৯৭৯ সালে। দীর্ঘ বছর বিভিন্ন মেয়াদি প্রকল্পের মাধ্যমে চলে আসছিলো এটি।

২০১৩ সাল থেকে  পরিচালিত হয়ে ২০১৭ সাল পর্যন্ত  রাঙামাটি মৎস্য বিভাগ পাহাড়ি প্রকল্পের অধিনে থাকার পর( ৩০ জুন ২০১৮) হ্যাচারীটি খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের অধিনে নিয়ে আসা হয়। তার পর থেকেই ৪ বছরে ধরে রামগড় মৎস্য হ্যাচারীর করুন পরিনিতি দেখা দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে উৎপাদনের চেয়ে  চাহিদা বেশি থাকার কারণে  সংশ্লিষ্ট  প্রকল্প পরিচালক আরো একটি হ্যাচারী স্থাপনের আবেদন করেন,সেটি বর্তমানে খাগড়াছড়ি সদরে স্থাপিত হয়েছে, এবং ঐ হ্যাচারীতেও রেনু উৎপাদন শুরু হয়েছে।নতুন হ‍্যাচারী কার্যক্রম চলমান থাকলেও  বন্ধ হয়ে যাওয়ার পথে  প্রাচীন কালের রামগড় মৎস্য হ‍্যাচারিটি।

রামগড় মৎস্য হ্যাচারীর কর্মচারী নাসির উদ্দীন বলেন, প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হলেও পরবর্তী প্রকল্পের জন্য দীর্ঘ সময় উৎপাদন বন্ধ রয়েছে ফলে  ক্ষুদ্র চাষিরা রেনু/পোনার জন্য হিমসিম খাচ্ছে। গুনগত মানের রেনু পোনা না পেয়ে বহু মৎস্য চাষি মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন লাভ জনক এখাত থেকে। চলমান প্রকল্প ৩০ শে জুন২০১৮ ইং মেয়াদ কাল শেষ হয়েছে  ৪ বছর আগে সেই থেকে খুঁড়ে খুঁড়ে চলছে এটি, স্থবির হয়ে গেছে লক্ষ লক্ষ পোনা উৎপাদন। অনিচ্ছয়তার মাঝে পড়ে আছে এই হ্যাচারী। অপরদিকে  উৎপাদনের সাথে জড়িত থাকা দক্ষ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা অতিকষ্টে জীবন যাপন করছেন। প্রশ্নের মুখে পড়েছে এটি, কেন এমন  অবহেলিত হয়ে  গেছে সরকারের  কোটি  টাকার এই সম্পদ তা সবারই অজানা।

বিদ্যুৎ বিল বকেয়া থাকায় বর্তমানে  বিদ্যুৎ লাইনও কেটে দেয়া হয়েছে।  মা মাছের খাদ্য সংকটের কারণে মরে যাচ্ছে অনেক মা মাছ। আগামী মৌসুমে প্রজননের  মা মাছ সংকেট দেখা দেবে,নাসির উদ্দীন বলেন,  বর্তমানে অত্র হ্যাচারীতে  আমরা দুইজন কর্মচারী অনাহারে অধ্যাহারে দিন কাটাচ্ছি, সামান্য বিলের অজুহাতে সরকারি এমন উৎপাদনে বাধা ও কর্মচারীদের  ঘর বন্দী অবস্থায় রাখা হয়েছে।

রামগড় উপজেলা মৎস্য অফিসার বিজয় কুমার দাস জানান হ‍্যাচারীটি পার্বত্য জেলা পরিষদের প্রকল্পের মাধ্যমে পরিচালনা করা হয়,এবং জেলা পরিষদের  অধিনস্থ, প্রকল্প চলমান থাকাকালীন আমরা তদারকি"র কাজ করে থাকি, এছাড়া  আমাদের কিছু করার নেই, আর বর্তমানে  প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার কারণে এর কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে, হ‍্যাচারীটি পূণরায় প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো জন্য উপজেলা মৎস্য অফিস থেকে খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের সংশ্লিষ্ট প্রকল্প কর্মকর্তাদের এলাকার স্বার্থে এবিষয়ে অবহিত করা হয়েছে।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

সারাদেশ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image