• ঢাকা
  • বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২২ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

মাদক উদ্ধারের সময় ছুরিকাঘাতে সোর্স আহত


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ১০ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০:৫৫ এএম
ছুরিকাঘাতে সোর্স
আহত

জামালপুর প্রতিনিধি : জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার ফুলকারচর গ্রামে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযান পরিচালনার সময় জাহাঙ্গীর (৩৫) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীর ছুরিকাঘাতে অধিদপ্তরের এক সোর্স আহত হয়েছেন।

অভিযানে ওই মাদক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে চার গ্রাম হিরোইন ও একটি কালো রঙ্গের স্টিলের চাকু উদ্ধার করা হয়। এ সময় তাকে আটক করা হয়। আটক মাদক ব্যবসায়ী ওই গ্রামের মৃত আজিজুল হকের ছেলে।

আটক মাদক ব্যবসায়ীকে সোমবার (৮ এপ্রিল) আদালতে সোপর্দ করা হলে তাকে জেলহাজতে পাঠান আদালত। এর আগে রবিবার (৭ এপ্রিল) ওই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়,
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর জামালপুর জেলা কার্যালয়ের খ সার্কেলের পরিদর্শক মো. এনামুল হকের নেতৃত্বে ফুলকারচর গ্রামে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে আসামি জাহাঙ্গীরকে হেরোইনসহ গ্রেফতার করার সময় তিনি ধস্তাধস্তি শুরু করলে তার সঙ্গে থাকা অত্যাধুনিক সুইচ গিয়ার চাকু দিয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের (Readings পার্টির মামলার সহায়তা দানকারী) এক সোর্সের বুকের বাম পাঁজরে ঘাই মেরে মারাত্মক জখম করে। আঘাত করে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় অভিযান পরিচালনাকারী দলের সদস্যরাও তার পেছনে দৌড়ে গিয়ে আসামি জাহাঙ্গীরকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। আসামির কাছ থেকে চার গ্রাম হিরোইন ও একটি কালো রঙের স্টিলের চাকু উদ্ধার করা হয়।

জখমপ্রাপ্ত ব্যক্তি হুমায়ুনকে চিকিৎসার জন্য প্রথমে ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করেন। অবস্থার অবনতি হলে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত ডা. মো. ফাহিম আহত হুমায়ুনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে রেফার্ড করেন। বর্তমানে তিনি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

আসামির বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরির্দশক মো. এনামুল হক বাদী হয়ে ইসলামপুর থানায় দুইটি পৃথক মামলা দায়ের করেন। মামলা দুইটির একটি মাদক আইনে, আরেকটি হত্যার উদ্দেশ্যে চাকু মেরে মারাত্মকভাবে জখম করার জন্য সংশ্লিষ্ট আইনে।

তথ্য নিশ্চিত করে এ বিষয়ে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল হালিম রাজ জানান, আটক মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে পৃথক আইনে দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাকে আটকের পর আদালতে সোপর্দ করা হলে আদালত তাকে জেলহাজতে পাঠিয়েছেন।

মাদকের বিরুদ্ধে অধিদপ্তরের এ অভিযান চলমান থাকবে বলেও জানান সহকারী পরিচালক।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image