• ঢাকা
  • রবিবার, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২১ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

ব্যাংক ঋণের সুদের হার আরও বেড়েছে


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ০১ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৫:৫৫ পিএম
গ্রাহক পর্যায়ে ঋণের সুদ হার আরও বাড়ল
বাংলাদেশ ব্যাংকের ছবি

নিউজ ডেস্ক:  ব্যাংক ঋণের সুদহার আরেক দফা বাড়ল। চলতি এপ্রিল মাসে ব্যাংক ঋণের বিপরীতে সর্বোচ্চ ১৩ দশমিক ৫৫ শতাংশ সুদ আরোপ করতে পারবে ব্যাংক। গত মার্চ মাসে যা ছিল ১৩ দশমিক ১১ শতাংশ। সুদহার নির্ধারণের পদ্ধতি ‘স্মার্ট’ রেট বেড়ে যাওয়ার কারণে গ্রাহক পর্যায়ে ঋণের সুদ হার আরও বাড়ল। যদিও বাংলাদেশ ব্যাংক স্মার্টের সঙ্গে মার্জিনের হার কমিয়েছে।

এ হিসাবে জুলাইয়ের পর গত ৯ মাসে ঋণের সুদের হার ৪ দশমিক ৪৫ শতাংশীয় পয়েন্ট বেড়েছে। সুদহার নির্ধারণের স্মার্ট পদ্ধতিতে সরকারি ট্রেজারি বিলের ছয় মাসের মুভিং এভারেজ রেট বা গড় হারকে স্মার্ট বলা হয়। গত বছরের জুলাই থেকে স্মার্ট পদ্ধতির সুদহার নির্ধারণ পদ্ধতি প্রচলন করে বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রতি মাসে স্মার্ট প্রকাশ করছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর আগে দুয়েকটি ক্ষেত্র ছাড়া ঋণের সুদহার ৯ শতাংশে নির্ধারিত ছিল। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংক আইএমএফের পরামর্শে ৯ শতাংশের সীমা প্রত্যাহার করে নেয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, মার্চ মাসে স্মার্ট রেট দাঁড়িয়েছে ১০ দশমিক ৫৫ শতাংশে। এর সঙ্গে ৩ শতাংশ মার্জিন যোগ করলে ঋণের সর্বোচ্চ সুদহার দাঁড়ায় ১৩ দশমকি ৫৫ শতাংশ।  গত এক বছরের মধ্যে গত মাসেই স্মার্ট রেট সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে স্মার্ট রেট  ছিল ৯ দশমকি ৬১ শতাংশ।  গত জানুয়ারি মাসে ছিল  ৮ দশমিক ৬৮ শতাংশ।

গত জুলাই থেকে প্রচলনের পর প্রতি মাসে স্মার্ট বেড়েই চলেছে। স্মার্ট রেট অনেক বেড়ে যাওয়ায় গতকাল এক সার্কুলারে বাংলাদেশ ব্যাংক স্মার্টের সঙ্গে যোগ করা মার্জিন সাড়ে ৩ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩ শতাংশ করেছে। না কমালে এপ্রিলে ঋণের সুদহার দাঁড়াত ১৪ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ।

মতামত জানতে চাইলে বেসরকারি ব্যাংক দি সিটি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসরুর আরেফিন বলেন, এখন পর্যন্ত যে  সুদহার আছে, তা ঠিক আছে। কিন্তু যে হারে স্মার্ট বাড়ছে, তাতে ১৬ থেকে ১৭ শতাংশ হলে  ঋণ নিয়ে ব্যবসায়ীরা ফেরত দিতে পারবেন কিনা, তাও ভেবে দেখতে হবে।

সুদহার বৃদ্ধির পরও গত ছয় মাসে ব্যাংক ঋণের পরিমাণ আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫ হাজার কোটি টাকা বেড়েছে– এমনটা জানিয়ে মাসরুর আরেফিন বলেন, সুদহার বাড়লেও এখনও ঋণের চাহিদা আছে। সুদহার আরও বাড়লে অনেকে ঋণ নেবেন। তবে এর থেকে আর বাড়তে দেওয়া উচিত নয়।

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সভাপতি মো. মাহবুবুল আলম সম্প্রতি সমকালকে বলেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের স্মার্ট ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রতি মাসে সুদহার বাড়ানো হচ্ছে। এভাবে সুদহার বেড়ে যাওয়ায় ব্যবসার খরচ বাড়ছে। আগামী জুনের মধ্যে যেন নতুন করে আর সুদহার না বাড়ানো হয়, সে দাবি জানান ।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এইচ

আরো পড়ুন

banner image
banner image