• ঢাকা
  • বুধবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৯ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

জোট বাঁধতে প্রস্তুত ফেউ থাই এবং মুভ ফরোয়ার্ড পার্টি


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৬ মে, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৮:১৬ পিএম
১৪১টি আসন পেয়েছে
থাইল্যান্ডের জাতীয় নির্বাচন

নিউজ ডেস্ক:  থাইল্যান্ডের জাতীয় নির্বাচনের ফলাফলে গণতন্ত্রপন্থি বিরোধীদলের জয়জয়কার অবস্থা দেখা গেছে। অধিকাংশ আসনে জয় পেয়েছে তারা। এই নির্বাচনের মাধ্যমে এক দশক ধরে চলা সামরিক শাসন বা তাদের আশীর্বাদপুষ্টদের প্রত্যাখ্যান করতে যাচ্ছে দেশটির মানুষ। এক প্রতিবেদনে এমনটি জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।

তারুণ্যের সমন্বয়ে গঠিত দুই দল মুভ ফরোয়ার্ড পার্টি এবং ফেউ থাই পার্টি দারুণ সাফল্য অর্জন করেছে। এককভাবে সরকার গঠন করার মতো সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি কোনো দলই। ফলে নির্বাচনে আসনের দিক থেকে শীর্ষস্থানে থাকা দুটি দলই পরস্পর জোট গঠন করতে যাচ্ছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন নেতারা। প্রাথমিক ফলাফলে থাইল্যান্ডের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের ৫০০ আসনের মধ্যে ১৫১টি জিতেছে মুভ ফরোয়ার্ড পার্টি। 

অন্যদিকে এই দল সাবেক প্রধানমন্ত্রী থাকসিন সিনাওয়াত্রার মেয়ে পায়েটংটার্ন সিনাওয়াত্রার নেতৃত্বে নির্বাচনে অংশ নেওয়া ফেউ থাই পার্টির চেয়ে এখনো ১০টি আসনে এগিয়ে রয়েছে।ফেউ থাই পার্টি ১৪১টি আসন পেয়েছে।

মুভ ফরোয়ার্ড পার্টির নেতা ৪২ বছর বয়সি পিটা লিমজারোয়েনরাত নির্বাচনের এ ফলাফলকে ‘চাঞ্চল্যকর’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন এবং সরকার গঠনের সময় তার দলের মূল্যবোধের প্রতি অটল থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। পাশাপাশি পিটা লিমজারোয়েনরাত এরই মধ্যে ছয়টি বিরোধী দলের সমন্বয়ে জোট গঠনের ঘোষণা দিয়েছেন। যাদের সঙ্গে মিলে তিনি সরকার গঠন করতে চান। এই ছয়টি দলের মোট আসন সংখ্যা ৩০৯টি। 

তবে প্রধানমন্ত্রী হতে হলে তাকে অন্তত ৩৭৬ জনের সমর্থন লাগবে। তবে দল দুইটি সরকার গঠন করতে পারবে কি না, তা নিয়ে এখনো শঙ্কা রয়েছে। কারণ সিনেটের ২৫০ আসনে নিয়োগ দেয় সামরিক সরকার। তারা বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকেই ভোট দিতে পারেন। তবে সরকার গঠন করতে ছোট ছোট দলগুলোর সঙ্গে চুক্তির প্রয়োজন হতে পারে মুভ ফরওয়ার্ড ও পপুলিস্ট থাই পার্টির। ২০১৪ সালে এক অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে থাইল্যান্ডের ক্ষমতা দখল করেন সাবেক সেনাপ্রধান প্রাউত।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

আরো পড়ুন

banner image
banner image